পার্সোনাল রিস্ক বন্ডে সই করে ছুটি! অবশেষে শোভন ফিরলেন গোলপার্কের বাড়িতেই

পার্সোনাল রিস্ক বন্ডে সই করে ছুটি! অবশেষে শোভন ফিরলেন গোলপার্কের বাড়িতেই
পার্সোনাল রিস্ক বন্ডে সই করে ছুটি! অবশেষে শোভন ফিরলেন গোলপার্কের বাড়িতেই

সারাদিন টানাপোড়েনের পর অবশেষে এসএসকেএম হাসপাতাল থেকে পার্সোনাল রিস্ক বন্ডে সই করে ছুটি পেলেন প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়। শনিবার সন্ধ্যায় এসএসকেএম হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে তুলে দেয় প্রেসিডেন্সি জেল কর্তৃপক্ষের হাতে। সেখান থেকেই রাতে গোলপার্কের বাড়িতে ফেরেন তিনি।

শনিবার সকাল থেকেই এসএসকেএম হাসপাতালে উডবার্ন ওয়ার্ড চত্বর ছিল উত্তপ্ত। শোভন বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় এসে অভিযোগ করে জানান, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জোর করে আটকে রেখেছে শোভন বাবুকে। এমনকি বৈশাখী দেবী অভিযোগ করে আরও জানান, হাসপাতালের অবস্থা জেলের থেকেও খারাপ। এখানে পর্যাপ্ত চিকিৎসা হচ্ছে না শোভন চট্টোপাধ্যায়ের। তার সুগার-প্রেসার মাপা হচ্ছে না নিয়মিত। পাশাপাশি শোভন বাবু যে খাওয়া বন্ধ করে দিয়েছেন তা নিয়েও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কোনো মাথাব্যথা নেই বলে অভিযোগ করেছেন বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়।

অন্যদিকে এদিন হাসপাতালে জানলা থেকে একই অভিযোগ করেন শোভন চট্টোপাধ্যায়ও। প্রাক্তন মেয়রের কথায়, তার যে সমস্ত শারীরিক সমস্যা ছিল তা কেটে গিয়েছে। নতুন করে তার কোন সমস্যা নেই। তবুও তাকে জোর করে হাসপাতালে আটকে রাখা হয়েছে। তিনি বলেন, প্রয়োজন হলে জেলে গিয়ে থাকতেও রাজি তবে একদন্ডও আর হাসপাতালে থাকতে চান না।

ব্যক্তিগত ‘রিস্ক বন্ড’ দিয়ে তাঁকে বাড়ি ফেরানোর আবেদন করেছিলেন শোভন চট্টোপাধ্যায়। নিজের আইনজীবীর মারফত একইদিনে হাসপাতাল এবং জেল কর্তৃপক্ষের কাছে মোট পাঁচটি চিঠি পাঠিয়েছেন। তাঁর বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন বাড়িতে নিয়ে গিয়ে শোভনের ঠিকঠাক চিকিৎসা করাবেন তিনি। এই প্রেক্ষিতে শনিবার সন্ধেবেলা এসএসকেএম কর্তৃপক্ষ শোভনকে প্রেসিডেন্সি জেল কর্তৃপক্ষের হাতে সঁপে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। এরপর জেলে গিয়ে বেশকিছু কাগজে সই সাবুত করে বাড়ির উদ্দেশ্যে রওনা দেন শোভন বাবু।

এদিকে কোন বাড়িতে শোভন চট্টোপাধ্যায় ফিরবেন তা নিয়েও জল ঘোলা শুরু হয়। এদিন বৈশাখী দেবী অভিযোগ করে এই প্রসঙ্গে জানান, “উপর মহলের চাপ আছে শোভন চট্টোপাধ্যায় কে পর্ণশ্রীর বাড়িতে ফেরানোর জন্য। কিন্তু যে বাড়ি তিনি চার বছর আগে ছেড়েছেন সেই বাড়িতে তিনি কেন যাবেন”। পাশাপাশি বৈশাখী দেবীর যুক্তি, সিবিআই যেহেতু গোলপার্কের বাড়ি থেকে শোভন চট্টোপাধ্যায় কে গ্রেপ্তার করেছেন তাই সেখানেই শোভন চট্টোপাধ্যায় কে যেতে দেওয়া উচিত। তবে সব শেষে দীর্ঘ টানাপোড়েনের পর সমস্ত জল্পনা কাটিয়ে গোলপার্কের বাড়িতেই উঠছেন প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়। আদালতের নির্দেশ মত তাঁকে থাকতে হবে গৃহবন্দী।