কেন্দ্রীয় বাহিনীর সঙ্গে একই টেবিলে মধ্যাহ্নভোজ রানাঘাট উত্তর-পূর্বের বিজেপি প্রার্থীর! কমিশনে তৃণমূল

কেন্দ্রীয় বাহিনীর সঙ্গে একই টেবিলে মধ্যাহ্নভোজ রানাঘাট উত্তর-পূর্বের বিজেপি প্রার্থীর! কমিশনে তৃণমূল
কেন্দ্রীয় বাহিনীর সঙ্গে একই টেবিলে মধ্যাহ্নভোজ রানাঘাট উত্তর-পূর্বের বিজেপি প্রার্থীর! কমিশনে তৃণমূল

বংনিউজ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ কেন্দ্রীয় বাহিনীর সঙ্গে একই টেবিলে মধ্যাহ্নভোজ সারছেন রানাঘাট উত্তরপূর্বের বিজেপি প্রার্থী। ওই কেন্দ্রের ভোটের ঠিক আগের দিন অর্থাৎ আজ, শুক্রবার সকালে তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন এই ছবি। আর এই ছবিকে ঘিরেই এই মুহূর্তে উত্তাল রাজ্য-রাজনীতি। ছবি পোস্ট করে ওই প্রার্থীর শাস্তি এবং তদন্তের দাবি করেছেন মহুয়া মৈত্র।

শুক্রবার ট্যুইটারে একটি ছবি শেয়ার করেছেন মহুয়া। এই কেন্দ্রে পঞ্চম দফায় অর্থাৎ আগামীকাল ভোট রয়েছে। আর তার আগে, এই ছবিকে হাতিয়ার করে, কেন্দ্রীয় বাহিনীকে প্রভাবিত করার অভিযোগ এনে, রানাঘাট উত্তর-পূর্বের বিজেপি প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হতে চলেছে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। উল্লেখ্য, শুরু থেকেই কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে বহু অভিযোগ করা হচ্ছে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূলের পক্ষ থেকে। একইভাবে প্রথম থেকেই তৃণমূলের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হচ্ছে, নির্বাচন কমিশনকে এই নির্বাচন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ করছে বিজেপি।

তৃণমূল নেত্রী শুরু থেকেই নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে পক্ষপাতিত্বের অভিযোগ করে এসেছেন। আট দফায় ভোট করানোর সিদ্ধান্ত থেকে বড় জেলাগুলিতে একাধিকভাগে ভোট, সবটাই বিজেপির পরিকল্পনা বলেই দাবি করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই পরিস্থিতিতে, শুক্রবার রানাঘাট উত্তর-পূর্বের বিজেপি প্রার্থী অসীম বিশ্বাসের একটি ছবি পোস্ট করেন সাংসদ মহুয়া মৈত্র।

সেই ছবিতে দেখা যাচ্ছে, একই টেবিলে বসে মধ্যাহ্নভোজ সারছেন বিজেপি প্রার্থী অসীম বিশ্বাস ও কেন্দ্রীয় বাহিনীর চারজন জওয়ান। ওই ছবিতে আরও কয়েকজন ব্যক্তি রয়েছেন। ছবিটি পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গেই তা সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়। এই ছবি বিজেপি এবং কমিশনের আঁতাতের অভিযোগকে আরও দৃঢ় করছে বলে মত শাসকদলের।

জানা গিয়েছে, তৃণমূল ইতিমধ্যেই এই ছবির পরিপ্রেক্ষিতে কমিশনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। শাসকদলের কথায়, রাত ভোর হলেই, রানাঘাট উত্তর-পূর্ব আসনে নির্বাচন। এদিকে, তার আগে বাহিনীর সঙ্গে বিজেপি প্রার্থীর এই ছবিতেই পরিষ্কার যে, গেরুয়া শিবির তাঁদের প্রভাবিত করছে।

অন্যদিকে, তৃণমূলের এই অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন বলেই দাবি করেছেন প্রার্থী অসীম বিশ্বাস। তাঁর কথায়, ওই ছবিতে যে জওয়ানদের দেখা গিয়েছে, তাঁরা কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ান নন। তাঁরা বিজেপি প্রার্থীর নিরাপত্তারক্ষী।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.