তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা নিয়ে ফিরহাদের ঘরেই ‘অশান্তি’! দলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করলেন ফিরহাদের জামাতা

তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা নিয়ে ফিরহাদের ঘরেই ‘অশান্তি’! দলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করলেন ফিরহাদের জামাতা
তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা নিয়ে ফিরহাদের ঘরেই ‘অশান্তি’! দলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করলেন ফিরহাদের জামাতা

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ আসন্ন বাংলার বিধানসভা নির্বাচনের প্রার্থী তালিকাকে কেন্দ্র করে ক্ষোভ-বিক্ষোভের শেষ নেই। একে একে অনেকেই দলের বিরুদ্ধে নিজেদের ক্ষোভ উগড়ে দিচ্ছেন। সেখানে কে নেই, হেভিওয়েট নেতা-নেত্রী, মন্ত্রী অনেকেই আছেন। অনেকেই কালকের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হওয়ার পর, দল ছাড়ার কথাও ঘোষণা করেছেন।

এই বিক্ষোভের আঁচ দেখা গেছে কলকাতার পুরপ্রশাসক ফিরহাদ হাকিমের ঘরেও। তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় নাম না থাকায়, ইতিমধ্যেই দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন ফিরহাদ জামাতা ইয়াসির হায়দর। গতকালই তিনি ফেসবুক পোস্টে নিজের ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন দলের বিরুদ্ধে। দলকে তীব্র কটাক্ষ করতেও পিছপা হননি।

তিনি তাঁর ফেসবুক পোস্টে লিখেছিলেন যে, ‘অনেক দিন আগেই একজন আমাকে বলেছিলেন, সেলিব্রিটি বা বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব না হলে আপনি টিকিট পাবেন না। আজ মনে হচ্ছে সেই উপদেশ আমার আরও গুরুত্ব দিয়ে দেখা উচিৎ ছিল। যারা দলের জন্য ৩৬৫ দিন, ২৪ ঘণ্টা কাজ করেন, তাঁদের গুরুত্ব দেয় না দল।’ এই পোস্টকে ঘিরে ইতিমধ্যেই তোলপাড় নেটপাড়া। হবে নাই বা কেন, ফিরহাদ হাকিমের জামাতা যখন দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন, তখন তোলপাড় হওয়ারই কথা। নেটি জেনরা অবশ্য এই পোস্টকে নিয়ে কটাক্ষ করতেও ছাড়েননি। অনেকের মতে, টিকিট না পেলেই ‘বজ্রকঠিন বাস্তব’টা বুঝতে পারেন নেতারা, তার আগে নয়।

 

কালকের পর আজ আবার একটি পোস্ট করেছেন ফিরহাদ জামাতা। সেখানে তিনি স্পষ্ট করে বুঝিয়ে দিয়েছেন যে, তিনি আর দলের সঙ্গে কোনও সম্পর্ক রাখছেন না। সব যোগাযোগ ছিন্ন করেছেন। তাই দলের কোনও ব্যাপারে তাকে যেন জড়িত করা না হয়। আজ এক দীর্ঘ ফেসবুক পোস্টে সকলের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে তিনি লিখেছেন যে, ‘এটি প্রত্যেককে জানাতে হবে যে আমি যে কোনও উপায়ে #AITC (অল ইন্ডিয়া তৃণমূল কংগ্রেস) এর সঙ্গে আর যুক্ত নই এবং এখন থেকে সবাইকে আমার কাছে এইআইটিসি সম্পর্কিত কোনও বিষয়ে জড়িত না হওয়ার জন্য অনুরোধ করব।

গত কয়েক বছরে আমি খুব সিন্দর অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি। যেখানে আমি দলের প্রবীণ, সহকারি বন্ধু এবং সবথেকে গুরুত্বপূর্ণভাবে পশ্চিমবঙ্গের সমস্ত জেলার তৃণমূল স্তরের দলীয় কর্মীদের কাছ থেকে অনেক কিছু অনেক কিছু শেখার সুযোগ পেলাম, আমি আমার সারা জীবন এদের সকলের প্রতি পারস্পরিক শ্রদ্ধার সম্পর্ক বজায় রাখব।

আমি আবারও উল্লেখ করছি এবং বলছি, আমার শেষ নিঃশ্বাস অবধি আমার জীবনের সঙ্গে জুড়ে থাকবেন আপনারা। আমি হৃদয় থেকে সকলকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি, যারা শুরু থেকে আমার পাশে থেকেছেন এবং তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গে আমার রাজনৈতিক জীবনে চলার পথে আমাকে সমর্থন জানিয়েছেন।

Facebook Post By Yasser Haidar

যদি কোনোরকম অসম্মানজনক এবং খারাপ আচরণ আমার থেকে হয়ে থাকে, তার জন্য আমি আন্তরিকভাবে ক্ষমাপ্রার্থী। খুব শীঘ্রই আমাকে আবার সামাজিক অনুষ্ঠান, সমাবেশ এবং ইভেন্টে বরাবরের মতো দেখতে পাবেন।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অন্যতম বিশ্বস্ত সৈনিক ফিরহাদ হাকিম। নেত্রীর অন্যতম ভরসা। ফিরহাদের জামাতা ইয়াসিরকেই তাঁরা ‘রাজনৈতিক উত্তরসূরি’ হিসেবে ধরে নিয়েছিলেন তাঁর ঘনিষ্ঠরা। অনেকেই ভেবেছিলেন এবারের নির্বাচনে তাঁকে দাঁড় করাতে প্রভাব খাটাতে পারেন ফিরহাদ হাকিম। কিন্তু তিনি তেমন কিছুই করেননি। অন্যদিকে ফিরহাদ হাকিমের ঘনিষ্ঠদের কথায় প্রভাব খাটানোর মানুষ নন ফিরহাদ হাকিম। তিনি দলের একনিষ্ঠ এবং অনুগত সৈনিক। দলের সিদ্ধান্তই তাঁর সিদ্ধান্ত। এখন এ প্রসঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠরাও মুখে কুলুপ এঁটেছেন।

যাই হোক এই মুহূর্তে ফিরহাদ হাকিমের জামাতার নয়া ফেসবুক পোস্টকে ঘিরে ফের নতুন করে তোলপাড় শুরু হয়েছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.