স্বস্তিতে শুভেন্দু অধিকারী! আপাতত গ্রেফতার করা যাবে না রাজ্যের বিরোধী দলনেতাকে, নির্দেশ হাইকোর্টের

স্বস্তিতে শুভেন্দু অধিকারী! আপাতত গ্রেফতার করা যাবে না রাজ্যের বিরোধী দলনেতাকে, নির্দেশ হাইকোর্টের
স্বস্তিতে শুভেন্দু অধিকারী! আপাতত গ্রেফতার করা যাবে না রাজ্যের বিরোধী দলনেতাকে, নির্দেশ হাইকোর্টের

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে আপাতত স্বস্তিতে রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। এখনই গ্রেফতার করা যাবে না তাঁকে। সোমবার এমনটাই জানিয়ে দিল কলকাতা হাইকোর্ট। যার জেরে নিজের দেহরক্ষীর মৃত্যু-সহ মোট পাঁচটি মামলায় আপতত স্বস্তি পেলেন শুভেন্দু অধিকারী। শুধু তাই নয়, এর মধ্যে তিনটি মামলার তদন্ত প্রক্রিয়া বন্ধ করে দেওয়ারও নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। আর বাকি ২টি মামলার তদন্ত চললেও কোনও কড়া পদক্ষেপ নেওয়া যাবে না।

এই মুহূর্ত রাজ্যের বিভিন্ন থানায় বিজেপি বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে মোট পাঁচটি মামলা রয়েছে। এ প্রসঙ্গে সম্প্রতি তিনি কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন। তাঁর সেই আবেদনের ভিত্তিতে, এদিন বিচারপতি রাজশেখর মান্থারের এজলাসে শুনানি হয়। এদিন শুনানির পর আদালত জানিয়ে দেয় যে, কোনও মামলাতেই শুভেন্দু অধিকারীকে এখন গ্রেফতার করা যাবে না। এদিন আদালতের তরফে মৌখিকভাবে জানানো হয়েছে, সিআইডি-র পাঠানো সমন নিয়ে এখনই তাঁর বিরুদ্ধে কোনও কড়া পদক্ষেপের প্রয়োজন নেই। আদালতের নির্দেশ ছাড়া তাঁর বিরুদ্ধে কোনও কড়া পদক্ষেপও গ্রহণ করা যাবে না। এখানেই শেষ নয়, আরও বলা হয়েছে যে, ভবিষ্যতে যদি বিরোধী দলনেতার বিরুদ্ধে কোনও মামলা দায়ের হয়, সেই মামলার প্রেক্ষিতে কড়া পদক্ষেপ করতেও হাইকোর্টের অনুমতি লাগবে বলে জানিয়েছে আদালত।

আগেই উল্লেখ করা হয়েছে যে, শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে রাজ্যের বিভিন্ন থানায় মোট ৫ টি মামলা দায়ের রয়েছে। এর একটি মামলা দায়ের হয়েছে নন্দীগ্রাম থানায়। অতিমারী আইন ভেঙে পুলিশ সুপারকে হুমকি দেওয়ায়, তমলুক থানায় মামলা হয়েছে শুভেন্দু বিরুদ্ধে। আবার বিজেপি নেতার অনুগামীদের বিরুদ্ধে সোনার হার ছিনতাইয়ের অভিযোগ ছিল। সেই তদন্তেও শুভেন্দু অধিকারীর নাম জড়ায়। পাঁশকুড়া থানায় এ নিয়ে মামলা রয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এদিন শুভেন্দু অধিকারীর আইনজীবীর তরফে দাবি জানানো হয়, তাঁর বিরুদ্ধে চলা পাঁচটি বিচারাধীন মামলা থেকে তাঁকে অব্যাহতি দেওয়া হোক অথবা সেগুলি কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআইয়ের হাতে দেওয়া হোক। আইনজীবীর তরফে আরও প্রশ্ন করা হয়, যে মামলা কলকাতা হাইকোর্টে বিচারাধীন সেখানে কীভাবে শুভেন্দু অধিকারীকে হাজিরা দিতে বলে তদন্তকারী সংস্থা? এরপরই তিনটি মামলার তদন্তে স্থগিতাদেশ দেয় হাইকোর্ট। তবে, চলবে বাকি দু’টি মামলার তদন্ত। তা সত্ত্বেও শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে কোনও কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারবে না পুলিশ।

উল্লেখ্য, এদিন সিআইডি-র তলবে সোমবার ভবানী ভবনে বেলা ১১টা নাগাদ তাঁকে ডাকা হয়েছিল। কিন্তু, সেই হাজিরা তিনি এড়িয়ে গিয়েছেন। জানা যাচ্ছে, একটি ইমেল মারফত তিনি সিআইডি আধিকারিকদের জানিয়েছেন, দিনভর রাজনৈতিক কর্মসূচি থাকায়, ভবানী ভবনে উপস্থিত থাকতে পারবেন না। ২০১৮ সালে ১৩ অক্টোবর কর্মরত অবস্থায় কাঁথির পুলিশ ব্যারাকে মাথায় গুলি লেগে শুভেন্দু অধিকারীর দেহরক্ষী শুভব্রত চক্রবর্তীর রহস্যজনকভাবে মৃত্যু হয়। তাঁর মৃত্যুর ঘটনায় সুবিচার চেয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছিলেন শুভব্রতর স্ত্রী সুপর্ণা চক্রবর্তী। এই মামলারই তদন্ত করছে সিআইডি। সেই মামলার প্রেক্ষিতেই শুভেন্দু অধিকারীকে এদিন ভবানী ভবনে তলব করা হয়।