আজই রাজ্যে আসছেন কৃষক নেতা রাকেশ টিকাইত! শুভেচ্ছা জানাবেন মুখ্যমন্ত্রীকে

আজই রাজ্যে আসছেন কৃষক নেতা রাকেশ টিকাইত! শুভেচ্ছা জানাবেন মুখ্যমন্ত্রীকে
আজই রাজ্যে আসছেন কৃষক নেতা রাকেশ টিকাইত! শুভেচ্ছা জানাবেন মুখ্যমন্ত্রীকে

পূর্ব কথা মত আজ বুধবারই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করতে আসছেন কৃষক নেতা রাকেশ টিকাইত। সূত্রের খবর, এদিন বেলা তিনটে নাগাদ মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবেন তিনি।
জাতীয় রাজনীতিতে মোদির বিরুদ্ধে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখকেই সামনে রেখে এগোতে চাইছে অবিজেপি দলগুলি।

কেন্দ্রীয় সরকারের কৃষক আইনের বিরোধিতা করে দিল্লির কৃষক আন্দোলন কে সমর্থন জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই সূত্রেও কৃষক আন্দোলনের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে ভাল সম্পর্ক তৈরী হয়েছে তার। তাই এবার নিজেদের অবস্থান ব্যাখ্যা করতেই মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে আসছেন কৃষক আন্দোলনের শীর্ষ নেতা রাকেশ টিকাইত।

মোদির কৃষক আইনের বিরোধিতায় যখন উত্তাল দেশ তখন দিল্লির কৃষক আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। দিল্লিতে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়দের পাঠিয়ে কৃষকদের খোঁজখবর নিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি রাজ্যেও প্রতীকী আন্দোলন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এবার দিল্লির বুকে কৃষক আন্দোলনের বর্ষপূর্তি হতে চলেছে।তাই নিজেদের অবস্থান ব্যাখ্যা করতেই আগামী ৯ জুন অর্থাৎ আজ মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার জন্য আবেদন জানিয়েছেন এই কৃষক নেতা। সেই মতই মুখ্যমন্ত্রী সময় দিয়েছেন তাঁকে। আজ কলকাতায় এসে বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবেন কৃষক আন্দোলনের শীর্ষনেতারা।

এরাজ্যে ভোটের আগে মহা কৃষক পঞ্চায়েতের আয়োজন করেছিলেন রাকেশ টিকাইত। কলকাতা এবং নন্দীগ্রামে জোড়া সভা করেন তিনি। যদিও এই আন্দোলন বামঘেঁষা বলে অনেকেই মনে করেছিলেন। তবে ভোটের ফলে বামেরা এরাজ্যে শূন্য। সর্বভারতীয় স্তরে মোদি বিরোধী মুখ হয়ে উঠেছে মমতা। আর এই সাক্ষাতেই জল্পনা আরও বাড়ছে। এরপর কৃষক আন্দোলন আরও এক নতুন মাত্রা নিতে পারে বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

২০২১ -এর বিধানসভা ভোটে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় এসেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আপাত ভাবে মনে করা হচ্ছে, নেহাত এই জয়ের জন্য শুভেচ্ছা জানাতে আসছেন রাকেশ টিকায়েত। তবে এর পিছনে অন্য কোনও সমীকরণ আছে কিনা তা নিয়েও যথেস্ট জল্পনার অবকাশও থাকছে।

এদিকে একুশের বিধানসভা নির্বাচনে বাংলা দখল করতে বিজেপি যেভাবে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল ঠিক একইভাবে লোকসভা নির্বাচনে ভারতের মসনদ দখলে মরিয়া হয়ে উঠবে ঘাসফুল শিবির তা বলাই বাহুল্য। তাই বিভিন্ন রাজ্যের ও বিজেপি দলগুলোর সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়ের মাধ্যমে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যে সেই সম্পর্ককে আরও দৃঢ় করছেন তা বলার অবকাশ রাখে না।