৮ কোটির গাড়িতে চড়েন অথচ প্রায় ৩৫ হাজার টাকার বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ এই বিধায়কের বিরুদ্ধে!

৮ কোটির গাড়িতে চড়েন অথচ প্রায় ৩৫ হাজার টাকার বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ এই বিধায়কের বিরুদ্ধে!
৮ কোটির গাড়িতে চড়েন অথচ প্রায় ৩৫ হাজার টাকার বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ এই বিধায়কের বিরুদ্ধে!

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ শেষে কিনা জননেতার বিরুদ্ধে উঠল বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ! বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ উঠেছে এক বিধায়কের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত বিধায়ক শিবসেনা দলের বুলধানা বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক তিনি। তাঁর বিরুদ্ধে এই বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ এনেছে মহারাষ্ট্র স্টেট ইলেক্ট্রিসিটি ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি। শুধু অভিযোগই নয়, বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগে ইতিমধ্যেই তাঁর বিরুদ্ধে মামলাও দায়ের হয়েছে। একজন বিধায়ক হয়ে, এভাবে বিদ্যুৎ চুরির ঘটনায় জড়িয়ে পড়ায় হতবাক বহু মানুষ।

অভিযুক্ত শিবসেনা বিধায়কের নাম সঞ্জয় গাইকোয়াড়। তিনি প্রায় ৩৫ হাজার টাকার বিদ্যুৎ চুরি করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। মহারাষ্ট্র স্টেট ইলেক্ট্রিসিটি ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির কর্মকর্তারা মার্চ মাসে জানতে পারেন যে, কল্যাণ পূর্বের কোকসেওয়াদী এলাকায় গাইকোয়াড় পরিচালিত একটি নির্মাণ কেন্দ্রে বিদ্যুৎ চুরি করা হয়েছে। এরপরই কল্যাণের কোলসেওয়াদি থানায় সঞ্জয় গাইকোয়াড়ের নামে অভিযোগ করা হয়, যার ভিত্তিতে মামলা দায়ের হয়েছে। তাঁকে জরিমানার নোটিশও পাঠানো হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

এদিকে জানা গিয়েছে যে, বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ সামনে আসার পরই, মহারাষ্ট্র স্টেট ইলেক্ট্রিসিটি ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির পক্ষ থেকে অভিযুক্ত শিবসেনা বিধায়ককে মিটিয়ে দিতে বলা হয় ৩৪ হাজার ৮৪০ টাকা, সেই সঙ্গে ১৫ হাজার টাকা জরিমানাও দিতে বলা হয়। কিন্তু তিনি নোটিশ পাওয়ার পরও, তাতে সাড়া দেননি বলেই অভিযোগ। সঞ্জয় গাইকোয়াড় বিদ্যুতের বিল-সহ জরিমানার টাকা না দিলে, বাধ্য হয়েই মামলা দায়ের করে মহারাষ্ট্র স্টেট ইলেক্ট্রিসিটি ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি। গত ৩০ জুন বিধায়কের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের হয়। জানা দিয়েছে যে, অভিযোগ দায়েরের পরে চলতি মাসের ১২ তারিখ সঞ্জয় গাইকোয়াড় বিদ্যুতের বিল-সহ জরিমানার টাকা মিলিয়ে মোট ৪৯ হাজার ৮৪০ টাকা দিয়েছেন।

সবথেকে বড় আশ্চর্যের বিষয় হল এই বিধায়ক ৮ কোটি টাকা মূল্যের রোলস রয়েস কিনেছেন। অনেকেই এই ঘটনায় বলতে শুরু করেছেন যে, কয়েক কোটি টাকার গাড়ির মালিক হয়ে বিদ্যুৎ বিল জমা না দেওয়ার মানে কী! উল্লেখ্য, একজন সম্ভ্রান্ত ব্যবসায়ী হিসেবে তাঁকে কল্যাণের সকলেই এক ডাকেই চেনে। আবার সঞ্জয় গাইকোয়াড়ের বিরুদ্ধে ওঠা বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তিনি। তাঁর মতে, সবটাই ‘সাজানো ঘটনা’।