বন্ধ হয়ে গেল ত্রিপুরার শতবর্ষ পুরোনো খাড়চি পুজোর মেলা

Image Source : Google

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ রবিবার শুরু হলো ত্রিপুরায় শতবর্ষ পুরাতন খাড়চি পূজা। রাজধানী আগরতলার নিকটবর্তী ‘চতুর্দশ দেবতা বাড়ি’ মন্দিরে পালিত হয় এই পূজা। ‘খাড়চি পূজা পৃথিবী পরিষ্কার করে সকলের মঙ্গল কামনার জন্য করা করা হয়। আমরা আজ স্নান-যাত্রা করেছি এবং রীতি মেনে প্রার্থনা করেছি।’ বলেছেন মন্দিরের পুরোহিত। তিনি আরো বলেছেন, ‘এই মহামারী চলাকালীন সকলকে আশীর্বাদ করার জন্য দেবতার আছে প্রার্থনা করব।’

এই পূজা উপলক্ষে হয় সাত দিন ব্যাপী মেলা। সেই মেলা বন্ধ হয়ে গেছে। সাথে সাথে কোনো পশুবলি হচ্ছে না। এর সঙ্গে ১০ বছরের নিচে কোনো বাচ্চাকে এবং ৬০ বছরের ঊর্ধ্বের কোনো মানুষকে নিয়ম মেনে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। কোনো ভোগের আয়োজন নেই। সামাজিক দূরত্ব মেনে যতটা সম্ভব এই পূজা করা হচ্ছে। প্রতি বছর রাজ পুরোহিত দেবতাদের স্নান যাত্রায় নেতৃত্ব দেন এবং ১০৪টি পশু বলি দেওয়া হয়। এ বছর এ সব মিছিল বা বলি বন্ধ থাকছে।

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব রাজ্যের মানুষদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘আমি খাড়চি পূজা উপলক্ষে রাজ্যের সমস্ত মানুষকে শুভেচ্ছা জানাই। মহামারীর জন্য এবছর পুজোর সমস্ত কিছুই অনাড়ম্বর ও বর্ণহীন থেকে যাচ্ছে। আমরা চোদ্দো দেবতার কাছে প্রার্থনা করি, যাতে এই অবস্থা আমরা কাটিয়ে উঠতে পারি।’

প্রসঙ্গত বলে রাখা যায়, জনশ্রুতি অনুযায়ী খাড়চি পূজা রাজ পরিবারের চোদ্দো পারিবারিক দেবতার স্তব। এতে চোদ্দো দেবতাকে স্নান করানোর মধ্যে পৃথিবীকেই পরিষ্কার করানো হয়। এই চোদ্দো দেবতা হলেন, শিব, পার্বতী, বিষ্ণু, লক্ষ্মী, সরস্বতী, কার্তিক, গনেশ, ব্রহ্মা, জল দেবতা আবাদি, চন্দ্র, অগ্নি, গঙ্গা, হিমালয় এবং কামদেব।

আরও পড়ুনঃ  অসমে ফের ভয়াবহ বন্যা, ৩৩ টির মধ্যে ২৫ টি জেলা জলের তলায়

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.