হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে বাড়িতে সুব্রত মুখোপাধ্যায়, এসএসকেএম-বাসী শুধুই মদন

হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে বাড়িতে সুব্রত মুখোপাধ্যায়, এসএসকেএম-বাসী শুধুই মদন
হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেয়ে বাড়িতে সুব্রত মুখোপাধ্যায়, এসএসকেএম-বাসী শুধুই মদন

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ নারদাকাণ্ডে কলকাতা হাইকোর্টের রাজ্যের ৪ প্রভাবশালী নেতা-মন্ত্রীর গৃহবন্দি থাকার নির্দেশের পর, গত শুক্রবারই প্রেসিডেন্সি থেকে বাড়ির ঠিকানায় ফিরেছেন ফিরহাদ হাকিম। এরপর রিস্ক বন্ডে সই করে, এসএসকেএম হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফেরেন কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ও।

আর এবার এসএসকেএম হাসপাতাল থেকে বাড়ির ঠিকানায় ফিরলেন রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ও। এদিনই সন্ধে সাড়ে সাতটা নাগাদ হাসপাতাল থেকে ছুটি পান তিনি। কাজেই আপাতত হাসপাতালবাসী শুধুই কামারহাটির বিধায়ক মদন মিত্র। এখনও এসএসকেএমে চিকিৎসাধীন তিনি।

উল্লেখ্য, শ্বাসকষ্ট এবং আরও কিছু বার্ধক্যজনিত সমস্যায় ভুছিলেন পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। গত কয়েকদিনের মধ্যে সেগুলো অনেকটাই কাটিয়ে উঠেছেন তিনি। এই মুহূর্তে তাঁর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল হওয়ায়, তাঁর কিছু শারীরিক পরীক্ষার পর, ছুটি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় হাসপাতালের মেডিক্যাল বোর্ডের তরফ থেকে। তবে, বাড়িতে থেকেই তাঁকে স্পিচ থেরাপি চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা৷ কারণ দীর্ঘদিন ধরেই ভোকাল কর্ডের সমস্যায় ভুগছিলেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়৷

উল্লেখ্য, চলতি মাসের ১৭ তারিখ সিবিআই নারদাকাণ্ডে ফিরহাদ হাকিম, সুব্রত মুখোপাধ্যায়, মদন মিত্র এবং শোভন চট্টোপাধ্যায়কে তাঁদের বাড়ি থেকেই অ্যারেস্ট করেন। পরে তাঁদের নিজাম প্যালেসে নিয়ে গিয়ে অ্যারেস্ট মেমোতে সই করানো হয় এবং তাঁদের গ্রেফতার করা হয়। প্রথমে নিম্ন আদালত তাঁদের জামিন মঞ্জুর করলেও, পরে হাইকোর্টের নির্দেশে তাঁদের জেল হয়। প্রেসিডেন্সি জেলে প্রবেশের পরেই অসুস্থ হয়ে পড়েন, মদন মিত্র, সুব্রত মুখোপাধ্যায় এবং শোভন চট্টোপাধ্যায়। চিকিৎসার জন্য এই তিনজন হাসপাতালে ভর্তি হন। সুব্রত মুখোপাধ্যায় প্রথমে হাসপাতালে গেলেও ফিরে আসেন জেলে, পরে বেশি অসুস্থবোধ করায় ফের এসএসকেএমে যান এবং সেখানেই এক সপ্তাহ থাকার পর আজ ছুটি পেলেন।

এদিন সন্ধে সাড়ে ৭ টা নাগাদ হাসপাতাল থেকে প্রথমে প্রেসিডেন্সি জেলে যান পঞ্চায়েত মন্ত্রী, পরে সেখানে সরকারি নিয়ম-কানুন মিটিয়ে, ফের রাত সাড়ে ৮ টা নাগাদ দক্ষিণ কলকাতার বালিগঞ্জের ফ্ল্যাটে পৌঁছন তিনি৷ এই মুহূর্তে হাইকোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী, বাড়িতেই বন্দী অবস্থায় থাকবেন মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়।

এদিন রাজ্যের পঞ্চায়েতমন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের বাড়ি ফেরার খবর প্রকাশ্যে আসতেই, সুব্রতবাবুর ফ্ল্যাটের বাইরে অপেক্ষা করেছিলেন একডালিয়া এভারগ্রিনের কয়েকজন সদস্য৷ পঞ্চায়েত মন্ত্রী বাড়ি ফেয়ায় তাঁরাও যথেষ্ট খুশি৷ সুব্রতবাবুর আইনজীবী মণিশঙ্কর চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, সুব্রত মুখোপাধ্যায় আগের থেকে ভাল আছেন৷ আদালতের সব নির্দেশ মেনেই তাঁরা চলবেন৷

এদিকে, কামারহাটির বিধায়ক মদন মিত্রের শারীরিক অবস্থা আগের তুলনায় কিছুটা ভাল হলেও, এখনও কামারহাটির বিধায়কের শ্বাসকষ্টের সমস্যা পুরোপুরি যায়নি৷ ফুসফুসের সংক্রমণও রয়েছে৷ আর তাই মাঝে মাঝেই অক্সিজেনও দিতে হচ্ছে কামারহাটির বিধায়ক মদন মিত্রকে৷ ফলে আরও দু-একদিন হাসপাতালে পর্যবেক্ষণে রেখে, তারপর তাঁকে ছুটি দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা৷

এদিনই আবার সুপ্রিম কোর্টে নারদ মামলায় বড় ধাক্কা খেয়েছে সিবিআই। চার নেতার জামিনের বিরোধিতা করে নিজেদের করা আবেদন প্রত্যাহার করে নিয়েছে সিবিআই৷ ফলে মামলা ফিরে এসেছে কলকাতা হাইকোর্টের বৃহত্তর বেঞ্চেই৷ আগামিকাল, বুধবার হাইকোর্টে ফের নারদ মামলার শুনানি ছিল৷ যা ঘূর্ণিঝড় ‘যশ’- এর জন্য হচ্ছে না।