বিক্ষিপ্ত অশান্তিতে বামেদের বনধে গ্রেফতার বহু

বিক্ষিপ্ত অশান্তিতে বামেদের বনধে গ্রেফতার বহু
image source: file image

হরতালের অঙ্গ হিসাবে শুক্রবার কেবল কলকাতায় পুলিশ ৭৫ জনকে গ্রেফতার করেছে। অবরোধ হয়েছে কয়েকশো স্থানে। বিক্ষোভের জের দীর্ঘায়িত হয় বিকেল পর্যন্ত। বিকেলের দিকে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের চার নম্বর গেটে তালা ঝুলিয়ে মিছিল যায় যাদবপুর থানা পর্যন্ত। যার জেরে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে যাদবপুর থানা থেকে সুলেখা মোড়।

এদিন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু এ কথা জানিয়ে বিবৃতিতে লেখেন, “কলকাতা ও শহরতলি এবং জেলা শহরগুলিতে সকাল থেকে প্রতিবাদ হয়েছে। ব্যাপক পুলিশবাহিনীও নামানো হয়েছিল সরকারের পক্ষ থেকে। পুলিশ বহু জায়গায় ধর্মঘট সমর্থনকারীদের আজকেও গ্রেফতার করেছে। অনেক জায়গায় লাঠি চালিয়ে, বলপ্রয়োগ করে অবস্থান আন্দোলনকারীদের আহত করেছে”।

যাদবপুর সহ বিভিন্ন স্টেশনে রেল রোকো হয়েছে। পূর্ব বর্ধমান জেলায় রেল ও সড়কে অবস্থান হয়েছে ৩০টি জায়গায়। হুগলী জেলায় শতাধিক স্থানে অবস্থান বিক্ষোভ হয়। পান্ডুয়া রেলস্টেশনে রেল রোকো চলে ৩ ঘন্টা ধরে। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলাজুড়ে মিছিল ও প্রতিবাদ সভা হয়েছে, ধর্মঘটের ব্যাপক প্রভাব দেখা গেছে। হাওড়া জেলায় অনেক চটকল ও কারখানায় ধর্মঘটের প্রভাবে শ্রমিকদের হাজিরা কম ছিল।

পরিবহন প্রায় অচল ছিল। পাঁচলার রানীহাটিতে রাস্তায় অবস্থানকারীদের পুলিশ লাঠি চালিয়ে ১১জনকে আহত করেছে। বাঁকুড়ায় বিড়ি কারখানা, রেলওয়ে গুডস সেড, বাজার মুটিয়া শ্রমিকদের মধ্যে ধর্মঘটের ব্যাপক প্রভাব দেখা গেছে। সিমেন্ট ও অন্যান্য কারখানাতেও প্রভাব পড়েছে। ৩৩টি জায়গায় মিছিল পথসভা হয়েছে। পুরুলিয়ায় বেসরকারী বাস চলেনি, সরকারী বাস প্রায় যাত্রীবিহীন ছিল। পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় ২১টি জায়গায় পিকেটিং মিছিল পথসভা ও রাস্তায় অবস্থান বিক্ষোভ হয়েছে।

খড়্গপুর শহরে পুলিশি আক্রমণ করেছে ধর্মঘট সমর্থকদের ওপর। ছয়-সাত জন ধর্মঘট সমর্থককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। উত্তর ২৪ পরগনার মধ্যমগ্রাম চৌমাথায় অবস্থানকারীদের তুলতে পুলিশ বলপ্রয়োগ করেছে। পশ্চিম বর্ধমানের দামোদর পশ্চিম এবং দুর্গাপুর পূর্ব এলাকায় ধর্মঘট সমর্থকদের তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে বাধা দেওয়া হয়েছে। দুর্গাপুর-বাঁকুড়া রাজ্য সড়কে, ডিভিসি কারখানায় এবং এসবিএসটিসি’র ডিপোয় অবস্থান বিক্ষোভ হয়েছে।

দার্জিলিঙ জেলায় সমতলে ধর্মঘটের সমর্থনে বহু মিছিল, মোটরসাইকেল মিছিল হয়েছে। সরকারী বেসরকারী অফিসের হাজিরা কম, দোকান বাজার প্রায় বন্ধ। কোচবিহার জেলায় পাতলাখাওয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের মোট ৯জন বামপন্থী নেতা ও কর্মীকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। জলপাইগুড়িতে পুলিশ দিয়ে সরকারী বাস চালানো হয়েছে।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.