CoWin ও আরোগ্য সেতু অ্যাপে মিলছে না টিকাকরণের কোনও স্লট? কী করবেন? জেনে নিন বিস্তারিত

CoWin ও আরোগ্য সেতু অ্যাপে মিলছে না টিকাকরণের কোনও স্লট? কী করবেন? জেনে নিন বিস্তারিত
CoWin ও আরোগ্য সেতু অ্যাপে মিলছে না টিকাকরণের কোনও স্লট? কী করবেন? জেনে নিন বিস্তারিত

দেশ জুড়ে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ অব্যাহত! করোনা মোকাবিলায় ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে তৃতীয় পর্যায়ের টিকাকরণও। ১ মে থেকে শুরু হওয়া তৃতীয় ধাপের টিকাকরণের ক্ষেত্রে সরকারের তরফ থেকে শুরু করা হয়েছিল CoWin অ্যাপ। এর মাধ্যমে টিকাকরণের জন্য রেজিস্ট্রেশন করা যেত। পাশাপাশি ছিল আরোগ্য সেতু অ্যাপও।

তবে ভ্যাকসিনের ঘাটতি থাকায় টিকাকরণ নিয়ে বেশ সমস্যায় ভুগতে হচ্ছে আমজনতাকে৷ বেশ কিছু ক্ষেত্রেই দেখা যাচ্ছে রেজিস্ট্রেশন সম্পূর্ণ হচ্ছে না৷ বা হলেও টিকাকরণের স্লট মিলছে না। এসবই হচ্ছে পর্যাপ্ত পরিমাণ টিকা না থাকায়৷ তবে অনলাইন মাধ্যমে এবার টিকাকরণ সম্পর্কিত সমস্ত প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন ব্যবহারকারীরা। অনলাইন মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশনের পর টিকাকরণ ও অ্যাপয়েন্টমেন্টের যাবতীয় তথ্যই মিলবে সেখানে৷ রয়েছে সেরকমই একাধিক বিকল্প। সেগুলি কী কী? আসুন জেনে নেওয়া যাক…

প্রথমেই বলা যেতে পারে Under45.in নামক এই ওয়েবসাইটের কথা। এটি তৈরি করেছেনচেন্নাইয়ের এক বাসিন্দা৷ মিডিয়া রিপোর্টস অনুযায়ী, এই ওয়েবসাইটের টেলিগ্রাম চ্যানেলের মাধ্যমে ভ্যাকসিনেশন স্লটের জেলাভিত্তিক নানা তথ্য জানা যাবে। রয়েছে জনপ্রিয় এক পেমেন্ট অ্যাপ পেটিএম(PayTm)। এই সংস্থার মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে ভ্যাকসিন ফাইন্ডারের সুবিধা পেতে পারেন ব্যবহারকারীরা ৷

পাশাপাশিই রয়েছে Getjab.in নামে আরেকটি প্ল্যাটফর্ম। যেখানে টিকাকরণ সংক্রান্ত সমস্ত আপডেট পাওয়া যাবে। এমনকি টিকাকরণের সঙ্গে যুক্ত জরুরি অ্যালার্ট ই-মেলও ঢুকবে এর সাহায্যে। এছাড়াও ‘My Government Corona Helpdesk’ এর মাধ্যমে হোয়াটসঅ্যাপে ভ্যাকসিন সংক্রান্ত নানা তথ্য জানতে পারবেন ব্যবহারকারীরা৷ তবে ভ্যাকসিনেশন স্লটের কোনও অ্যালার্ট মিলবে না এতে।

প্রসঙ্গত, সরকারের তরফে ইতিমধ্যেই জানানো হয়েছে, একাধিক রাজ্যে টিকার আমদানির ঘাটতি থাকায় তৃতীয় পর্যায়ের টিকাকরণ হচ্ছে ধীর গতিতে। বেশ কিছু রাজ্যে তা পিছিয়েও দেওয়া হয়েছে। তবে যেহেতু ১ মে থেকে ১৮ ঊর্ধ্বে সকলকে টিকাকরণের প্রক্রিয়া ইইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে, ফলে টিকা এলেই ফের দ্রুত গতিতে শুরু হবে টিকাকরণ। উল্লেখ্য, সরকারি তথ্য অনুযায়ী, ১০ মে পর্যন্ত মোট ১৭ কোটি ১ লক্ষ ৭৬ হাজার ৬০৩ টিকাকরণ হয়ে গিয়েছে ৷