টাকা ফুরিয়ে গেলেও কি পরিষেবা মিলবে স্বাস্থ্যসাথী কার্ডে? স্পষ্ট জানালো স্বাস্থ্য ভবন

টাকা ফুরিয়ে গেলেও কি পরিষেবা মিলবে স্বাস্থ্যসাথী কার্ডে? স্পষ্ট জানালো স্বাস্থ্য ভবন
টাকা ফুরিয়ে গেলেও কি পরিষেবা মিলবে স্বাস্থ্যসাথী কার্ডে? স্পষ্ট জানালো স্বাস্থ্য ভবন

স্বাস্থ্যসাথী কার্ডের টাকা শেষ হয়ে গেলেও সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা করানো যাবে। স্বাস্থ্য সাথী কার্ড নিয়ে এবার বড় ঘোষণা রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতরের। একইসঙ্গে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড না থাকলেও কেউ স্বাস্থ্য পরিষেবা পাওয়ার থেকে বঞ্চিত হবেন না বলেও জানিয়েছেন রাজ্যের স্বাস্থ্য অধিকর্তা অজয় চক্রবর্তী।

আমজনতার চিকিৎসার সুবিধার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যে স্বাস্থ্যসাথী পরিষেবা চালু করেছেন। স্বাস্থ্যসাথী কার্ডে ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিনামূল্যে চিকিৎসার সুযোগ পেয়ে থাকেন একেকটি পরিবার। তবে ওই পাঁচ লক্ষ টাকা শেষ হয়ে গেলে কি হবে তা নিয়েই প্রশ্ন উঠছিল। এবার সেই সব জবাব দিল রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর।

স্বাস্থ্য অধিকর্তা অজয় চক্রবর্তী জানান, “স্বাস্থ্যসাথী কার্ড সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার ক্ষেত্রে জরুরি। ধীরে ধীরে সেই পরিকাঠামো হচ্ছে। কিন্তু তার মানে এই নয় যে স্বাস্থ্যসাথী কার্ড না থাকলে চিকিৎসা হবে না। সরকারি হাসপাতালে স্বাস্থ্যসাথী কার্ডের বরাদ্দ টাকা খরচ হয়ে গেলেও চিকিৎসা করানোর ক্ষেত্রে কোনও সমস্যা হবে না।”

তিনি আরও বলেন, “এখনও সরকারি হাসপাতালে দেখা যাচ্ছে ভর্তি হচ্ছেন অনেকেরই কার্ড নেই।স্বাস্থ্যসাথী কার্ড কারও যদি না থাকে তাকেও আমরা সরকারি চিকিৎসা পরিষেবা থেকে কোনওরকম ভাবে বঞ্চিত করব না। আমরা জানতে চাই সমস্ত মানুষ স্বাস্থ্যাসাথীর আওতায় এসেছেন কি না।”

প্রসঙ্গত, স্বাস্থ্য কর্তাদের নজরদারি চালানোর নির্দেশ দিয়ে হেল্পলাইন নম্বরও চালু করতে বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। বিভিন্ন বড় হাসপাতালে হেল্পডেস্ক চালুর কথাও হয়েছে। এমনকি যদি কোনও হাসপাতাল বা নার্সিংহোম এই কার্ড নিতে না চায় তবে সেই সংস্থার লাইসেন্স বাতিল করা হবে বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এবার কার্ডের টাকা শেষ হয়ে গেলেও চিকিৎসা মিলবে বলেই জানালো রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর। যাতে স্বাভাবিক ভাবেই খুশি রাজ্যবাসী।