টোকিও প্যারালিম্পিক্সে ব্রোঞ্জ জিতেও পদক খোয়ালেন বিনোদ কুমার! কিন্তু কেন?

টোকিও প্যারালিম্পিক্সে ব্রোঞ্জ জিতেও পদক খোয়ালেন বিনোদ কুমার! কিন্তু কেন?
টোকিও প্যারালিম্পিক্সে ব্রোঞ্জ জিতেও পদক খোয়ালেন বিনোদ কুমার! কিন্তু কেন?

টোকিও প্যারালিম্পিক্সে দেশের একাধিক সাফল্যের দিনই এল এক দুঃসংবাদও৷ ভুয়ো তথ্য পরিবেশনের কারণে মুখ পুড়ল ভারতের। পদক জিতেও বাতিল করে দেওয়া হল সেই পদক। ফলে ভারতীয় ক্রীড়া মহলেও লাগলো কলঙ্কের ছোঁয়া। আর এসবের নেপথ্যে যিনি, তিনি হলেন প্রাক্তন সেনা তথা ভারতীয় ডিসকাস থ্রোয়ার বিনোদ কুমার।

এফফিফটিটু ক্যাটাগরিতে গতকালই ব্রোঞ্জ জিতেছিলেন ভারতীয় অ্যাথলিট বিনোদ কুমার। পঞ্চমবারের চেষ্টায় ১৯.৯১ মিটার দূরত্বে ডিসকাস ছুঁড়ে রবিবারই ব্রোঞ্জ ওঠে তাঁর গলায়। গড়েন এশিয়ান রেকর্ডও। কিন্তু সোমবারই সে পদক কেড়ে নেওয়া হল তাঁর থেকে। অভিযোগ, যোগ্যতা ভাঁড়িয়ে প্রতিযোগিতায় নেমেছিলেন বিনোদ। সাধারণত এফ-৫২ অ্যাথলিটদের প্রতিবন্ধকতার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল, দুর্বল পেশী শক্তি, চলাফেরার সীমাবদ্ধতা, অঙ্গের ঘাটতি বা পায়ের দৈর্ঘ্যের পার্থক্য ইত্যাদি। প্যারালিম্পিক্সের ডিসকাস থ্রোর ওই ইভেন্টে সার্ভিকাল কর্ড বা স্পাইনাল কর্ডে চোটের জন্য বসে পারফর্ম করেন অ্যাথলিটরা৷

এদিকে ইভেন্টের ওই বিভাগে প্রতিবন্ধকতার যে মান থাকা উচিৎ, বিনোদের তা ছিল না বলেই অভিযোগ উঠেছিল। ব্রোঞ্জ জয়ের পরই একাধিক দেশের প্রতিদ্বন্দ্বীরা তাঁর প্রতিবন্ধকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন। তখনই প্যারালিম্পিক্স কম্পিটিশন কমিটির তরফ থেকে জানানো হয়েছিল, চূড়ান্তভাবে পদক দেওয়ার আগে বিষয়টি নিয়ে ফের পর্যালোচনা করা হবে। এরপরই সোমবার পর্যালোচনায় বসে প্যারালিম্পিক্স কর্তৃপক্ষ। বিষয়টি খতিয়ে দেখে তারা সিদ্ধান্ত নেয়, প্যারালিম্পিক্সের ওই ইভেন্টে অংশ নেওয়ার কোনও যোগ্যতাই নেই বিনোদের। ফলে সোমবারই ব্রোঞ্জ হাতছাড়া হয়ে গেল এই ভারতীয় ডিসকাস থ্রোয়ারের।

এই ঘটনার ফলে বিনোদের সঙ্গে গোটা দেশও কলঙ্কিত হল। তবে এভাবে নিজের যোগ্যতার বিষয়ে ভুয়ো তথ্য দিয়ে কীভাবে প্যারালিম্পিক্সের মতো এত বড় মঞ্চে অংশ নিতে পারলেন বিনোদ, তা নিয়ে বেশ প্রশ্ন উঠে গিয়েছে।