গন্ধ গোকুলের মল থেকে তৈরি এই কফির এক কাপের দাম নাকি ‘মাত্র’ তিন হাজার টাকা!

গন্ধ গোকুলের মল থেকে তৈরি এই কফির এক কাপের দাম নাকি 'মাত্র' তিন হাজার টাকা!, Image Source: File photo
গন্ধ গোকুলের মল থেকে তৈরি এই কফির এক কাপের দাম নাকি 'মাত্র' তিন হাজার টাকা!, Image Source: File photo

এই কফির এক কাপের দামই নাকি প্রায় ৩০০০ টাকা! কী? শুনে বিশ্বাস হচ্ছে না তো? নাহ! এ কোনও ফ্যান্টাসি গল্প কথা নয়, এ ঘোরতর বাস্তব। এমনকি কলকাতা শহরের নানা কফি শপেও দেখা মেলে এ কফির। আরও অবাক হবেন যখন শুনবেন, এই কফি নাকি তৈরি হয় গন্ধগোকুলের মল থেকে। উঁহু! নাক শিঁটকালে মোটেই চলবে না! কারণ এই কফিই এখন তাড়িয়ে তাড়িয়ে উপভোগ করছেন সারা বিশ্বের কফিপ্রেমীরা।

পোশাকি নাম ইন্দোনেশিয়ান ‘কফি লুয়াক। যা বিশ্বের ইতিহাসে সবথেকে দামী কফি। আর এই কফিই তৈরি হয় ইন্দোনেশিয়ান সিভেট নামক এক স্তন্যপায়ী প্রাণীর মল বা বিষ্ঠা থেকে। সিভেট আমাদের দেশে গন্ধগোকুল বা খটাশ নামেই বেশি পরিচিত। আর তার মল থেকেই পাওয়া কফিই নাকি স্বাদে এবং গন্ধে গুনে গুনে দশ গোল দেবে অন্য যে কোনও কফিকে।

এই সিভেট জাতীয় প্রাণীগুলি কফির ফল খেতে খুব পছন্দ করে। এই ফল তাদের এতটাই প্রিয় যে, তা খাওয়ার জন্য ইন্দোনেশিয়ার বিভিন্ন কফি ক্ষেতে রাতের বেলা ঘোরাফেরা করে এরা। কিন্তু ফলগুলি খেলেও তা হজম করতে পারে না এরা। ফল খাওয়ার পর বীজ বা কফির বিনগুলি হজম না হওয়ায় সিভেটের পাকস্থলীতেই থেকে যায়। এরপর পাকস্থলীর বিভিন্ন উৎসেচকের সাহায্যে বিন গুলির ওপর একটি আস্তরণ তৈরি হয়। পরে সেই আস্তরণ ছাড়াই বীজগুলি মলের মাধ্যমে বেরিয়ে যায়৷ এরপর সেই বীজগুলিকে সংগ্রহ করে শুকিয়ে তা দিয়েই কফি বানানো হয়। গুণগত মানের দিক দিয়ে অন্যান্য কফির তুলনায় এই কফি লুয়াক ঢের বেশি ভালো। স্বাদে ও গন্ধে অতুলনীয়!

যতই মলের মাধ্যমে তৈরি হোক, এর কফির চাহিদা কিন্তু আকাশচুম্বী। দামও সাধারণ কফির থেকে অনেকটাই বেশি। দেশ-বিদেশের বহু জায়গায় রপ্তানি হয় এই কফি। এমনকি কলকাতার বুকেও বিভিন্ন ছোট-বড় কফিশপে মিলবে এ কফির সন্ধান। দাম যতই বেশি হোক, এ কফির স্বাদ যারা একবার পেয়েছেন তারাই জানেন এর মর্ম! তাই সানন্দে তা পান করেন আপামর কফিপ্রেমী। এবার আপনি কী ভাবছেন? একবার ট্রাই করে দেখবেন নাকি এই কফি? তবে তার জন্য আপনাকে খরচ করতে হবে ‘মাত্র’ হাজার তিনেক টাকা! ব্যাস! আর কি! এরপর চুমুক দিতে থাকুন বিশ্বের সবচেয়ে দামী কফির কাপে…