এবার জরুরি ভিত্তিতে ভারতে ছাড়পত্র পেল রুশ করোনা টিকা স্পুটনিক ভি! কবে আসছে ভারতে?

এবার জরুরি ভিত্তিতে ভারতে ছাড়পত্র পেল রুশ করোনা টিকা স্পুটনিক ভি! কবে আসছে ভারতে?
এবার জরুরি ভিত্তিতে ভারতে ছাড়পত্র পেল রুশ করোনা টিকা স্পুটনিক ভি! কবে আসছে ভারতে?

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ এবার জরুরি ভিত্তিতে ভারতের বাজারে ব্যবহারের জন্য ছাড়পত্র পেল রুশ করোনা টিকা স্পুটনিক ভি। মঙ্গলবার দেশের ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া (DCGI) এই ছাড়পত্র দিয়েছে। ডিসিজিআই-এর পক্ষ থেকে এও জানানো হয়েছে যে, এই মাস থেকেই অল্প পরিমাণ কিছু ডোজ বাজারে চলে আসবে।

রাশিয়ার সংস্থা ‘রাশিয়ান ডাইরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড’ (আরডিআইএফ)-এর তরফে দাবি করা হয়েছে যে, ৫ টি ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থা বছরে প্রায় ৮৫ কোটি ডোজ করবে। বলা হয়েছে, ভারতে গ্ল্যান্ড ফার্মা, হেটেরো বায়োফার্মা, পানাসিয়া বায়োটেক, স্টেলিস বায়োফার্মা, ভার্চো বায়োটেক এই পাঁচ সংস্থা বছরে ৮৫ কোটির বেশি স্পুটনিক ভি-র ডোজ তৈরি করবে।

উল্লেখ্য, আমেরিকার মডার্না এবং ফাইজারের তৈরি টিকার পরেই বিশ্বে সব থেকে বেশি কার্যকর রুশ টিকা স্পুটনিক ভি। ভারতে স্পুটনিক ভি তৈরি করে ‘ডক্টর রেড্ডিস’। তারা জানিয়েছে এদেশে স্পুটনিক ভি মানব শরীরের করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ৯১.৬ শতাংশ কার্যকর। এবং স্পুটনিক ভি-র তৃতীয় পর্যায়ের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে। স্পুটনিক ভি-র আপৎকালীন ব্যবহারে ছাড়পত্রের জন্য ফেব্রুয়ারি মাসেই আবেদন করে ডক্টর রেড্ডিস। মঙ্গলবার সেই ছাড়পত্র পাওয়া গেল।

সম্প্রতি যেভাবে করোনা সংক্রমণ দেশে যেভাবে বাড়ছে, তাতে উদ্বিগ্ন দশের সাধারণ মানুষ থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরাও। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লক্ষ ৬১ হাজার ৭৩৬ জন। এই মুহূর্তে দেশে সক্রিয় আক্রান্তের সংখ্যার ভিত্তিতে সারা বিশ্বে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ভারত। এই মুহূর্তে দেশে অ্যাক্টিভ কোভিড রোগীর সংখ্যা ১ কোটি ৩৫ লক্ষ ২৫ হাজার ১৫৩ জন। এর সঙ্গে বাড়তি বিপদ হিসেবে দেখা দিয়েছে দেশের একাধিক জায়গায় করোনা টিকার ঘাটতি। সব মিলিয়ে যথেষ্ট ভয়াবহ পরিস্থিতি। সেই মুহূর্তে দাঁড়িয়ে ‘স্পুটনিক ভি’ প্রয়োগের ছাড়পত্র মেলায়, কিছুটা হলেও যে স্বস্তি ফিরবে বলেই মনে করা হচ্ছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই টিকা ব্যবহারে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে অনুমোদন চেয়ে গত সপ্তাহেই আর্জি জানিয়েছিল হায়দরাবাদের ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি ড. রেড্ডির ল্যাবরেটরি৷ রাশিয়ান ডিরেকট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ডের সঙ্গে পার্টনারশিপে ২০২০ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ভারতে স্পুটনিক-ভি-র ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু করে ড. রেড্ডির ল্যাবরেটরি৷

সংস্থার পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, এটি এখনও পর্যন্ত ৯১.৬ শতাংশ ক্ষেত্রে সফল হয়েছে৷ এই টিকা তুলনায় অনেক সস্তা বলেও জানা গিয়েছে৷ আর তাদের দাবি, ২ ডিগ্রি থেকে ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রাতেও এটি মজুত করা যায়৷ ফলে এই টিকার সংরক্ষণ তুলনামূলকভাবে অনেকটাই সহজ ও কম ব্যয় সাপেক্ষ।

উল্লেখ্য, টিকা উৎপাদনের ক্ষেত্রে ভারতের পরিকাঠামোগত দিক থেকে অত্যন্ত এগিয়ে। বিশ্বের সব থেকে বেশি টিকা এদেশেই তৈরি হয়। এই পরিস্থিতিতে চলতি মাসে প্রথম ডোজ বাজারে এলেও জুনের মধ্যে পুরোদমে স্পুটনিক ভি ভারতের বাজারে চলে আসবে বলে জানা গিয়েছে। স্পুটনিক ভি, ধরলে এখন তিন-তিনটি করোনা টিকা দেওয়া যাবে দেশবাসীকে। জানুয়ারিতে ভারতে উৎপাদিত সেরাম ইনস্টিটিউটের ‘কোভিশিল্ড’ এবং ভারত বায়োটেকের ‘কোভ্যাকসিন’-কে ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছিল ড্রাগ কন্ট্রোল। জানুয়ারি মাসেই সিরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি কোভিশিল্ড এবং ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন ছাড়পত্র পেয়েছে। এবার তার সঙ্গে যোগ হতে হচ্ছে রাশিয়ান টিকা স্পুটনিক ভি।