এই কাজটি করলেই আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে হাপিশ হতে পারে সব টাকা! সতর্কবাণী SBI-এর!

এই কাজটি করলেই আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে হাপিশ হতে পারে সব টাকা! সতর্কবাণী SBI-এর! / প্রতীকী ছবি
এই কাজটি করলেই আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে হাপিশ হতে পারে সব টাকা! সতর্কবাণী SBI-এর! / প্রতীকী ছবি

ব্যাঙ্কের নামে সাইবার জালিয়াতির নানা অভিযোগ উঠছে চারপাশে। যা নিয়ে রীতিমতো চিন্তায় পড়ছেন সাধারণ মানুষ। অনলাইন মাধ্যমে বিভিন্ন সময়ই ব্যাঙ্কের গ্রাহকেরা প্রতারণার শিকার হন৷ সেই সব ফাঁদে পা দিলেই অ্যাকাউন্ট থেকে গায়েব হয়ে যেতে পারে টাকা৷ তাই এবার নিজের গ্রাহকদের পাশে দাঁড়াতে এগিয়ে এল স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া (SBI)। অনলাইন প্রতারণার বিরুদ্ধে গ্রাহকদের দিল কড়া সতর্ক বার্তা। টুইটারে এই মর্মে একটি পোস্টও করে তারা।

সম্প্রতি ব্যাঙ্কের তরফে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে জানানো হয়েছে, অনলাইনে ফিক্সড ডিপোজিট করে দেওয়ার নাম করে সাইবার অপরাধীরা ফাঁদ পাতছে। এসব ক্ষেত্রে সাধারণত অনলাইনে গ্রাহকদের ফিক্সড ডিপোজিট করে দেওয়ার কথা বলা হচ্ছে। সেজন্য গ্রাহকের কাছ থেকে বেশ কিছু তথ্যও চাওয়া হচ্ছে। সেই ফাঁদে পা দিয়ে গ্রাহকরা সমস্ত ব্যক্তিগত তথ্য দিয়ে দিলেই ঘটবে চরম বিপদ! অ্যাকাউন্ট থেকে খোয়া যেতে পারে মোটা অঙ্কের টাকা।

কিন্তু আদতে ব্যাঙ্ক কখনই এ সব তথ্য জানতে চায় না। SBI-এর তরফে আবেদন জানানো হয়েছে, ‘আমরা কখনই আপনাদের কাছ থেকে ব্যক্তিগত কোনও তথ্য চাইব না। সতর্ক থাকুন, সুরক্ষিত থাকুন।’ এমনকি শুধু ফোন নয়, ইমেইল বা এসএমএসের মাধ্যমেও এসব তথ্য চাওয়া হবে না বলে ব্যাঙ্কের তরফে দাবী। তাই গ্রাহকদের নিজস্ব পাসওয়ার্ড, ওটিপি, সিভিভি, কার্ড নম্বর ইত্যাদি না দেওয়ারও অনুরোধ জানিয়েছে SBI। পাশাপাশি সতর্কবাণীতে এও স্পষ্ট করে লেখা, ‘প্রতারকদের স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার কর্মী বলে ভুল করবেন না।’

প্রসঙ্গত, সাম্প্রতিক সময়ে ব্যাঙ্কের নাম করে প্রতারণার ঘটনা নতুন কিছু নয়। বিভিন্ন সময় ব্যাঙ্কের গ্রাহকদের নানা রকম ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করে প্রতারকরা। বিশেষ করে গ্রাহকদের ফিক্সড ডিপোজিট অ্যাকাউন্টকে টার্গেট করছে তারা। সে ক্ষেত্রে গ্রাহকদের অ্যাকাউন্ট সংক্রান্ত তথ্য জোগাড় করে সেই অ্যাকাউন্টের টাকা ট্রান্সফার করে নেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে। গ্রাহকদের থেকে OTP জেনে নিয়ে তার মাধ্যমেই সহজে টাকা ট্রান্সফার করছে অপরাধীরা। তাই এবার SBI-এর তরফে নিজস্ব ব্যক্তিগত তথ্য বা OTP যে কোনও কাউকে দেওয়া থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ করা হচ্ছে ব্যাঙ্কের গ্রাহকদের।