শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০২২

ডিভোর্স প্রায় পাকা! শোয়েব মালিকের থেকে কত টাকা খোরপোশ দাবি সানিয়া মির্জার?

মৌসুমী মোদক

প্রকাশিত: নভেম্বর ১২, ২০২২, ১০:৩০ পিএম | আপডেট: নভেম্বর ১৩, ২০২২, ০৫:৪১ এএম

ডিভোর্স প্রায় পাকা! শোয়েব মালিকের থেকে কত টাকা খোরপোশ দাবি সানিয়া মির্জার?
ডিভোর্স প্রায় পাকা! শোয়েব মালিকের থেকে কত টাকা খোরপোশ দাবি সানিয়া মির্জার?

সানিয়া মির্জা এবং শোয়েব মালিকের বিবাহ বিচ্ছেদ প্রায় পাকা। দুই ক্রীড়া তারকার ঘনিষ্ঠ মহল দাবি করছে, বিয়ে নাকি ভেঙেই গিয়েছে। তবুও এখনও সে খবর প্রকাশ্যে আনছেন না শোয়েব ও সানিয়া। যদিও বর্তমানে তাঁদের দাম্পত্য ভাঙার বিষয়টি নিয়ে ভারত এবং পাকিস্তানে জোরদার আলোচনা চলছে। জানা যাচ্ছে, সানিয়া মির্জা নাকি আলাদা থাকতেও শুরু করেছেন। 

শোয়েবের ম্যানেজমেন্ট টিমের এক সদস্য ইতিমধ্যেই দাবি করেছেন, দুই ক্রীড়া তারকার ডিভোর্সের ফাইল নাকি তৈরি হয়ে গিয়েছে। পাক সংবাদমাধ্যম সূত্রের খবর, দুই পক্ষের মধ্যে এখন নাকি খোরপোষ নিয়ে আলোচনা চলছে। বিবাহবিচ্ছেদ হলে সানিয়া শোয়েবের থেকে কত টাকা খোরপোষ দাবি করবেন? ইতিমধ্যেই এই প্রশ্ন ভেসে বেড়াচ্ছে। ওয়াকিবহাল মহলের দাবি, সানিয়া মির্জার সঙ্গে ডিভোর্সের ক্ষেত্রে খোরপোষের অঙ্কটা অনেকটাই বাড়বে।

এমনিতে সানিয়ার নিজের রোজকার কম নয়। একাধিক রিপোর্ট বলছে, ২০২২ সালে দাঁড়িয়ে টেনিস তারকার মোট সম্পত্তির পরিমাণ ২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। অর্থাৎ ভারতীয় মুদ্রায় সানিয়ার মোট সম্পত্তির পরিমাণ ১৮৪ কোটি টাকা। হায়দ্রাবাদে ১৩ কোটি টাকার একটি বিলাসবহুল বাড়ি রয়েছে সানিয়া মির্জার। মুম্বইয়েও একটি লাক্সারি হোম আছে তাঁর। শোনা যাচ্ছে, দুবাইয়েও আলাদা বাড়ি কিনেছেন সানিয়। রেঞ্জ রোভার, মার্সিডিজ বেঞ্জ, অডি, BMW -এর মতো গাড়ি রয়েছে তাঁর। শুধুমাত্র ক্রীড়া জগৎ থেকে তিন কোটি টাকার কাছাকাছি আয় সানিয়ার। এছাড়াও নিজের টেনিস অ্যাকাডেমি চালান সানিয়া। একাধিক বিজ্ঞাপনও করেন তিনি। শুধুমাত্র বিজ্ঞাপন থেকেই বার্ষিক ২৫ কোটি টাকা আয় করেন তিনি। 

অন্যদিকে, চলতি বছরে শোয়েব মালিকের মোট সম্পত্তির পরিমাণ ২৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ভারতীয় মুদ্রায় তাঁর মোট সম্পত্তি ২২৮ কোটি টাকার। শোয়েবের ইনকামের মূল উৎস ক্রিকেট। বর্তমানে বিনোদন জগতেও এন্ট্রি নিয়েছেন তিনি। পাক টেলিভিশনে কাজ করার পাশাপাশি বিজ্ঞাপন থেকেও মোটা টাকা আয় করেন শোয়েব মালিক। তাই শোয়েবের কাছে সানিয়া ভালোরকম খোরপোষই দাবি করতে পারেন বলে দাবি ওয়াকিবহাল মহলের।

প্রসঙ্গত, শোয়েব মালিকের প্রথম স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকির সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদের সময় মোটা অঙ্কের খোরপোষই দেন পাক তারকা। ২০১০ সালের একাধিক রিপোর্ট অনুযায়ী, প্রথম স্ত্রী আয়েশাকে ১৫ কোটি টাকা খোরপোষ দিয়েছিলেন পাক ক্রিকেটার। শরিয়া আইন অনুযায়ী, প্রথম তিন মাস পাঁচ হাজার টাকা করে দিয়েছিলেন আয়েশাকে। শোনা যায়, প্রথম স্ত্রীকে সরাসরি ১২ কোটি টাকা দিয়েছিলেন শোয়েব। এছাড়াও তিন কোটি টাকা দেন তিনি। এর বিনিময়ে তাঁর বিরুদ্ধে দায়ের করা যাবতীয় অভিযোগ প্রত্যাহার করেন আয়েশা। এবার অগাধ সম্পত্তির মালিক শোয়েবের কাছ থেকে যে সানিয়ার আইনজীবী কত খোরপোষ চাইবেন, তা-ই দেখার।