বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই, ২০২২

দ্রাবিড়ই ‍‍`ইন্সপিরেশন‍‍`! কোচকে অনুসরণ করেই বড় রানে ফিরতে মরিয়া পূজারা

মৌসুমী মোদক

প্রকাশিত: জুন ২৩, ২০২২, ১১:৩৯ এএম | আপডেট: জুন ২৩, ২০২২, ১১:৪৯ এএম

দ্রাবিড়ই ‍‍`ইন্সপিরেশন‍‍`! কোচকে অনুসরণ করেই বড় রানে ফিরতে মরিয়া পূজারা
দ্রাবিড়ই ‍‍`ইন্সপিরেশন‍‍`! কোচকে অনুসরণ করেই বড় রানে ফিরতে মরিয়া পূজারা

ভারতীয় দলের হেড কোচ রাহুল দ্রাবিড়ের (Rahul Dravid) সঙ্গে চেতেশ্বর পূজারার (Cheteshwar Pujara) সম্পর্ক আজকের নয়! ২০০৭ সালের দ্রাবিড়ের সঙ্গে প্রথম সামনাসামনি আলাপ পূজারার। এর ২০১০ সালে যখন অস্ট্রেলিয়ার (Asutralia) বিরুদ্ধে টেস্ট অভিষেক হয় পূজারার, তখন জাতীয় টেস্ট দলের (Indian Test Team) অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হিসেবে ছিলেন দ্রাবিড়। ফলে দ্রাবিড়ের সান্নিধ্যে দীর্ঘ সময় কাটানোর অভিজ্ঞতা রয়েছে পূজারার। আর তাই ‍‍`দ্য ওয়াল‍‍`কেই নিজের ‍‍`ইন্সপিরেশন‍‍` হিসেবে একবাক্যে স্বীকার করে নিলেন পূজারা৷

বর্তমানে টিম ইন্ডিয়ার হেড স্যারের ভূমিকায় নিজের দায়িত্ব পালন করছেন দ্রাবিড়। ফলে অধিনায়ক তথা সতীর্থ থেকে বর্তমানে দলের কোচ, দ্রাবিড়ের নানা রূপ দেখেছেন পূজারা। আর তাই দ্রাবিড়কেই নিজের অনুপ্রেরণা মনে করতে এতটুকু দ্বিধা নেই পূজারার। তাঁর মতে, দ্রাবিড়ের সান্নিধ্য তাঁকে আলাদা করে তৃপ্তি যোগায়। তাঁর পারফরম্যান্স করার তাগিদ বাড়য়ে দেয়। আর তাই কোচকে দেখেই দেশের জার্সি গায়ে মাঠে বড় রানে ফিরতে মরিয়া পূজারা।

এই প্রসঙ্গে বুধবার বিসিসিআই-কে (BCCI) দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে পূজারা জানান, "রাহুল ভাইয়ের উপস্থিতি আমাকে উদ্বুদ্ধ করেছে। আমার তাগিদ অনেকটা বাড়িয়ে দিয়েছে। ২০০৭ সালে প্রথমবার ওঁর সান্নিধ্যে এসেছিলাম। সেই সময় উনি জাতীয় দলের অধিনায়ক ছিলেন। একটা ম্যাচ খেলতে ভারতীয় দল রাজকোটে এসেছিল। তখনই ওঁর সঙ্গে প্রথম আলাপ হয়। সেই ঘটনার পর থেকেই ওঁর সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখা শুরু।"

পূজারা আরও বলেন, "আমি ভারতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার সময় থেকেই রাহুল ভাইকে পেয়েছিলাম। এমনকি রাহুল ভাই অবসর নেওয়ার পরেও ওঁর কোচিংয়ে ভারতীয় ‍‍`এ‍‍` দলে খেলেছি। এখন আবার ওঁকে সিনিয়র দলের হেড কোচ হিসেবে পাচ্ছি। রাহুল ভাই একই রকম রয়েছেন। আমাদের সব সময় আমাদের সাহায্য করতে প্রস্তুত। ওঁর উপস্থিতিতে সাজঘরের পরিবেশ আরও মনোরম ও স্বস্তির হয়ে উঠেছে।"

প্রসঙ্গত, গত দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে অত্যন্ত খারাপ পারফরম্যান্সের পর জাতীয় দল থেকে বাদ পড়েছিলেন পূজারা। কিন্তু তিনি ভেঙে পড়েননি বা হাল ছাড়েননি। বরং ফর্মে ফেরার জন্য গায়ে তুলে নিয়েছিলেন সাসেক্সের (Sussex) জার্সি। আর সেই সাসেক্সের হয়েই ৫ ম্যাচে ৪ শতরান করে ফেলেন তিনি। পাঁচ ম্যাচের আট ইনিংসে তাঁর সংগ্রহ রয়েছে ৭২০ রান। গড় ১২০। সর্বোচ্চ রান ডার্বিশায়ারের (Derbyshire) বিরুদ্ধে। সেই ম্যাচে অপরাজিত ২০৩ রান করেছিলেন পূজারা।

এবার তাই ১ জুলাই থেকে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে এজবাস্টন টেস্টে খেলতে নামার আগে যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী চেতেশ্বর পূজারা। বর্তমানে দলের সঙ্গে চুটিয়ে অনুশীলনও করছেন। এই টেস্টে নিজে বড় রান পেতে মরিয়া পূজারা। পাশাপাশি টেস্ট সিরিজ জিতে ইতিহাস গড়ার বিষয়েও যথেষ্ট আশা রাখছেন ভারতীয় টেস্ট দলের এই অন্যতম ব্যাটিং স্তম্ভ।