সাবধান! সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়ো খবর ছড়ালে নেওয়া হবে কড়া ব্যবস্থা, হুঁশিয়ারি কেন্দ্রের

সাবধান! সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়ো খবর ছড়ালে নেওয়া হবে কড়া ব্যবস্থা, হুঁশিয়ারি কেন্দ্রের / ছবি সৌজন্যেঃ ফাইল ছবি
সাবধান! সোশ্যাল মিডিয়ায় ভুয়ো খবর ছড়ালে নেওয়া হবে কড়া ব্যবস্থা, হুঁশিয়ারি কেন্দ্রের / ছবি সৌজন্যেঃ ফাইল ছবি

বর্তমান যুগে খবর বা তথ্য সরবরাহের জন্য সবচেয়ে সহজলভ্য উপযুক্ত মাধ্যম হল সোশ্যাল মিডিয়া। তবে এবার থেকে নেটদুনিয়ায় খবর পাচারের আগে সাবধান হয়ে যান। কারণ, সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে ভুয়ো খবর ছড়ালেই এবার কড়া ব্যবস্থা নেবে কেন্দ্র। সম্প্রতি রাজ্যসভায় এমন হুঁশিয়ারই দিলেন কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ।

রাজ্যসভায় তিনি বলেন, ‘সাধারণ মানুষের ক্ষমতায়নের জন্য সোশ্যাল মিডিয়ার যে অবদান, তা সরকার সম্মান করে। কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করে ভুয়ো খবর বা হিংসা ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।‘ যদিও কেন্দ্রীয় সরকারকে ইতিমধ্যেই টুইটার জানিয়েছে, তাদের সংস্থার নিয়ম ভাঙার জন্য ৫০০-র বেশি অ্যাকাউন্টকে চিরতরে মুছে ফেলা হয়েছে।
তবে টুইটারের প্রতিনিধিদের সঙ্গে দেখা করতে অস্বীকার করেছিলেন রবিশঙ্কর প্রসাদ। তাঁর অনুপস্থিতিতে মন্ত্রকের সচিব অজয় প্রকাশের সঙ্গে আলোচনা হয়েছিল। টুইটারের মাধ্যমে কেউ কীভাবে ভুল তথ্য ছড়াতে পারে, তা নিয়ে জবাবদিহিও চাওয়া হয়েছিল। তবে, চলতি সপ্তাহে ভিডিও কনফারেন্সে দু’পক্ষের ফের বৈঠকের সম্ভাবনা রয়েছে।

এরই সঙ্গে উঠেছে পালটা অভিযোগও। বিরোধীরা দাবী করেছেন, টুইটারের মাধ্যমে দেশের কৃষক আন্দোলনের পক্ষে জনমত এবং সমর্থনের ঝড় উঠেছিল। সরকার সেটিকে ভালো নজরে দেখছে না। এরই মাঝে, কিছু খালিস্তানি সমর্থকদের পক্ষ থেকে #ফার্মার্স জেনোসাইড নামক হ্যাশট্যাগ ট্রেন্ডিংয়ে উঠে আসে। যা নিয়ে সৃষ্টি হয় পালটা বিতর্কের। সরকারের পক্ষ থেকেও পাল্টা সমর্থনে টুইটারে বার্তা পাঠান বেশ কিছু দেশবাসী। তবে এসব ঘটনার জন্যই টুইটারকে সতর্ক করতে থাকে কেন্দ্রীয় সরকার।

ইতিমধ্যেই টুইটার বয়কট করে ভারতে বানানো ‘কু’ সাইট ব্যবহারের রব উঠেছে চারিদিকে। টুইটারে অ্যাকাউন্ট খুলতে গেলে ফোন নম্বর দেওয়া বাধ্যতামূলক নয়। তাই সহজেই সেখানে ফেক-অ্যাকাউন্ট তৈরি করা যায় বলে অভিযোগও উঠেছে। এবার নেটদুনিয়ার সেই ভুয়ো তথ্য এবং হিংসা রুখতেই কড়া পদক্ষেপ নিতে নিজেদের বার্তা স্পষ্ট করে দিল কেন্দ্রীয় সরকার।