ত্রিপুরায় ঘাসফুলের উত্থান বাংলায় বিজেপির পরাজয়ের প্রতিফলন! বিস্ফোরক টুইট তথাগতর

ত্রিপুরায় ঘাসফুলের উত্থান বাংলায় বিজেপির পরাজয়ের প্রতিফলন! বিস্ফোরক টুইট তথাগতর
ত্রিপুরায় ঘাসফুলের উত্থান বাংলায় বিজেপির পরাজয়ের প্রতিফলন! বিস্ফোরক টুইট তথাগতর

ত্রিপুরায় খাতা খুলল তৃণমূল। বিজেপি জয়ী হলেও প্রধান বিরোধী দল হিসেবে উঠে এলো ঘাসফুল শিবির। পুরভোট বোর্ড গঠন না করলেও ত্রিপুরায় নেহাত খারাপ ফল করলো না তৃনমূল।৯৯ শতাংশ আসন জিতে নিয়েছে বিজেপি। দ্বিতীয় স্থানের জন্য সিপিএম-তৃণমূলের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই চলছে। প্রথমবার লড়েই আগরতলায় প্রধান বিরোধী হল তৃণমূল। আর এরপরেই ফের একবার বিজেপিকে ঠুকে টুইট করলেন তথাগত রায়। আর এতেই অস্বস্তি বাড়ল গেরুয়া শিবিরের।

এদিন ত্রিপুরার পুরভোটের ফলাফল দেখে নিয়ে তথাগত বাবু টুইট করে লেখেন,”ত্রিপুরা পুরভোটে ঘাসফুলের উত্থান আসলে বাংলায় বিজেপির পরাজয়ের প্রতিফলন। যাঁরা রাজ্য বোঝেন না, রাজ্যের মানুষকে বোঝেন না সেইসব বহিরাগত নেতাদের দিয়ে নির্বাচনে জেতা যায় না।” এদিকে পাল্টা গেরুয়া শিবিরের মত, তৃণমূল একটি রাজ্য নির্ভর দল। তার সঙ্গে বিজেপির কোনও তুলনাই হয় না। ত্রিপুরার মানুষ তৃণমূলকে সমর্থন করেনি, এটা সত্য। এখান থেকে লোক নিয়ে গিয়ে ভোট করেছে। তার ফল তারা পেয়েছে।

অন্যদিকে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, “মাত্র তিনমাসে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে রেখে সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সুযোগ্য নেতৃত্বে রাস্তায় নেমে মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করেছে এবং মানুষও এত কিছু উপেক্ষা করে যতটুকু ভোট দিতে পেরেছে তার প্রতিফলনে আজকে ত্রিপুরা তৃণমূল কংগ্রেস প্রধান বিরোধী দলের ভূমিকায় এসেছে”।