ওপার বাংলার সংখ্যালঘুরা আতঙ্কে রয়েছেন! বাংলাদেশের ডেপুটি হাইকমিশনারের দ্বারস্থ শুভেন্দু

ওপার বাংলার সংখ্যালঘুরা আতঙ্কে রয়েছেন! বাংলাদেশের ডেপুটি হাইকমিশনারের দ্বারস্থ শুভেন্দু
ওপার বাংলার সংখ্যালঘুরা আতঙ্কে রয়েছেন! বাংলাদেশের ডেপুটি হাইকমিশনারের দ্বারস্থ শুভেন্দু

পুজোর সময় মণ্ডপে ভাঙচুর, সংখ্যালঘু হিন্দুদের ওপর হামলার ঘটনা নিয়ে উত্তাল দুই বাংলা।দুর্গাপুজোর মধ্যে বাংলাদেশে উত্তেজনার পরিস্থিতি। কিছু অজ্ঞাত পরিচয় দুষ্কৃতীর বিরুদ্ধে মন্দিরে হামলার অভিযোগ উঠেছে। অস্থায়ী কলকাতার বাংলাদেশের ডেপুটি হাইকমিশনারের সঙ্গে দেখা করলেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। এদিন ডেপুটি হাইকমিশনারের সঙ্গে দেখা করে দ্রুত আইনী ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ করেছেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা।

কুমিল্লায় দুর্গাপুজো মণ্ডপে ভাঙচুর এবং হিন্দু নাগরিক হত্যা নিয়ে বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক জানিয়েছে, উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবেই সাম্প্রদায়িক অশান্তি সৃষ্টি করতেই এই ঘটনা ঘটিয়েছে এক শ্রেণির দুষ্কৃতীরা। কুমিল্লায় দুর্গাপুজো মণ্ডপে ভাঙচুর এবং হিন্দু নাগরিক হত্যা নিয়ে এমন কথাই জানাল বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। কুমিল্লায় হামলার পর প্রায় শতাধিক ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে বলেই খবর।

গোটা ঘটনায় বাংলাদেশের ডেপুটি হাইকমিশনারের সঙ্গে দেখা করে শুভেন্দু অধিকারী জানান, “বাংলাদেশের সংখ্যালঘুরা আতঙ্কে রয়েছেন। সেখানে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়েছে। পরিস্থিতি দ্রুত সমাধান হওয়া দরকার। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিলেও তাণ্ডব চলছে বিভিন্ন জায়গায়”। এর পরেই অবস্থার উন্নতি না হলে বিজেপি নেতারা বাংলাদেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা অচল করে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। তার কথায়, “কড়া ব্যবস্থা না নেওয়া হলে পেট্রোপোল এবং হিলিতে গিয়ে বিজেপি নেতা কর্মীরা শুয়ে থাকবেন”।

অন্যদিকে, বাংলাদেশের বর্তমান পরিস্থিতির প্রেক্ষিতে হাসিনা প্রশাসনকে চিঠি দিয়েছে কলকাতার ইসকন মন্দির কর্তৃপক্ষ। বাংলাদেশ সরকারের কাছে তাদের আর্জি, “সংখ্যালঘুদের সুরক্ষা দিন। বাংলাদেশে সংখ্যালঘু হিন্দুদের ওপর হিংসার ঘটনায় আশঙ্কিত এবং ব্যথিত ইসকন”।