মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজনীতির এক গুরুত্বপূর্ণ নাম, সাদা-কালোর সমাহারে এহেন ব্যক্তিত্বের কিছু দুর্লভ মুহূর্তের ছবি

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজনীতির এক গুরুত্বপূর্ণ নাম, সাদা-কালোর সমাহারে এহেন ব্যক্তিত্বের কিছু দুর্লভ মুহূর্তের ছবি
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজনীতির এক গুরুত্বপূর্ণ নাম, সাদা-কালোর সমাহারে এহেন ব্যক্তিত্বের কিছু দুর্লভ মুহূর্তের ছবি

তৃতীয়বারের জন্য পশ্চিমবঙ্গের সিংহাসনে বসল তৃণমূল সরকার। রাজ্যের পথে উড়ল সবুজ আবির। বাংলার মাটিতে ফের শুরু হল বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তৃণমূল কংগ্রেসের রাজত্ব। চলতি নির্বাচনে বাংলার ২৯৪টি আসনের মধ্যে ২১৩টিতে এগিয়ে রয়েছে তৃণমূল। বিজেপি রয়েছে ১০০ আসনের নীচে। তাই মুখ্যমন্ত্রীর আসনে ফের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বসা যেন সময়েরই অপেক্ষা!

প্রসঙ্গত, ১৯৭০-এর দশকে কংগ্রেসের হাত ধরে রাজনৈতিক জগতে প্রবেশ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। ১৯৮৪ সালে যাদবপুর সংসদীয় আসন থেকে তিনি প্রথম লোকসভা নির্বাচনে জয়লাভ করলে, ভারতের অন্যতম কনিষ্ঠ সংসদ সদস্য হন তিনি। এরপর কংগ্রেস ছেড়ে ১৯৯৮ সালে নিজের দল তৃনমূল কংগ্রেস প্রতিষ্ঠা করেন মমতা।

২০১১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ৩৪ বছরের বামপন্থী শাসনকে হেলায় হারিয়ে রাজ্যের ক্ষমতায় আসেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নির্বাচিত হন মুখ্যমন্ত্রী পদে। হয়ে ওঠেন এ রাজ্যের প্রথম মহিলা মুখ্যমন্ত্রী। বর্তমানে রাজ্যের জনসাধারণের কাছে ‘দিদি’ নামেই তিনি পরিচিত। অচিরেই যেন তিনি হয়ে উঠেছেন সকলের সত্যিকারের অভিভাবক। চলতি বছরের নির্বাচনের ফলাফল আবারও প্রমাণ করেছে, বাংলার মানুষের ভরসা আজও ‘দিদি’তেই।

আমাদের হাতে আজ উঠে এল সেই অসাধারণ ব্যক্তিত্বেরই সাদা-কালোর সমাহারে দূর্লভ কিছু মুহূর্তের ছবি। চোখ বুলিয়ে নেওয়া যাক…

উল্লেখ্য, চলতি বছরে নন্দীগ্রাম কেন্দ্র থেকে ভোটে দাঁড়িয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রতিপক্ষ ছিলেন বিজেপি শুভেন্দু অধিকারী। ফলপ্রকাশের পর প্রথমে মমতাকে জয়ী ঘোষণা করার পর ফের দেখা যায় আদতে জয়ী হয়েছেন শুভেন্দু। যদিও এই ফলাফল একেবারেই মানতে নারাজ তৃণমূল নেতৃত্ব। ফল নিয়ে কোর্টে যাওয়ার প্রসঙ্গও তোলা হয়েছে।