নির্বাচনে জয়ী হলে আগামী পাঁচ বছরের কি কি উন্নয়ন হবে? খতিয়ান তুলে স্থানীয় স্তরে ইস্তেহার প্রকাশ তৃণমূলের

নির্বাচনে জয়ী হলে আগামী পাঁচ বছরের কি কি উন্নয়ন হবে? খতিয়ান তুলে স্থানীয় স্তরে ইস্তেহার প্রকাশ তৃণমূলের
নির্বাচনে জয়ী হলে আগামী পাঁচ বছরের কি কি উন্নয়ন হবে? খতিয়ান তুলে স্থানীয় স্তরে ইস্তেহার প্রকাশ তৃণমূলের

নির্বাচনের আগে সার্বিকভাবে ইশতেহার প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এবার স্থানীয় তারিখ শুরু হয়েছে ইশতেহার প্রকাশের কর্মসূচি। মুখ্যমন্ত্রীর দেওয়া অঙ্গীকার মানুষের কাছে কিভাবে পৌঁছে যাচ্ছে সে সমস্ত খতিয়ান তুলে ধরা হয়েছে ইশতেহারের মাধ্যমে।

ভোকাল ফর লোকাল!এই শ্লোগানে বিশ্বাস করে সকল স্তরের মানুষকে যে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছে তা মানুষকে এবার কতটা সুবিধা দেবে সেই উদ্দেশ্যেই স্থানীয় স্তরে ইস্তেহার প্রকাশ করছে ঘাসফুল শিবির।

বিগত দুই পর্যায়ের মুখ্যমন্ত্রী থাকাকালীন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কি কি কাজ করেছে তা নিয়ে ইতিমধ্যেই রিপোর্ট পেশ করেছে দল। আগামী পাঁচ বছরে অর্থনীতি কিভাবে বাড়বে বা নতুন করে কর্মসংস্থানের আধিক্য এবং বেকারত্বের হ্রাস, সামাজিক ন্যায় ও সুরক্ষা, তপশিলি জাতি ও উপজাতির পরিবারের মহিলা সদস্যকে মাসিক হাজার টাকা এবং বাকিদের মাসিক 500 টাকা করে দেওয়ার যে আর্থিক সহায়তা দেওয়া হচ্ছে সেই সমস্ত খতিয়ান তুলে ধরা হয়েছে এই ইশতেহার এর মাধ্যমে।

পাশাপাশি স্থানীয় ইশতেহারে জানানো হয়েছে, আগামী পাঁচ বছরে 5 লক্ষ কোটি টাকা বিনিয়োগ করে দুই হাজার বড় শিল্প তৈরি হবে। রাজ্যের ডাক্তার, নার্স, প্যারামেডিকেলের সঙ্গে যুক্ত ছেলেমেয়েদের চাকরির ক্ষেত্রে আসন সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে। স্বাস্থ্য খাতে বরাদ্দ করা হচ্ছে দ্বিগুণ অর্থ। এছাড়াও শিক্ষা খাতে বরাদ্দ অর্থের পরিমাণ বাড়ছে। শিক্ষকদের আসন সংখ্যা দ্বিগুণ করা হচ্ছে। পাশাপাশি রাস্তা, জল, বাংলার বাড়ি প্রকল্পে বিনামূল্যে বাড়ি, স্বল্প খরচে বিদ্যুৎ গ্রামের মসজিদ রাস্তা ইত্যাদি প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। নিজেদের উন্নয়নের খতিয়ান তুলে ধরে পাশাপাশি আগামী পাঁচ বছরে আরো কি কি উন্নয়ন ঘাসফুল শিবির করবে সেই বার্তা দিতেই এবার স্থানীয় স্তরে ইস্তেহার প্রকাশ করছে তৃণমূল।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.