‘দেশে ৩০ শতাংশ মুসলিম একজোট হলে, চারটে পাকিস্তান হবে,’ তৃণমূল নেতা শেখ আলমের মন্তব্যে বিতর্ক

‘দেশে ৩০ শতাংশ মুসলিম একজোট হলে, চারটে পাকিস্তান হবে,’ তৃণমূল নেতা শেখ আলমের মন্তব্যে বিতর্ক
‘দেশে ৩০ শতাংশ মুসলিম একজোট হলে, চারটে পাকিস্তান হবে,’ তৃণমূল নেতা শেখ আলমের মন্তব্যে বিতর্ক / ছবি সৌজন্যে- Screengrab from Video Tweeted By @amitmalviya

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ ২৭ মার্চ বাংলায় বিধানসভা নির্বাচনের প্রথম দফার ভোটগ্রহণ। রাজ্যজুড়ে জোরকদমে চলছে নির্বাচনী প্রচার। এই আবহে দেশের সংখ্যালঘুদের নিয়ে পাকিস্তান গড়ার হুঁশিয়ারি দিলেন তৃণমূল নেতা।

বীরভূমের নানুর এলাকার বাসাপাড়ায় নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে তৃণমূল নেতা শেখ আলমের এই হুমকিসুলভ মন্তব্যকে কেন্দ্র করে এই মুহূর্তে সরগরম রাজ্য-রাজনীতি। তৃণমূল নেতার এই মন্তব্যকে ব্রহ্মাস্ত্র বানিয়ে রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানালেন বিজেপির আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য। বিজেপির এই কেন্দ্রীয় নেতার অভিযোগ, ওই তৃণমূল নেতা আসলে তাঁদের দলনেত্রীর প্রতি আনুগত্য প্রকাশ করেছেন। শুধু তাই নয়, এর সঙ্গে তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অবস্থান নিয়েও প্রশ্ন তোলেন।

বুধবার বিকেলে বীরভূমের নানুর এলাকার বাসাপাড়ায় নির্বাচনী প্রচারে গিয়েছিলেন তৃণমূল নেতা শেখ আলম। সেখানেই তিনি বক্তব্য রাখাতে গিয়ে, এই ধরনের বিতর্কিত মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, ‘দেশের ৩০ শতাংশ সংখ্যালঘু মুসলিম। আমরা একজোট হলে, চারটে পাকিস্তান তৈরি হবে। তখন বাকি ৭০ শতাংশ দেশবাসী কোথায় যাবে?’ তৃণমূল নেতা শেখ আলমের এই মন্তব্য মুহূর্তের মধ্যেই ভাইরাল হয়ে যায়।

বৃহস্পতিবার সকালেই তৃণমূল নেতার এই মন্তব্যকে কেন্দ্র করে তৃণমূলকে আক্রমণ করেন বিজেপির আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্য। এই মন্তব্য প্রসঙ্গে বীরভূমের জেলা পরিষদের কমার্ধ্যক্ষ করিম খান বলেন, ‘বিজেপি যে হিন্দু-মুসলিমকে বিভক্ত করেছেন, সেই প্রসঙ্গে এই কথা বলা হয়েছে।‘ করিম খান নিজেও ওই প্রচারে উপস্থিত ছিলেন বলে জানা গিয়েছে।

এদিকে তৃণমূল নেতার এই মন্তব্য প্রসঙ্গে শাসকদলের নেতৃত্বদের কাউকে এখন কোনও মন্তব্য করতে শোনা যায়নি। অন্যদিকে, রাজ্য বিজেপির নেতা শমীক ভট্টাচার্য বলেন যে, ‘তৃণমূলের শাসনকালে কিছু সংখ্যালঘু নেতা এই ধরনের কথা বলার সাহস পেয়েছেন। এঁরা আবার বাংলায় ৪৬ সালকে ফিরিয়ে আনতে চাইছেন। বাংলাকে ধর্মীয়ভাবে ভাগ করতে চাইছে।’

উল্লেখ্য, রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, শেখ আলমের মন্তব্য সামগ্রিকভাবে বিচার করলে ততোটাও তীক্ষ্ণ বলে মনে হবে না। তিনি আদতে বোঝাতে চেয়েছেন যে, বিজেপি শুধুমাত্র ৭০ শতাংশ নিয়ে রাজনীতি করে, সবসময় মন্দির-মসজিদ আনছে রাজনীতিতে। দেশের বাকি ৩০ শতাংশও এই দেশেরই অংশ। ভারত শুধুমাত্র ৭০ শতাংশকে নিয়েই নয়।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.