মঙ্গলবার, ১৭ মে, ২০২২

বিকানের গুয়াহাটি এক্সপ্রেস দুর্ঘটনার দেড় দিন পর স্বাভাবিক রেল পরিষেবা

০৮:৪৬ এএম, জানুয়ারি ১৬, ২০২২

বিকানের গুয়াহাটি এক্সপ্রেস দুর্ঘটনার দেড় দিন পর স্বাভাবিক রেল পরিষেবা

অবশেষে দেড় দিন পর স্বাভাবিক হল বিকানের গুয়াহাটি এক্সপ্রেস লাইনের রেল পরিষেবা। প্রথমে মাল গাড়ি চালিয়ে একবার ট্রায়াল রান দেওয়ার পর আপ ও ডাউন লাইনে ধীরে ধীরে শুরু করা হয় রেল চলাচল। ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে দুর্ঘটনাগ্রস্থ গাড়ি সরানোর কাজ।

বৃহস্পতিবার বিকেলে ময়নাগুড়ির দোমহিনীর কাছে লাইনচ্যুত হয়ে যায় ১৫৩৬৬ বিকানের গুয়াহাটি এক্সপ্রেস। ছয়টি বগি উল্টে যায়। এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত প্রাণ গিয়েছে ৯ জনের। আহত হয়েছেন বহু। এরপরেই দুর্ঘটনার কারণ হিসেবে একাধিক সম্ভাব্য বিষয় উঠে এসেছে। পরে অবশেষে জানা যায় ট্র্যাকশন মোটর ভেঙে পড়ার কারনেই এই দুর্ঘটনা ঘটে। যদিও ট্রেন দুর্ঘটনায় রেলের বিভাগীয় তদন্ত শুরু হয়।

দুর্ঘটনার খবর পেয়ে পরদিন শুক্রবার দিল্লি থেকে ঘটনাস্থলে আসেন রেলমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণব। সকালে দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছে তিনি প্রায় ঘন্টাখানেক দুর্ঘটনাস্থল ঘুরে দেখেন ।এবং দুর্ঘটনা ঘটার কারণ হিসেবে যান্ত্রিক ত্রুটিকে দায়ী করেন। রেল দফতর থেকে জানানো হয়েছিল দুর্ঘটনার মুহূর্তে টেনের গতিবেগ ছিল ৪০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টা। কিন্তু শুক্রবার ওই অভিশপ্ত ট্রেনের চালক প্রদীপ কুমার ঘটনাস্থলে দাঁড়িয়ে ট্রেনের গতিবেগ ৯৫ থেকে ১০০কিলোমিটার ছিল বলে সামনে জানিয়েছেন। অতিরিক্ত গতির কারণেও দুর্ঘটনা ঘটে থাকতে পারে যে মনে করছে অভিজ্ঞমহল।

এরপরেই শনিবার দুর্ঘটনার কারণ জানতে বিভাগীয় তদন্ত শুরু করে রেল দফতর। শনিবার আলিপুরদুয়ার জংশনে বিভাগীয় রেলওয়ে প্রবন্ধকের কার্যালয়ে ডেকে পাঠান হয় ওই ট্রেনের চালক প্রদীপ কুমার ,সহকারী চালক অভিষেক রোশন সহ ট্রাফিক কন্ট্রোলার ও সংশ্লিষ্ট স্টেশন মাস্টারকে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন কমিশনার অফ রেলওয়ে সেফটির নেতৃত্বে তিন জনের তদন্ত কমিটি।এছাড়াও দুর্ঘটনাগ্রস্ত বিকানের গুয়াহাটি এক্সপ্রেসের ইঞ্জিনের অনুরূপ একটি ইঞ্জিন কে আলিপুরদুয়ার জংশন স্টেশনে এনে চালিয়ে বেশ কিছু পরীক্ষা নিরীক্ষা করে তদন্তকারী দল।