অমুসলিম বলে নতুন ভারতে কেউ নিরাপদ নয়, CAA বিরোধীতায় ইনস্টাগ্রামে পোস্ট সৌরভ কন্যার

Image source: Google

বিশেষ প্রতিবেদনঃ দেশজুড়ে চলছে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের বিরোধীতা। আর ঠিক সে মুহূর্তেই প্রকাশ্যে এল সৌরভ কন্যা সানা গঙ্গোপাধ্যায়ের একটি ইনস্টাগ্রাম পোস্ট। এই পোস্টে যদিও নিজের মন্তব্য তুলে না ধরে সানা খুশবন্ত সিংহের একটি উদ্ধৃতি তুলে ধরেছেন। বর্তমানে এই পোস্ট সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যপক সাড়া ফেলেছে।

খুশবন্ত সিংহের ‘The End End India‘ বই থেকে তোলা সেই উদ্ধৃতি তুলে ধরে সানার দাবি, বিজেপির জামানায় আমরা কেউই নিরাপদ নই। এমনকি এই পোস্টে সানা মোদি সরকারকে ফ্যাসিস্ট শক্তির সাথে তুলনা করেছেন। মুসলিমদের পর এবার যে হিন্দুরাও আক্রান্ত হতে চলেছে সে বিষয়েও আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন আষ্টাদশি এই কন্যা।

দেশের প্রায় সমস্ত জায়গাতেই নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে চলেছে বিরোধীতা-আন্দোলন। এই অবস্থায় সৌরভ কন্যা সানার এই ইনস্টাগ্রাম পোস্ট নিয়ে রীতিমোতো জল্পনা শুরু হয়েছে বিভিন্ন মহলে। যে উদ্ধৃতিটি সানা তাঁর ইন্সটাগ্রামে তুলে ধরেছেন তাতে লেখা রয়েছে, “প্রতিটা ফ্যাসিস্ট সরকারের একটা দল বাঁ গোষ্ঠির প্রয়োজন হয়। নিজেদের বেড়ে ওঠার জন্য তারা ওই দল বা গোষ্ঠি গুলিকে ব্যবহার করতে তাদের শয়তানেও পরিণত করে। দু একটা দল দিয়ে তা শুরু হলেও কখনই তা সেখানে আটকে থাকেনা। ঘৃনার ওপর নির্ভর করে যে আন্দোলন, সেই আন্দোলন নিজেকে ধরে রাখতে পারে অবিরাম একটা ভয় বাঁ দ্বন্দ্বের বাতাবরন তৈরি করে।“

তবে এখানেই শেষ না করে সৌরভ কন্যা খুশবন্ত সিংহের লেখা আরও কিছু অংশ তুলেও পোস্ট করেছেন। সেখানে লেখা, “আজ যারা নিজেদের হিন্দু মনে করে নিরাপদ বলে ভাবছেন, এবং সমস্ত সমস্যা মুসলিমদের বলে মনে করছেন, তাঁরা আসলে মূর্খের স্বর্গে বাস করছেন। তাঁদেরও বিপদ আসবে। মোটেও ভাবননা আপনি বেঁচে গিয়েছেন। কাল তাঁদের গৃনা গিয়ে পড়বে যে সমস্ত মহিলারা স্কার্ট পরেন, মদ্য পান করেন বিদেশী সিনেমা দেখেন, যারা মাংস খান, বছর বছর তীর্থে যাননা, আয়ুর্বেদিকের পরিবর্তে অ্যালোপ্যাথি ওষধ খান, দাঁতনের পরিবর্তে টুথপেস্ট ব্যবহার করেন তাঁদের ওপর। আমরা কেউ নিরাপদ নই। তাই ভারতকে বাঁচাতে হলে এগুলি আমাদের ভীষনভাবে অনুধাবন করতে হবে।“

বিজেপি তথা মোদি সরকারকে নিশানা করেই যে সানা এই পোস্ট দিয়েছেন তা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা। যেখানে সিনেমা জগতের প্রথম সারির তারকা থেকে শুরু করে ক্রিড়া জগতের কোন ব্যক্তিত্বই এই আইন নিয়ে কোনোরকম মন্তব্য করা থেকে বিরত থেকেছেন সেখানে সানা চুপ না থেকে বিজেপি সরকারকে এক হাত নিয়ে নিজের বক্তব্য জনসমক্ষে প্রকাশ করেছেন। নিজের ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে খুশবন্ত সিং হের উদ্ধৃতিটি নিজের ইনস্টাগ্রাম স্টরিতে পোস্ট করার কিছুক্ষনের মধ্যেই সেটি ডিলিটও অরে দেন সানা। তবে ততক্ষনে সেই পূস্ট ভাইরাল হয়ে যায়।

সানার এই পোস্ট কেউ কেউ প্রশংসা করলেও অনেকেই তাঁর বয়সের কথা তুলে ধরে বলেছেন, তাঁর বয়স রাজনীতি বোঝার জন্য যথেষ্ট নয়। তবে তার উত্তরে ভোট দেওয়ার বয়স যে ১৮ তা মনে করিয়ে দিয়েছেন অনেকেই। সানা যে ১৮ বছর অতিক্রম করে গিয়েছে তাও উল্লেখ করেছেন অনেকেই।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.