ভোটের মুখে জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে সাধারণ মানুষের একটাই দাবি, সরকার এর সুরাহ করুক, অবিলম্বে

ভোটের মুখে জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে সাধারণ মানুষের একটাই দাবি, সরকার এর সুরাহ করুক, অবিলম্বে
ভোটের মুখে জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে সাধারণ মানুষের একটাই দাবি, সরকার এর সুরাহ করুক, অবিলম্বে

বংনিউজ২৪x৭ডিজিটাল ডেস্কঃ করোনার জেরে এমনিতেই দেশের অর্থনীতি ভেঙে পড়েছে একপ্রকার। বহু মানুষ কাজ হারিয়েছেন। এর মধ্যেই ক্রমাগত বেড়েই চলেছে জ্বালানির মূল্য। পেট্রল, ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির পাশাপাশি বেড়েই চলেছে রান্নার গ্যাসের দাম। এর সঙ্গে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দামও। এর জেরে সাধারণ মানুষের মাথায় হাত।

এই মুহূর্তে এ দেশে পেট্রল, ডিজেলের সর্বকালীন রেকর্ড দাম। সঙ্গে রান্নার গ্যাস এবং অন্যান্য নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দামও ঊর্ধ্বমুখী। এদিকে পেট্রল এবং ডিজেলের দাম গত কয়েকদিন ধরে ক্রমাগত বাড়ছে। আর তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে রান্নার গ্যাসের দামও। তার প্রধান কারণ, রান্নার গ্যাস তৈরি হয় অপরিশোধিত পেট্রোলিয়াম থেকেই। এমনিতেই করোনার কারণে দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি ভেঙে পড়েছে, বহু মানুষ কাজ হারিয়েছেন। তার উপর রান্নার গ্যাসের দাম ৮০০ পেরিয়ে যাওয়ায়, পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে উঠছে সাধারণ মানুষের জন্য।

এদিকে বৃহস্পতিবার কলকাতায় পেট্রলের দাম লিটার প্রতি ৯১ টাকা ১২ পয়সা এবং ডিজেলের দাম ৮৪ টাকা ২০ পয়সা। এককথায় পেট্রল, ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধি সাধারণের মুখের অন্ন গ্রাস করেছে। এই পরিস্থিতিতে, আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের মুখে যখন সব দল চাইছে ভোট, তখন সাধারণ মানুষের একটাই দাবি, এ প্রসঙ্গে সরকারের কাছে, এই সমস্যার সুরাহা করা হোক অবিলম্বে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে গতকালই পথে নামেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী জ্বালানির দাম। এর জেরে দেশের শাসকদলের প্রতি ক্ষোভে ফুঁসছে সাধারণ মানুষ। এই পরিস্থিতিতে ভোটের মুখে কেন্দ্র সরকারের উপর চাপ সৃষ্টি করতে এবং পেট্রল, ডিজেল এবং রান্নার গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদ প্রদর্শনে অভিনব পথ গ্রহণ করেছে রাজ্যের শাসকদল। যার নেতৃত্ব দিলেন খোদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার হাজরা থেকে ইলেকট্রিক স্কুটিতে চেপে রাজ্যের সচিবালয় নবান্নে যান তিনি। দলনেত্রীকে পিছনের আসনে বসিয়ে ই-স্কুটি চালান ফিরহাদ হাকিম। অন্যদিকে, বাড়ি ফেরার পথে ফিরহাদ হাকিমের পরিবর্তে মুখ্যমন্ত্রী নিজেই চালকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হন।

মুখ্যমন্ত্রীর নিজের কথায়, চ্যারিটি বিগান অ্যাট হোম। প্রতিবাদটা নিজের ঘর থেকেই শুরু হল। নিজেই তিনি পথে নেমেছেন। মুখ্যমন্ত্রী এই জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন। তাঁর কথায়, দেশটাকে বেঁচে দিচ্ছে কেন্দ্রের সরকার। তিনি এও জানিয়েছেন যে, শুক্রবার থেকে আরও বড় আন্দোলনে নামবে তৃণমূল। এই জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধির কারণে রাজ্যের মানুষকেও আন্দোলনে সামিল হওয়ার ডাক দিয়েছেন।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.