মঙ্গলবার, ১৭ মে, ২০২২

সর্দি কাশির সমস্যায় ভুগছেন! বাড়িতেই বানিয়ে ব্যাবহার করুন এই আয়ুর্বেদিক ঔষধ

১১:৫১ পিএম, অক্টোবর ২৪, ২০২১

সর্দি কাশির সমস্যায় ভুগছেন! বাড়িতেই বানিয়ে ব্যাবহার করুন এই আয়ুর্বেদিক ঔষধ
আমরা সকলেই জানি আদা, কালো মরিচ, হলুদ এইসবে উপস্থিত অনেক উপাদান আমাদের শরীরকে শক্তিশালী করতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে। এই ওষুধগুলো আমাদের শরীরে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল বা অ্যান্টিভাইরাল হিসেবেও কাজ করে। যখন আপনি এই জিনিসটি খাবেন, তখন গলা জ্বালা, নাক বন্ধ এবং শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে সমস্যা হলে তার থেকে স্বস্তি পাবেন। এই প্রাচীন রেসিপিটিতে প্রয়োজনীয় উপাদান বেসন, ঘি, দুধ, হলুদ এবং কালো মরিচ রয়েছে। হলুদ আপনার ইমিউন সিস্টেমকে শক্তিশালী করতে কাজ করে, ঘি এবং গুড় শরীরকে উষ্ণ রাখতে সাহায্য করবে। গলা ব্যথা এবং অন্যান্য উপসর্গ থেকে মুক্তি পেতে গরম গরম পান করলে খুব কার্যকরী হবে। আপনি চাইলে এর সাথে চিনি ও গুড় যোগ করতে পারেন আরও সুস্বাদু করার জন্য। বেসন ছাড়াও এতে থাকে সামান্য ঘি, হলুদ গুঁড়ো, দুধ, গোলমরিচ গুঁড়ো আর গুড়। ‘বেসন শিরা’ অনেকটা হালুয়ার মতোই খেতে হয়। কিন্তু একটু সব কিছুর মিলিত স্বাদ পাওয়া যায়। অসুস্থ ও দুর্বল শরীরকে চাঙ্গা করে তুলতে সাহায্য করে বেসন। এ ছাড়াও বেসনে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যা ঠান্ডা দূর করতে অত্যন্ত কার্যকর। অনেক সময়ে এতে হলুদ গুঁড়ো দেওয়া হয়, যা ঠান্ডা দূর করতে বিশেষ উপযোগী। ঘি এর মধ্যে বেসন ভাজার কারণে এবং এতে গুড় দেওয়ার ফলে শরীর ভেতর থেকে গরম হয়ে যায়। কিভাবে তৈরি করবেন দেখুন- প্রথমেই একটি পাত্রে ৩-৪ চামচ ঘি গরম করে নিয়ে তাতে ধীরে ধীরে ভালো করে নেড়েচেড়ে বেসন ভেজে নিন। বেসনের রং গাড় হলুদ হয়ে এলে এতে পরিমাণমতো দুধ দিয়ে আবার মেশাতে থাকুন। মিনিট পাঁচেক পর হলুদ আর গোলমরিচ গুঁড়ো দিয়ে ভালো করে নেড়েচেড়ে মেশাতে থাকুন। সবশেষে এর মধ্যে আন্দাজ মতো গুড় দিয়ে ৫-৭ মিনিট নেড়েচেড়ে আঁচ থেকে নামিয়ে নিন। স্বাদ বাড়াতে আঁচ থেকে নামিয়ে বেসন শিরার ওপর থেকে সামান্য বাদামও ছড়িয়ে দিতে পারেন। আর অবশ্যই গরম থাকতে থাকতেই খেয়ে নিন বেসন শিরা, নাহলে এর সঠিক কার্যকারিতা পাবেন না।