করোনা অতিমারি পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর করা ভার্চুয়াল বৈঠক নিয়ে রাজনীতি করছেন মুখ্যমন্ত্রী! অভিযোগ শুভেন্দুর

করোনা অতিমারি পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর করা ভার্চুয়াল বৈঠক নিয়ে রাজনীতি করছেন মুখ্যমন্ত্রী! অভিযোগ শুভেন্দুর
করোনা অতিমারি পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর করা ভার্চুয়াল বৈঠক নিয়ে রাজনীতি করছেন মুখ্যমন্ত্রী! অভিযোগ শুভেন্দুর

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ আজ দেশের কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে ১০ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এই ভার্চুয়াল বৈঠকে হাজির ছিলেন বেশকিছু রাজ্যের জেলাশাসকেরাও। ভার্চুয়ালি বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক শেষে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একটি সাংবাদিক বৈঠক করেন। সেখানেই তিনি কেন্দ্রের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

বৈঠক শেষে এদিন মুখ্যমন্ত্রী বৈঠক নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন যে, ‘আমাদের কাউকে বলতে দেয়নি।’ আজকের বৈঠককে, ‘ক্যাজুয়াল। সুপারফ্লপ মিটিং’ বলে আখ্যায়িত করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এই ভার্চুয়াল বৈঠক প্রসঙ্গে নবান্ন থেকে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, ‘আমাদের সব নথি তৈরি ছিল, কিন্তু কিছুই বলতে দেওয়া হয়নি। আমরা লজ্জিত। মুখ্যমন্ত্রীরা অপমানিত বোধ করছেন।’ তাঁর আরও অভিযোগ, ‘বৈঠকে শুধুমাত্র পছন্দের জেলাশাসক এবং বিজেপি শাসিত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের কথা বলতে দেওয়া হয়েছে। বাকিদের পুতুলের মতো বসিয়ে রাখা হয়েছিল। উনি কী বলতে চাইলেন, তা বোঝা গেল না। প্রধানমন্ত্রী কেন এতো নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন? ক্যাজুয়াল, সুপারফ্লপ মিটিং’।

এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই অভিযোগ খণ্ডন করলেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী দাবি করেছেন যে, মুখ্যমন্ত্রী মিথ্যে অভিযোগ করছেন আজকের বৈঠক প্রসঙ্গে। শুভেন্দু অধিকারী জানিয়েছেন, যে ৭ জন জেলা আধিকারিকের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী কথা বলেছেন, তাঁদের মধ্যে ৫ জনই অ-বিজেপিশাসিত রাজ্যের।

এদিন মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য উল্লেখ করে, টুইট করেন শুভেন্দু অধিকারী। তিনি টুইটারে লেখেন যে, ‘৭ আধিকারিক যাঁরা আজ কথা বলেছেন, তাঁদের মধ্যে ৫ জনই অবিজেপি শাসিত রাজ্য- ছত্তীশগড়, কেরল, মহারাষ্ট্র ও অন্ধ্রপ্রদেশের। যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামো বজায় রাখতে বদ্ধপরিকর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। উনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মতো নন। যিনি সবসময় সংঘাতে বিশ্বাসী।’

এদিনের ভার্চুয়াল বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বৈঠককে ‘ক্যাজুয়াল, সুপারফ্লপ মিটিং’ বলে তোপ দাগেন৷ এরও পালটা জবাব দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী। টুইটে তিনি বলেন, ‘গত কয়েক মাসে মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে একাধিক বৈঠক করেছেন প্রধানমন্ত্রী৷ এর মধ্যে কটা বৈঠকে যোগ দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়? শূন্য৷ এখন উনি পিএম-ডিএমদের বৈঠক বলতে গেলেন এবং তাঁকে বলতে দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ করছেন৷ লজ্জা!’

করোনা অতিমারি পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর করা ভার্চুয়াল বৈঠকে রাজনীতি করছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ এই গুরুতর অভিযোগও করেছেন শুভেন্দু অধিকারী।