বিজেপির প্রার্থীপদ নিয়ে মতবিরোধের জেরেই কি সম্পর্ক ত্যাগ শোভন-বৈশাখীর?

বিজেপির প্রার্থীপদ নিয়ে মতবিরোধের জেরেই কি সম্পর্ক ত্যাগ শোভন-বৈশাখীর?
বিজেপির প্রার্থীপদ নিয়ে মতবিরোধের জেরেই কি সম্পর্ক ত্যাগ শোভন-বৈশাখীর?/ ফাইল ছবি

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে পদ্ম শিবিরে বড় ধাক্কা। এবারের বিধানসভা নির্বাচনের আগে, তৃণমূলের পর এবার বিজেপি শিবিরে প্রার্থীপদ নিয়ে মতবিরোধ। যার জেরে বিজেপির সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগ করলেন শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। এ ব্যাপারে দলীয় নেতৃত্বকে চিঠি দিয়ে তাঁদের সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন তাঁরা।

উল্লেখ্য, আজই বিজেপির তৃতীয় এবং চতুর্থ দফায় মোট ৬৩ টি আসনের প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হয়। সেই তালিকায় বেহালা পূর্ব কেন্দ্রে প্রার্থী করা হয়েছে অভিনেত্রী পায়েল সরকারকে। কিন্তু এই আসনে প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছে প্রকাশ করেছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু বিজেপির কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিটির যুক্তি ছিল, যেহেতু এই কেন্দ্রে তৃণমূলের হয়ে প্রার্থী করা হয়েছে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়কে। তাই এই কেন্দ্রে তাঁকে প্রার্থী করা হয়নি।

এই সিদ্ধান্ত পছন্দ না হওয়ায়, বিজেপির সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্ন করলেন বিজেপির কলকাতা জোনের পর্যবেক্ষক শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং সহ-আহ্বায়ক বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে তাঁদের এই দল ছাড়ার কথা চিঠি লিখে জানিয়েছেন। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের কাছে এই চিঠি পৌঁছেছে বলে সূত্রের খবর। তাছাড়া ফেসবুকে এই প্রসঙ্গে একটি পোস্ট করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়।

সূত্রের এও খবর যে, শোভন চট্টোপাধ্যায়ের পাশাপাশি কলকাতার কোনও একটি কেন্দ্র থেকে প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছে প্রকাশ করেছিলেন বৈশাখী নিজেও। ইচ্ছে ছিল টালিগঞ্জে দাঁড়ানোর। কিন্তু বেহালা পূর্ব ও টালিগঞ্জ এই দুই কেন্দ্রে শোভন চট্টোপাধ্যায় এবং বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের বদলে প্রার্থী করা হয়েছে যথাক্রমে বাবুল সুপ্রিয় এবং পায়েল সরকারকে। সূত্রের খবর, বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম প্রার্থী হিসেবে বিবেচনাই করা হয়নি। যদিও বেহালা পশ্চিমের প্রার্থী হওয়ার জন্য শোভন চট্টোপাধ্যায়কে প্রস্তাব দেওয়া হলেও, তিনি নাকি তা নাকচ করেন।

সব মিলিয়ে, দলের সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ শোভন, বৈশাখী উভয়েই। তাই এই দলত্যাগের সিদ্ধান্ত। দলত্যাগের সিদ্ধান্ত দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে জানানোর পরে, ফেসবুকে বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় যে পোস্ট করেন, তাতে তিনি বলেন যে,‘এই অপমান আমাদের দমিয়ে রাখতে পারবে না৷ আমরা ফিরে আসব এবং জিতব৷ বেহালা পূর্বের মানুষ আপনাকে ভালবাসে এবং সেটাই আপনার সবথেকে বড় শক্তি৷’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, প্রথমে তৃণমূলের সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগ। এরপর বিজেপিতে যোগ দিয়েও একের পর এক সমস্যা চলছিল দলের সঙ্গে। ভোটের আগে বিজেপির সঙ্গে ফের সন্ধি হলেও, এবার প্রার্থীপদ নিয়ে জটিলতা এবং দলের সঙ্গে শেষমেশ সম্পর্ক ত্যাগ। তবে, এই প্রসঙ্গে শোভন চট্টোপাধ্যায়ের স্ত্রী এবং তৃণমূলের বেহালা পূর্বের প্রার্থী রত্না চট্টোপাধ্যায়ের মত, বিজেপির সঙ্গে শোভন-বৈশাখীর টানাপড়েন নতুন কোনও ঘটনা নয়, এটাও একটা নাটক। পাশাপাশি, তিনি বৈশাখীর ফেসবুক পোস্টের ব্যাপারে বলেন যে, ‘ওনাকে যদি বেহালা পূর্বের মানুষ এত ভালবাসেন তাহলে আসুন না, আমাদের হারিয়ে এই আসনটা জিতে নিয়ে যান৷’

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.