‘জাল টিকা নিয়ে কেউ মারা গেলে, দোষ হত মোদীজির পাঠানো ভ্যাকসিনের’, ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডে বিস্ফোরক শুভেন্দু

‘জাল টিকা নিয়ে কেউ মারা গেলে, দোষ হত মোদীজির পাঠানো ভ্যাকসিনের’, ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডে বিস্ফোরক শুভেন্দু
‘জাল টিকা নিয়ে কেউ মারা গেলে, দোষ হত মোদীজির পাঠানো ভ্যাকসিনের’, ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডে বিস্ফোরক শুভেন্দু

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ এই মুহূর্তে কসবায় ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ড নিয়ে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসছে তদন্তকারীদের হাতে। এই জাল টিকাকরণের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই উত্তাল রাজ্য রাজনীতি। এই জাল টিকাকরণ নিয়ে ইতিমধ্যেই নতুন উদ্যমে রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে ময়দানে নেমে পড়েছে রাজ্য বিজেপি।

একদিকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দাবি করেছেন যে, রাজ্যে ভ্যাকসিন সিন্ডিকেট চলছে। আবার আরেক বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসুর দাবি, এই ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ডের তদন্ত করাতে হবে সিবিআইকে দিয়ে। এই পরিস্থিতিতে এবার স্বাস্থ্যভবনে হাজির হলেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। এদিন তিনি দলের সাংসদ সুভাষ সরকার, বিধায়ক হিরণ চট্টোপাধ্যায়-সহ আরও বেশ কয়েকজন বিধায়ককে সঙ্গে নিয়ে স্বাস্থ্যভবনে হাজির হন। সেখানেই তিনি স্বাস্থ্যকর্তাদের কাছে স্মারকলিপি দিয়ে এই জাল টিকাকরণ কাণ্ডের পূর্ণাঙ্গ তদন্ত দাবি করেন।

এদিন শুভেন্দু অধিকারী অভিযোগ করেন যে, ‘এটা বিরাট বড় একটা ষড়যন্ত্র। বড় কোনও এজেন্সিকে দিয়ে তদন্ত করাতে হবে। সিবিআই সাংবিধানিক সংস্থা। সিবিআই যোগ্য এই তদন্তের জন্য। জাল টিকা নিয়ে এখনও কেউ মারা যাননি। কিন্তু গেলে তখন বলা হত, মোদিজি যে ভ্যাকসিন পাঠিয়েছেন, তা থেকেই এমন হয়েছে। আমাদের মনে হয়, এটা বড় ষড়যন্ত্র। তাই তদন্ত করতেই হবে।’ এর পাশাপাশি শুভেন্দু অধিকারী এই ঘটনার সঙ্গে শাসক দলের নেতা-নেত্রীদের জড়িত থাকার অভিযোগও করেছেন।

এখানেই শেষ নয়, এদিন স্বাস্থ্যভবনে যাওয়ার আগে, টুইটারে এই ভুয়ো ভ্যাকসিন কাণ্ড নিয়ে সরব হন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা। তিনি লেখেন, ‘কসবায় জাল টিকা কাণ্ডে ভুয়ো আইএএস অফিসারের ধরা পড়া স্বাস্থ্য পরিকাঠামোর বেহাল দশাকেই সামনে নিয়ে এসেছে। একজন সাংসদ সেখানে টিকা নিয়েছেন, সাধারণ মানুষের তাহলে নিরাপত্তা কোথায়?’

অন্যদিকে, শুভেন্দুর পাশাপাশি এই বিষয়ে তৃণমূলকে নিশানা করে, ফেসবুকে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ লেখেন, ‘এতদিন অন্যান্য বিষয়ে সিন্ডিকেট চলত, এখন ভ্যাকসিনের বিষয়ে সিন্ডিকেট চলছে। এখানে এসএসসি, টেট, সিভিক পুলিশের চাকরির জন্য পয়সা নেওয়া হয়। ভ্যাকসিন পড়ে থাকছে, দেওয়া হচ্ছে না, ইচ্ছাকৃতভাবে ক্রাইসিস তৈরি করা হচ্ছে। হাতবদল হয়ে চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে ভ্যাকসিন। এরমধ্যে তৃণমূল নেতাদের হাত রয়েছে। ভুয়ো ভ্যাকসিনের ঘটনা পুরো সাজানো, তৃণমূলের লোক এর সঙ্গে যুক্ত রয়েছে।’