পর্নোগ্রাফি বানানোর অভিযোগে খারিজ জামিন! ২৩ জুলাই অবধি জেল হেফাজতে অভিযুক্ত রাজ কুন্দ্রা

পর্নোগ্রাফি বানানোর অভিযোগে খারিজ জামিন! ২৩ জুলাই অবধি জেল হেফাজতে অভিযুক্ত রাজ কুন্দ্রা
পর্নোগ্রাফি বানানোর অভিযোগে খারিজ জামিন! ২৩ জুলাই অবধি জেল হেফাজতে অভিযুক্ত রাজ কুন্দ্রা

পর্নোগ্রাফি সিনেমা তৈরির অভিযোগে ইতিমধ্যেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে অভিনেত্রী শিল্পা শেঠির স্বামী রাজ কুন্দ্রাকে। ২০২১-এর ফেব্রুয়ারি মাসে তাঁর বিরুদ্ধে এই অভিযোগ দায়ের হয়। পর্নো ছবি বানিয়ে বিভিন্ন অ্যাপের মাধ্যমে তা ছড়িয়ে দিচ্ছিলেন রাজ কুন্দ্রা। সোমবারই তাঁকে গ্রেপ্তার করে মুম্বই পুলিশ। পাশাপাশি তাঁর সহকারী রায়ান থর্পকেও আটক করা হয়েছে। এবার তাঁদের জামিনের অভিযোগও খারিজ করল আদালত।

রাজ কুন্দ্রার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধি আইনের একাধিক মামলা দায়ের হয়েছে। প্রতারণার ৪২০ মামলা, অশ্লীল ছবি ও বিজ্ঞাপন তৈরি এবং তা ছড়িয়ে দেওয়ার মামলা ২৯২ এবং ২৯৩ দায়ের হয়েছে শিল্পার স্বামীর বিরুদ্ধে। মঙ্গলবারই মুম্বইয়ের এসপ্ল্যানেড আদালতে তোলা হয় রাজ কুন্দ্রা এবং তাঁর সহকারী রায়ানকে। সেখানে দুজনে জামিনের আর্জি জানালে তা সাফ খারিজ করে দেওয়া হয়। সূত্রের খবর, আগামী ২৩শে জুলাই পর্যন্ত রাজ ও রায়ানকে পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

মুম্বই পুলিশের তরফ থেকে জানা গিয়েছে, রাজ কুন্দ্রার বিরুদ্ধে প্রচুর প্রমাণ রয়েছে তাদের কাছে। প্রমাণ হিসাবে যে পরিমাণ তথ্য তাদের কাছে এসেছে তার ভিত্তিতেই প্রথমে ডেকে পাঠানো হয় রাজস্থান রয়্যালসের প্রাক্তন কর্ণধারকে। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়৷ তারপরই অশ্লীল ছবি বানানো এবং অ্যাপের মাধ্যমে তা ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হয় শিল্পার স্বামীকে।

শুধু তাই নয়, মুম্বই পুলিশের তরফে একটি বিবৃতি থেকে জানা গিয়েছে, পুলিশের হাতে তথ্য প্রমাণ হিসাবে রাজ কুন্দ্রার হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটও এসেছে। সেই চ্যাটে পর্নোগ্রাফি ছবি থেকে উপার্জিত অর্থের হিসাব নিয়েও আলোচনা করা চলত। তাই রাজের বিরুদ্ধে জোরালো প্রমাণ নিয়েই মাঠে নেমেছে পুলিশ। অন্যদিকে, রাজের জামিন খারিজ হওয়ায় শিল্পা শেঠি এবং তাঁর পরিবার আপাতত গভীর চিন্তায় পড়েছেন।