শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আগেও সরকারের পছন্দের তালিকায় শপিং মল, পানশালা! তৃণমূলকে কটাক্ষ সুজনের

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আগেও সরকারের পছন্দের তালিকায় শপিং মল, পানশালা! তৃণমূলকে কটাক্ষ সুজনের
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আগেও সরকারের পছন্দের তালিকায় শপিং মল, পানশালা! তৃণমূলকে কটাক্ষ সুজনের

রাজ্যে সংক্রমণ খানিকটা নিয়ন্ত্রণে আসতেই শপিং মল এবং সিনেমা হল খোলার ক্ষেত্রে ছাড় দিয়েছে প্রশাসন। এই নিয়ে রাজ্য প্রশাসনকে কটাক্ষ করেছেন প্রাক্তন বিধায়ক সুজন চক্রবর্তী। একইসঙ্গে স্কুল-কলেজ না খুলে কিভাবে শপিংমল সিনেমাহল খোলা হচ্ছে সেই প্রশ্ন তুলে আগামী মাস থেকে আন্দোলন করার হুঁশিয়ারি দিয়েছে বামপন্থী ছাত্র সংগঠন এসএফআই।

জুন মাসে লকডাউন খানিকটা শিথিল হতেই 25% কর্মী নিয়ে শপিংমল খোলা যাবে বলে জানিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিকে গতকালের জারি হওয়া এক নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে আগামীকাল 31 জুলাই থেকে 50% দর্শক নিয়ে খোলা যাবে সিনেমা হল। এর পরেই রাজ্য সরকারের এহেন ভূমিকার নিন্দা করেছে বাম সংগঠন।

সুজন চক্রবর্তী এদিন টুইট করে লেখেন, “যে সরকারের, পছন্দ তালিকায় শপিংমল, পানশালা কিংবা এমনকী সিনেমা হল চালু রাখা। তাঁদেরই পছন্দ লোকাল ট্রেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সব বন্ধ রাখা। সরকারের অগ্রাধিকার কী? সর্বনাশের কি বাকি থাকছে? আর কি চাই? তৃণমূল সরকার- মাননীয়া ?”

এদিকে করোনার কারণে গত বছর থেকে বন্ধ রয়েছে স্কুল-কলেজসহ সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এবার অবিলম্বে সেই সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার দাবি জানিয়ে আগামী মাস থেকে আন্দোলন করার হুঁশিয়ারি দিল এসএফআই। সংগঠনের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক ময়ূখ বিশ্বাস বলেন, আগামী ৮ অগাস্ট কলকাতার কলেজ স্ট্রিটে এসএফআইয়ের তরফে নাগরিক কনভেনশনের আয়োজন করা হয়েছে।

এছাড়াও, ৫ অগাস্ট রাজ্যজুড়ে মিছিল ও পথসভা করবে এফএফআই। ৬ অগাস্ট থেকে ১০অগাস্ট পর্যন্ত স্কুল-কলেজ খোলা সহ চার দফা দাবিতে রাজ্য জুড়ে সই সংগ্রহ করবে সংগঠন। ১১ অগাস্ট ক্ষুদিরামের শহীদ দিবসে রাজ্যের সমস্ত ব্লকে এবং মহকুমায় এই বিষয় নিয়ে স্মারকলিপি দেবে তাঁরা। এরপর ১২ অগাস্ট গোটা রাজ্যে অন্তত এক হাজার জায়গায় রাস্তায় বসে খাতা, কলম, বই নিয়ে খোলা জায়গায় প্রতীকী পঠন-পাঠন করবে সংগঠনের সদস্যরা।