শনিবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২২

আমি ৩ সন্তানের বাবা, সিঁদুর নিয়ে ছেলেখেলা করিনি! ফেসবুক লাইভে এসে বিস্ফোরক শোভন

০৫:৪৬ পিএম, ডিসেম্বর ১, ২০২১

আমি ৩ সন্তানের বাবা, সিঁদুর নিয়ে ছেলেখেলা করিনি! ফেসবুক লাইভে এসে বিস্ফোরক শোভন

নিজেদের সম্পর্ক নিয়ে বরাবরই খোলামেলা শোভন চট্টোপাধ্যায় ও বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রায়ই দু’জনকে একসঙ্গে দেখা যায় সোশ্যাল মিডিয়ার পর্দায়। সম্পর্ক নিয়েও রাখঢাক না করেই সরাসরি কথা বলতে শোনা যায় শোভন-বৈশাখীকে৷ এ বছর বিজয়া দশমীর দিন বৈশাখীর সিঁথিতে সিঁদুর পরিয়েছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। তা নিয়ে বিতর্কও অবশ্যও কম হয়নি। উঠেছিল সমালোচনার ঝড়ও। এবার ফেসবুক লাইভে এসে প্রসঙ্গেই মুখ খুললেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। জানালেন, দশমীর সিঁদুরখেলার ঘটনা ছেলেখেলা ছিল না।

বুধবার, বৈশাখীর ফেসবুক প্রোফাইল থেকে লাইভে এসেছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। যদিও ওই প্রোফাইলের নাম এখন বৈশাখী শোভন বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানেই সিঁদুরখেলার বিষয়টি তুলে কলকাতার প্রাক্তন মেয়র জানান, "দশমীর দিন সিঁদুর খেলার বিষয়টি সবাই দেখেছেন। আপনারা সেটাকে ছেলেখেলা ভাবতে পারেন। কিন্তু তার বাস্তবতার প্রমাণিত সত্য তুলে ধরার বিষয়ে আমি শপথ নিয়েছি।" একইসঙ্গে নিজেকে তিন সন্তানের পিতা হিসেবে তুলে ধরে তিনি আরও বলেন, "আমি শোভন চট্টোপাধ্যায় শপথ নিয়ে বলছি, দুই সন্তান নয়, আমার তিন সন্তান বর্তমান। সপ্তর্ষি চট্টোপাধ্যায়, সুহানি চট্টোপাধ্যায় এবং রিলিনা বন্দ্যোপাধ্যায়।"

পাশাপাশি এদিম নিজের স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়কেও কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন শোভন। কলকাতা পুরভোটে ১৩১ নম্বর ওয়ার্ড থেকে তৃণমূলের টিকিটে প্রার্থী হয়েছেন বেহালা পূর্বের বিধায়ক শোভন-পত্নী রত্না। সেই প্রসঙ্গেই শোভনের দাবি, নির্বাচনের জেতার জন্য রত্না তাঁর নামে কুৎসা করছেন। স্ত্রীর সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদের মামলা চলার কথাও উল্লেখ করে তিনি হুঁশিয়ারি দেন, আগামী দিনে ফেসবুক লাইভেই রত্নার চক্রান্ত এবং নিম্নরুচির বিষয়টি সামনে আনবেন।

উল্লেখ্য, কলকাতা পুরভোটে তৃণমূলের প্রার্থীতালিকা প্রকাশের পর থেকেই শোভন-রত্নার দ্বন্দ্বের বিষয়টি নয়া মাত্রা নিয়েছে। রত্নাকে প্রার্থী ঘোষিত হওয়ার পরই বেহালার পর্ণশ্রীর বাড়ি ছাড়ার জন্য তাঁকে নোটিস পাঠান বৈশাখী। ২০১৭ সালে বেহালার ওই বাড়ি ছেড়ে গোলপার্কের এক বহুতলে বৈশাখীর সঙ্গে বসবাস শুরু করেন শোভন। এসবের মধ্যেই জানা গিয়েছে, আর্থিক সমস্যায় পড়ে বেহালার বাড়িটি বৈশাখীকেই এক কোটি টাকায় বিক্রি করে দিয়েছেন শোভন। ফলে বর্তমানে ওই বাড়িটির মালিক বৈশাখীই। কিন্তু সেখানে এখন থাকেন রত্না। তাই তাঁকে ইতিমধ্যেই বাড়ি খালি করার জন্য আইনি চিঠি পাঠিয়েছেন বৈশাখী। যদিও পুরভোটের প্রচার চলাকালীন বৈশাখীর নোটিসকে বিশেষ পাত্তা দিচ্ছেন না শোভন-পত্নী।