লকডাউন এবং করোনার জেরে থমকে ঋতুপর্ণার ওপার বাংলার দু’দুটি চলচ্চিত্রের কাজ

লকডাউন এবং করোনার জেরে থমকে ঋতুপর্ণার ওপার বাংলার দু’দুটি চলচ্চিত্রের কাজ
লকডাউন এবং করোনার জেরে থমকে ঋতুপর্ণার ওপার বাংলার দু’দুটি চলচ্চিত্রের কাজ

বংনিউজ২৪x৭ বিনোদন ডেস্কঃ দেশের অভ্যন্তরে, বিশেষ করে বাংলায় ফের নির্দিষ্ট কিছু নির্দেশ এবং নিয়ম মেনে শ্যুটিং- এর কাজ শুরু হয়েছে। বাংলায় শুরু হয়েছে টেলিভিশন ধারাবাহিকের পাশাপাশি চলচ্চিত্রের শ্যুটিংও। কিন্তু রাজ্য বা দেশের বাইরে গিয়ে শ্যুটিং-এর অনুমতি না থাকায় এবং বেশি সংখ্যক লোক নিয়ে কাজ করার অনুমতি না থাকায়, অনেক চলচ্চিত্রের কাজ এখনও থমকে আছে।

কারণ, সবক্ষেত্রে স্টুডিও বা রাজ্যের মধ্যের বিভিন্ন জায়গায় শ্যুটিং সম্ভব নয়। এই যেমন বাংলার প্রথমসারির অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত’র দু’দুটি চলচ্চিত্রের কাজ বন্ধ রয়েছে, করোনা পরিস্থিতি এবং লকডাউনের জেরে। এই দুটি চলচ্চিত্রই জানা গেছে ওপার বাংলার।

সম্প্রতি এক সংবাদমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাতকারে অভিনেত্রী জানিয়েছেন যে, উক্ত চলচ্চিত্র দুটির নাম ‘গাঙচিল’ এবং ‘জাম’। ‘গাঙচিল’-এ ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত’র বিপরীতে রয়েছেন বাংলাদেশের অভিনেতা ফিরদৌস এবং এই চলচ্চিত্রটি বাংলাদেশের পরিবহন মন্ত্রী ওয়াবদুল কাদেরের উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত হবে। এই চলচ্চিত্রে ঋতুপর্ণা অভিনীত চরিত্রের নাম ‘বিজলি’। যদিও এর বেশি অভিনেত্রী চলচ্চিত্র সম্পর্কে প্রকাশ্যে আনেননি।

অন্যটির বিষয়ে অভিনেত্রী জানিয়েছেন যে, ‘জাম’-এ তিনি মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করছেন। এই চলচ্চিত্রে তাঁর বিপরীতে রয়েছেন আরিফিন শুভ। যিনি আবার রঞ্জন ঘোষ পরিচালিত ‘আহা রে’-তে একজন বাংলাদেশি সেফের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন, ঋতুপর্ণার বিপরীতে।

অভিনেত্রী জানিয়েছেন যে, করোনা পরিস্থিতির কারণে এই দুটি চলচ্চিত্রের কাজই আটকে রয়েছে। অন্যদিকে অভিনেত্রী নিজের শেষ ছবি ‘পার্সেল’ সম্পর্কে বলতে গিয়ে জানিয়েছেন যে, ‘পার্সেল’ প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছিল, তবে প্রেক্ষাগৃহ লকডাউনের জেরে বন্ধ থাকার কারণে, তা প্রদর্শিত হয়নি। পরিস্থিতি ঠিক হলে ফের এই চলচ্চিত্রের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি ঘটবে।

উপরিউক্ত দুটি বাংলাদেশি চলচ্চিত্র ছাড়াও অভিনেত্রী ঋতুপর্ণার হাতে রয়েছে আরও কিছু চলচ্চিত্রের কাজ। এগুলির মধ্যে রয়েছে অরিন্দম শীলের পরিচালনায় ‘মায়া কুমারী’, মুরারি এম রক্ষিতের ‘ছুট’ ইত্যাদি। এগুলির কাজও আটকে রয়েছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.