পোশাকে কালীর ছবি, হিন্দু ধর্মের অবমাননার অভিযোগ টলি অভিনেত্রী সোহিনী সরকারের বিরুদ্ধে

বংনিউজ ডিজিটাল ডেস্ক সেলিব্রিটি মানেই কোন না কোন কারনে তাঁকে বিতর্কিত মন্তব্যের সম্মুখীন হতে হবে। আর এই বিতর্ক পোশাক নিয়েই হোক বা ব্যক্তগত জীবন নিয়ে। সমালোচনার সম্মুখীন হননি এরকম তারকা খুব কমই আছেন। বিভিন্ন বিতর্কের মধ্যে পোশাক সংক্রান্ত সমালোচনার সম্মুখিন বেশি হতে হয়েছে তারকাদের। টলিউডের তুলনায় বলিউডে এই ধরনের বিতর্কের পরিমাণ বেশ খানিকটা বেশি। কিন্তু এবার টলিপাড়াতেও সুরু হল সেই বিতর্কের ঝড়।

বর্তমানে টলিপাড়ার একজন জনপ্রিয় অভিনেত্রী সোহিনী সরকার। এবার বিজেপি শিবিরের নিশানায় পড়লেন এই অভিনেত্রী। অভিনেত্রী সোহিনী সরকারকে নিয়ে বিতর্কের কেন্দ্রেও রয়েছে পোশাক। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে সোহিনী সরকারের বেশ কিছু ছবি। যেখানে দেখা যাচ্ছে তিনি একটি গাউন পরে রয়েছেন যেটিতে মা কালীর মুখের একটি বড় ছবি রয়েছে। আর তা থেকেই শুরু বিতর্ক।

ফেসবুকে পঙ্কজ ঠাকুর নামের এক ব্যক্তি নিজেকে বিজেপি সমর্থক বলে দাবি করে অভিনেত্রীর এই ছবিগুলি শেয়ার করে সোহিনী হিন্দু ধর্মের অবমাননা করেছেন বলে অভিযোগ তোলেন তিনি। আর এই প্রসঙ্গে উঠে আসে তারকেশ্বর মন্দিরের চেয়ারম্যান হিসাবে ফিরহাদ হাকিমকে বসানোর প্রসঙ্গও।

এদিন ফেসবুকে সোহিনীর এই পোশাক পরা নিয়ে পঙ্কজ ঠাকুর নামের ঐ ব্যক্তি যে পোস্টটি শেয়ার করেন তাতে লেখেন, “শাসকদল তৃনমূলের সমর্থিত টলিউডের অভিনেত্রী সোহিনী সরকার। এরা বিশেষ করে হিন্দুদের ধার্মিক ভাবনায় আঘাত করেছে। তার কিছু নমুনা যেমন তারকেশ্বর মন্দিরের চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিমকে বানিয়েছে। কলকাতা তৃণমূল সমর্থিত ক্লাব দুর্গাপুজোর সময় আজানের বাজনা লাগিয়েছিল আর কত হিন্দু ধর্মকে আঘাত হানবে এনারা। সেকুলার সেজে বিশেষ করে হিন্দু ধর্মকে আঘাত হানছে পশ্চিমবঙ্গকে বাংলাদেশ বানানোর চক্রান্ত। সবাই গর্জে উঠুন।“

একাধিক বিজেপি সমর্থকেরা ওই ব্যক্তির পোস্টটিকে সমর্থন করলেও বেশিরভাগ মানুষই এ বিরোধীতা করেছেন। এই পোস্টের বিরোধীতা করে অনেকেই লিখেছেন, “যদি কালীর ছবি দেওয়া পোশাক পরা হিন্দু ধর্মের অবমাননা হয়, তবে তারকেশ্বরে জল ঢালতে যাওয়ার সময় যারা শিবের ছবি দেওয়া গেরুয়া পোশাক পরেন, সেটা কেন অবমাননা নয়?”

আরও পড়ুনঃ  দেশের গন্ডি টপকে এবার সুদূর বিদেশ, মালয়েশিয়ায় কাঁপাল রানু মন্ডলের গান

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.