মঙ্গলের মাটি স্পর্শ করেই একের পর এক ছবি তুলে পাঠাল পারসিভ্যারেন্স রোভার! শেয়ার করল নাসা

মঙ্গলের মাটি স্পর্শ করেই একের পর এক ছবি তুলে পাঠাল পারসিভ্যারেন্স রোভার! শেয়ার করল নাসা
মঙ্গলের মাটি স্পর্শ করেই একের পর এক ছবি তুলে পাঠাল পারসিভ্যারেন্স রোভার! শেয়ার করল নাসা / ছবি সৌজন্যেঃ NASA/JPL-Caltech/ASU/MSSS/NBI-UCPH

বংনিউজ২৪x৭ ডেস্কঃ সৌরজগতের দ্বিতীয় ক্ষুদ্রতম গ্রহ হিসেবে পরিচিত মঙ্গল গ্রহ। যা সূর্য থেকে চতুর্থ স্থানে অর্থাৎ পৃথিবীর পরেই অবস্থান করছেন। এই গ্রহের পৃষ্ঠতলে আয়রন অক্সাইড বেশি থাকার জন্য গ্রহটিকে লালচে রঙের দেখায়। তাই এই গ্রহ টি লালা গ্রহ হিসেবেও পরিচিত আমাদের কাছে।

সম্প্রতি মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা পারসিভ্যারেন্স রোভার পাঠায় মঙ্গল গ্রহের উদ্দেশ্য। আর তা দীর্ঘ সাত মাস পর ১৯ শে ফেব্রুয়ারি সফল ভাবে মঙ্গল গ্রহে অবতারন করে। মঙ্গল গ্রহে অবতারনের সময়ের সব ছবি ক্যাপচার করেছে নাসার পারসিভ্যারেন্স রোভার। আর নাসা সেই সব ছবি শেয়ার করেছে তাদের অনলাইন সাইটে।

প্রসঙ্গত মঙ্গল গ্রহের নানা প্রান্তের ছবি ক্যাপচার করার জন্য নাসার পারসিভ্যারেন্স রোভার এ রয়েছে রেকর্ড ২৫ টি ক্যামেরা। আর নাসার পারসিভ্যারেন্স রোভার এর দ্বারা পাওয়া ছবি থেকে লক্ষ্য করা যাচ্ছে মঙ্গল গ্রহের লাল মাটি, পৃষ্ঠদেশ উঁচুনিচু, এওয়েছে খাদ। একনজরে দেখে মরুভূমি মনে হবে।

মঙ্গল গ্রহে নাসার পারসিভ্যারেন্স রোভার লালা গ্রহের নানা ছবি ক্যাপচার করার সাথে সাথে খোঁজ করবে জলের। এছাড়া কার্বনডাইঅক্সাইড থেকে অক্সিজেন তৈরিরও কাজ করবে বলে জানা যাচ্ছে। এরই সঙ্গে সেখানকার জলবায়ু সম্পর্কে ও মাটির নিচে জীবের প্রান রয়েছে কিনা তা নিয়েও গবেষণা চালাবে নাসা। অন্যদিকে ২০১৩ সালের ৫ই নভেম্বর ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (ইসরো) একটি মঙ্গলযান উৎক্ষেপণ করেন। যা সফল হয়। এই মঙ্গলযান ছিল ভারতের প্রথম আন্তঃগ্রহ অভিযান। ইসরো বিশ্বের চতুর্থ মহাকাশ সংস্থা হিসেবে মঙ্গলগ্রহে পোঁছায়।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.