পুরভোটের আগে আগরতলার জন্য ঢালাও প্রতিশ্রুতি তৃণমূলের ইস্তাহারে! কী কী রয়েছে ইস্তাহারে?

পুরভোটের আগে আগরতলার জন্য ঢালাও প্রতিশ্রুতি তৃণমূলের ইস্তাহারে! কী কী রয়েছে ইস্তাহারে?
পুরভোটের আগে আগরতলার জন্য ঢালাও প্রতিশ্রুতি তৃণমূলের ইস্তাহারে! কী কী রয়েছে ইস্তাহারে?

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ আগরতলার জন্য ‘নবরত্ন’ পেশ করল তৃণমূল কংগ্রেস। সামনেই রয়েছে আগরতলায় পুরনির্বাচন। আর এই নির্বাচনের আগে তৃণমূল কংগ্রেস পেশ করল তাদের নির্বাচনী ইস্তাহার। এই ভোট কার্যত মুখরক্ষার লড়াই হতে চলেছে। বিজেপিশাসিত বিপ্লব দেবের সরকারের সঙ্গে প্রতিনিয়ত সম্মানের লড়াই চলছে ঘাসফুল শিবিরের।

আর সেই কারণেই আগরতলা পুরনিগমের ভোটে কোনও খামতি রাখতে চায় না তৃণমূল কংগ্রেস। প্রচার শুরু হয়েছে ইতিমধ্যেই। এবার আগরতলার বাসিন্দাদের জন্য ৯ টি প্রতিশ্রুতি নিয়ে নির্বাচনী ইস্তাহার ‘আগরতলার জন্য নবরত্ন’ প্রকাশ করল তৃণমূল। আজই এই নির্বাচনী ইস্তাহার প্রকাশিত হয়।

এদিন ইস্তাহার প্রকাশ অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন তৃণমূল সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায়, সাংসদ সুস্মিতা দেব, প্রাক্তন সাংসদ অর্পিতা ঘোষ, বিধায়ক তথা এ রাজ্যের মন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেন, বিধায়ক জুন মালিয়া, সোহম চক্রবর্তী, ত্রিপুরার স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য সুবল ভৌমিক প্রমুখ।

এবার দেখে নেওয়া যাক, ঠিক কী কী রয়েছে এই ইস্তাহারে। তৃণমূলের ৯টি প্রতিশ্রুতি মধ্যে রয়েছে, জনসুরক্ষা, জল সরবরাহ, স্বাস্থ্য, সামাজির সুরক্ষার মতো বিষয়। ক্ষমতায় এলে আগরতলার মানুষের স্বাচ্ছন্দ্যের কথা মাথায় রাখতে হবে বলে উল্লেখ করেছে তৃণমূল। খানাখন্দহীন সড়ক তৈরির কথা বলা হয়েছে। পাশাপাশি, ফ্রি ওয়াই ফাই, মহিলাদের দ্বারা চালিত পিঙ্ক অটো ও পিঙ্ক ট্যাক্সি রাস্তায় নামানোর কথাও বলা হয়েছে। তৃণমূলের দাবি, ক্ষমতায় এলে গোটা শহর মুড়ে ফেলা হবে সিসিটিভিতে। শুধু তাই নয়, বাসিন্দাদের কর ছাড়ের কথাও বলা হয়েছে। যে পরিবারগুলির বার্ষিক আয় ১০ লক্ষের কম তাঁদের জন্য সম্পত্তি কর ২০ শতাংশ কমানো হবে বলে আশ্বাস তৃণমূলের। আগরতলায় ওয়াটার এটিএম তৈরির কথা বলা হয়েছে প্রতিশ্রুতিতে। সামাজিক উন্নয়নের জন্য হকারদের বিশেষ ব্যবস্থার কথাও বলা হয়েছে। পুরকর্মীদের জন্য বিশেষ ভাতার ব্যবস্থা থাকবে বলেও জানিয়েছে তৃণমূল। পাশাপাশি কলকাতা পুরসভার ধাঁচে টোল ফ্রি নম্বর চালু করে হ্যালো মেয়র পরিষেবা চালু করার কথা বলা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত কয়েকদিনে একাধিকবার ত্রিপুরায় একের পর এক দলীয় নেতানেত্রীর ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। বিপ্লব দেবের সরকারের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থও হয়েছিল তৃণমূল। শীর্ষ আদালতে রিট পিটিশন দাখিল করে তৃণমূলের রাজ্যসভা সাংসদ সুস্মিতা দেব অভিযোগ জানিয়েছিলেন, ত্রিপুরায় রাজনৈতিক প্রচারে তৃণমূলকে ক্রমাগত বাধা দেওয়া হচ্ছে। অশান্তির অভিযোগ নিয়ে সম্প্রতি কড়া নির্দেশ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। শীর্ষ আদালতের নির্দেশ, ভোটের আগে সমস্ত রাজনৈতিক দল যাতে অবাধে প্রচার করতে পারে এবং নির্বাচন যাতে শান্তিপূর্ণ হয়, তা নিশ্চিত করতে হবে রাজ্য সরকারকে।