সেচ দপ্তরে চাকরি দেওয়ার নামে আর্থিক তছরুপ! পুলিশের জালে শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ

সেচ দপ্তরে চাকরি দেওয়ার নামে আর্থিক তছরুপ! পুলিশের জালে শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ
সেচ দপ্তরে চাকরি দেওয়ার নামে আর্থিক তছরুপ! পুলিশের জালে শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ

এতদিন রাজ্য সরকার আর্থিক তছরুপ করছে বলে বারবার অভিযোগ এনেছে বিজেপি। এমনকি এককালীন মুখ্যমন্ত্রীর অন্যতম ভরসা শুভেন্দু অধিকারীও বিজেপিতে যোগদানের পরই এই একই অভিযোগ এনেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। কিন্তু এবার সেচ দপ্তরে চাকরি দেওয়ার নাম করে টাকা নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে গ্রেফতার করা হল শুভেন্দু অধিকারীর ঘনিষ্ঠ এক ব্যক্তি কে। শনিবার সন্ধ্যায় রাখাল বেরা নামে ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে মানিকতলা থানার পুলিশ।

কলকাতা পুলিশ সূত্রে খবর, রাখালবাবু অধুনা বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীর অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ। পাশাপাশি এই দুজনের সংযোগ এতটাই গাঢ় যে নারদ মামলায় শুভেন্দু অধিকারীর বিষয়ে তদন্ত করতে গিয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই। স্বাভাবিকভাবেই আর্থিক তছরূপে তার নাম জানানোর পাশাপাশি উঠে আসছে শুভেন্দু অধিকারীর নামও।

পুলিশ সূত্রে খবর, উত্তর 24 পরগনা অশোকনগর এর বাসিন্দা সুজিত দে অভিযোগ জানান থানায়। এই ব্যক্তির অভিযোগ টাকা দিয়ে সেচ দপ্তরে চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন রাখালবাবু। কিন্তু টাকা দেওয়ার পরেও চাকরি পাননি সুজিত বাবু। তিনি জানান দুই কিস্তিতে মটাকা নিয়েছিলেন রাখাল বেরা। টাকা নেওয়ার সময় প্রথমে চুক্তিভিত্তিক এবং পরে স্থায়ী কর্মী হিসেবে তাকে সেজ দপ্তরে নিয়োগ করা হবে বলে প্রতিশ্রুতি দিলেও পরে কোন চাকরি দেওয়া হয়নি তাকে। এরপর এই রাখালবাবুর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন এই ব্যক্তি।

এরপর অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্তে নামে মানিকতলা থানার পুলিশ। সুজিত দের সঙ্গে রাখাল বেলার হোয়াটসঅ্যাপে ভিন্ন কথোপকথন খতিয়ে দেখে পুলিশ। এরপর এই শনিবার তাকে গ্রেফতার করা হয়। তবে শুধু এই সুজিত দে নন আরো বহু ব্যক্তির সঙ্গে এই রাখাল দে প্রতারণা করেছেন বলে দাবি ওই যুবকের। ইতিমধ্যেই ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে পুলিশ।