সকলে ব্যস্ত ভোট নিয়ে! এভারেস্ট জয়ের স্বপ্ন নিয়ে নিঃশব্দে রওনা দিলেন রাণাঘাটের এই কন্যে!

সকলে ব্যস্ত ভোট নিয়ে! এভারেস্ট জয়ের স্বপ্ন নিয়ে নিঃশব্দে রওনা দিলেন রাণাঘাটের এই কন্যে! / নিজস্ব চিত্র
সকলে ব্যস্ত ভোট নিয়ে! এভারেস্ট জয়ের স্বপ্ন নিয়ে নিঃশব্দে রওনা দিলেন রাণাঘাটের এই কন্যে! / নিজস্ব চিত্র

রাজ্যে চলছে একুশের বিধানসভা নির্বাচন। ক্ষমতা দখলের লড়াইয়ে এখন মশগুল গেরুয়া, লাল বা সবুজ, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের কর্মী সমর্থকরা। এসবের মাঝেই রাণাঘাটের এই কন্যে কিন্তু অন্য স্বপ্ন বিভোর। তাঁর স্বপ্ন এভারেস্ট শৃঙ্গ জয়। তাই ভোটের মধ্যেই এভারেস্ট জয় করতে ছুটলেন রানাঘাটের কন্যে রুম্পা দাস। সেই উদ্দেশ্যেই গতকাল রানাঘাট থেকে শিয়ালদহ অভিমুখে পাড়ি দিলেন রুম্পা।

পর্বতারোহী বসন্ত সিংহ রায়ের ছাত্রী রুম্পা এর আগে বেশ কয়েকটি এক্সপিডিশনেই অংশ নিয়েছিলেন। তিন-তিনটে সামিটও শেষ করেছেন। এবার তাঁর লক্ষ্য এভারেস্ট শৃঙ্গ অভিযান। আর তা জয় করে ফিরতেই যাবতীয় তোড়জোড় শুরু করেছেন রূম্পা। তাঁর শিক্ষক বসন্ত সিংহ রায় নিজেও এক এভারেস্ট জয়ী। তাঁর অনুপ্রেরণাতেই দুচোখে অসীম এক স্বপ্ন নিয়ে এভারেস্ট জয়ে পাড়ি দিতে যান এই বাঙালি কন্যে।

শিয়ালদহ পৌঁছে সেখান থেকে দার্জিলিং মেল ধরে নিউ জলপাইগুড়ি। তারপরে ফ্লাইটে কাঠমান্ডু। আপাতত এই রুম্পার যাত্রাপথ। কাঠমান্ডু থেকে তিনি এরপর যাবেন লুখলাতে। সেখান থেকেই আগামী ৯ তারিখ এভারেস্ট অভিমুখে যাত্রা শুরু হবে পর্বতারোহী কন্যের। মোটামুটি ৫৫ থেকে ৬০ দিন লাগবে এভারেস্ট শৃঙ্গে পৌঁছতে।

যদিও সেসব নিয়ে এখন বেশি কিছুই ভাবছেন না রুম্পা। তাঁর মনে এখন আগামীর উত্তেজনা। গতকাল রাণাঘাট স্টেশনে রুম্পাকে ট্রেনে তুলে দিতে হাজির হয়েছিলেন শুভানুধ্যায়ীরা। সঙ্গে তাঁকে শুভেচ্ছাবার্তাও জানাতে ভোলেননি রানাঘাটবাসীরা। তাঁদের পাশাপাশি সারা রাজ্যবাসীরও আশার আলো এখন রূম্পা। সকলেই চান এভারেস্ট জয় করেই সমতলে ফিরুক কন্যে। সবার সেই আশীর্বাদ মাথায় নিয়েই অভিযানে চলেছেন রূম্পা। সফল যে তাঁকে হতেই হবে!

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.