নেই সেফজোন, গাছকে আইসোলেশন সেন্টার বানিয়ে তুললেন তেলেঙ্গানার এই যুবক!

নেই সেফজোন, গাছকে আইসোলেশন সেন্টার বানিয়ে তুললেন তেলেঙ্গানার এই যুবক!
নেই সেফজোন, গাছকে আইসোলেশন সেন্টার বানিয়ে তুললেন তেলেঙ্গানার এই যুবক!

বছর আঠেরোর যুবকটি করোনা পজিটিভ। এদিকে গ্রামে আইসোলেশন সেন্টার নেই। বাড়িতেও যে আইসোলেশনে থাকা যাবে সে উপায়ও নেই। মাথা গোঁজার জন্য পরিবারে রয়েছে একটিই ঘর। তাহলে উপায়? অভিনব ভাবনাকে সঙ্গী করে গাছেই বিছানা বেঁধে নিয়েছেন যুবকটি৷ সেখানেই টানা ১১দিন ধরে চলছে আইসোলেশন পর্ব। ঘটনাটি ঘটেছে তেলেঙ্গানায়।

তেলঙ্গানার নালাগোন্ডা জেলার ছোট্ট একটি আদিবাসী অধ্যুষিত গ্রাম কোঠানান্দিকোন্ডা। সেখানেই থাকেন ১৮ বছরের শিবা নামে ওই যুবক। গত ৪ মে করোনায় আক্রান্ত হন তিনি। এদিকে এই মুহূর্তে গ্রামের অবস্থা খুবই শোচনীয়। সবথেকে কাছের প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রের দূরত্ব ৫ কিমি। সরকারি হাসপাতাল ৩০ কিমি দূরে। গ্রামে নেই কোনও সেফজোন। অগত্যা পরিস্থিতি হাতের বাইরে যাওয়ার আগেই এমন পদক্ষেপ নিয়েছেন শিবা৷ বলা ভালো বাধ্য হয়েছেন। গাছকেই বানিয়ে ফেলেছেন নিজের ‘আইসোলেশন সেন্টার’।

ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসতেই শিবার সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করে সর্বভারতীয় এক সংবাদমাধ্যম। তাঁর থেকেই জানা গিয়েছে, পরিবারে সদস্যের সংখ্যা মোট ৪। নিজে পজিটিভ হওয়ার পর যাতে অন্যদের মধ্যে সংক্রমণ না ছড়ায় তাই গাছে থাকারই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন শিবা। তাঁর এই নিভৃতবাস নজর কেড়েছে নেটিজেনদেরও। তবে শিবা এও জানিয়েছেন, আগে গ্রামে কোনও আইসোলেশন সেন্টার না থাকলেও, গত দু’দিন আগেই গ্রামের তফসিলি উপজাতিদের হোস্টেলকে আইসোলেশন সেন্টার বানানো হয়েছে।