‘নম্বর বাড়াতে হবে’, প্রাপ্ত নম্বর নিয়ে অসন্তুষ্ট পড়ুয়ারা! বীরভূমে প্রধান শিক্ষককে ঘেরাও করে বিক্ষোভ

'নম্বর বাড়াতে হবে', প্রাপ্ত নম্বর নিয়ে অসন্তুষ্ট পড়ুয়ারা! বীরভূমে প্রধান শিক্ষককে ঘেরাও করে বিক্ষোভ
'নম্বর বাড়াতে হবে', প্রাপ্ত নম্বর নিয়ে অসন্তুষ্ট পড়ুয়ারা! বীরভূমে প্রধান শিক্ষককে ঘেরাও করে বিক্ষোভ

একাদশ শ্রেণীর প্রাপ্ত নম্বর নিয়ে অসন্তুষ্ট পড়ুয়ারা। নম্বর বাড়ানোর দাবিতে প্রধান শিক্ষককে ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখাল বীরভূমেরর মহঃবাজারের ডামরা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে প্রধান শিক্ষককে ঘেরাও করে রাখা হয়। রাত পর্যন্তও এই বিক্ষোভের সমাপ্তি হয়নি। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ঘটনাস্থলে পুলিশ এলেও কোনও সুরাহা হয়নি। পুলিশের সামনেই চলতে থাকে বিক্ষোভ। পড়ুয়াদের দাবী, ‘নম্বর কম দেওয়া হয়েছে। বাড়াতে হবে।’

ডামরা উচ্চ বিদ্যালয়ের স্কুলের পড়ুয়াদের অধিকাংশের বক্তব্য, মাধ্যমিকে তারা যে নম্বর পেয়েছিল সেই হিসেবে একাদশ শ্রেণীতে যে নম্বর দেওয়া হয়েছে, তাতে তারা মোটেও সন্তুষ্ট নয়। ৮০ নম্বরের মধ্যে কাউকে ৩০, কাউকে ৩৫ নম্বর দেওয়া হয়েছে। স্কুলের প্রায় ১০২ জন পড়ুয়ারই এক অবস্থা। কাউকে কাউকে আবার রেজাল্টও দেওয়া হয়নি। তাই পড়ুয়াদের মিলিত দাবী, প্রাপ্ত নম্বর বাড়ানো হোক। সেই কারণেই স্কুলের মধ্যে ঘন্টার পর ঘন্টা প্রধান শিক্ষককে আটকে রেখে বিক্ষোভে মাতে পড়ুয়ারা।

অন্যদিকে, স্কুলের প্রধান শিক্ষক তুষার মণ্ডলের বক্তব্য, কাউন্সিলের নির্দেশমতো আগেই নম্বর পাঠানো হয়ে গিয়েছে। এক্ষেত্রে আর কিছু করার উপায় নেই। এরপরও নম্বর নিয়ে কোনও অভিযোগ থাকলে নিয়ম অনুযায়ী যাচাই করতে পারে পরীক্ষার্থীরা। উল্লেখ্য, একই দাবীতে দিন দুয়েক আগেই বীরভূমেরই আরেকটি স্কুল রামপুরহাট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের পড়ুয়ারাও স্কুল কর্তৃপক্ষকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখিয়েছিল। এবারও যেন সেই একই ঘটনারই পুনরাবৃত্তি ঘটল।

'নম্বর বাড়াতে হবে', প্রাপ্ত নম্বর নিয়ে অসন্তুষ্ট পড়ুয়ারা! বীরভূমে প্রধান শিক্ষককে ঘেরাও করে বিক্ষোভ
‘নম্বর বাড়াতে হবে’, প্রাপ্ত নম্বর নিয়ে অসন্তুষ্ট পড়ুয়ারা! বীরভূমে প্রধান শিক্ষককে ঘেরাও করে বিক্ষোভ

প্রসঙ্গত,করোনা আবহে বাতিল হয়ে গিয়েছে চলতি বছরের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা। তবে জুলাইয়ের মধ্যেই ফলাফল ঘোষণা করার কথা জানানো হয়েছে। সেক্ষেত্রে উচ্চমাধ্যমিকের ফলের জন্য মাধ্যমিক ও একাদশ শ্রেণীর প্রাপ্ত নম্বরের উপরই হবে মূল্যায়ন। ইতিমধ্যেই পর্ষদ জানিয়েছে, ২০১৯ সালের মাধ্যমিক পরীক্ষার সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়া চারটি বিষয়ের ৪০% এবং ২০২০ সালের একাদশ শ্রেণির পরীক্ষার মোট নম্বরের ৬০ শতাংশের ভিত্তিতেই হবে উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার মূল্যায়ন। তবে কোনও কোনও বিদ্যালয়ে একাদশ শ্রেণীর প্রাপ্ত নম্বর তুলনামূলক কম দেওয়া হয়েছে। সেই কারণে বিক্ষোভের পথ ধরেছেন পরীক্ষার্থীরা।