কৃষ্ণনগরে ভোটের প্রচার শুরু করলেন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী কৌশানী

কৃষ্ণনগরে ভোটের প্রচার শুরু করলেন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী কৌশানী
কৃষ্ণনগরে ভোটের প্রচার শুরু করলেন তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী কৌশানী / নিজস্ব ছবি

নিজস্ব প্রতিনিধি, নদীয়াঃ বেজে গেছে রাজ্যে বিধানসভা ভোটের দামাম। বেশ কিছুদিন হল ঘোষণা হয়েছে তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা। এবারে তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় রয়েছে একঝাঁক তারকা প্রার্থী। এদের মধ্যে রয়েছেন রাজ চক্রবর্তী, সায়নী ঘোষ, জুন মালিয়া, কাঞ্চন মল্লিক, লাভলি মৈত্র, সায়ন্তিকা, কৌশানী প্রমুখ।

সকলেই ব্যস্ত ভোটের প্রচারে। আজ থেকে কৃষ্ণনগরে বিধানসভা ভোটের প্রচারে নেমে পড়লেন কৃষ্ণনগর উত্তরের তৃণমূল কংগ্রেসের তারকা প্রার্থী কৌশানী মুখার্জী। কৌশানী মুখার্জীর নাম প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করার পর, গতকালই তিনি প্রথম কৃষ্ণনগর উত্তর বিধানসভা কেন্দ্রের পা রেখেছেন। তারপর আজ থেকেই নেমে পড়লেন ভোটের প্রচারে।

প্রচারে নেমে অভিনেত্রী কৌশানী মুখার্জী জানিয়েছেন যে, ‘গতকাল আমি বলেছিলাম, গাড়িতে করে নয়, পায়ে হেঁটে মানুষের দরজায় দরজায় পৌঁছাব। আর আজ থেকেই সেই কাজ শুরু করে দিলাম।’ তিনি এও বলেন যে, এই লড়াই বাংলার মানুষের লড়াই, এখানকার যারা স্থানীয় নেতৃত্ব আছেন, তাঁদের কথা শুনে তিনি চলবেন, মানুষের সঙ্গে কথা বলবেন, তাঁদের অভাব-অভিযোগ শুনবেন, কোথায় খামতি রয়েছে বোঝার চেষ্টা করবেন। সেই অনুযায়ী পরবর্তীতে কাজ করবেন তিনি। তিনি বলেন যে, আজ দুটি এলাকায় মানুষের দরজায় দরজায় ঘুরবেন তিনি। পাশাপাশি সিদ্ধেশ্বরী কালী মন্দিরে পুজো দেওয়ার পরিকল্পনাও রয়েছে।

তিনি আজ সাংবাদিকদের বলেন যে, আজ তাঁর একটাই বার্তা থাকবে মানুষের কাছে। আর তা হল, তিনি এসেছেন দিদির উন্নয়নের কাণ্ডারি হয়ে। দিদির হাত শক্ত করতে, এই বিধানসভা ভোট তাঁর নয়, এই ভোট দিদিকে আবারও নবান্নে ফেরানোর লড়াই। এটা বাংলার মানুষের লড়াই। তাই এই লড়াই নিজেদের মধ্যে নয়। সকলে মিলে একটা যৌথ পরিবার। এক পরিবারে পাঁচটা বাসন থাকলে আওয়াজ তো হবেই। তবে দিনের শেষে, যখন ঘরে ফেরে সকলে, তখন আবার সবটা নিজেদের মধ্যে মিটিয়েও নেওয়া হয়।

তিনি এও বলেন যে, এখনই তিনি বিরোধী নিয়ে ভাবছেন না। আগে তিনি যে কাজ করতে এসেছেন, দিদি যে কাজের জন্য তাঁকে পাঠিয়েছেন সেটা ঠিকমতো সম্পন্ন করতে চান। মানুষের কাছে পৌঁছাতে চান। মানুষের কথা শুনতে চান। পরে বিরোধী নিয়ে ভাববেন। তাছাড়া মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন মাথার উপরে আছেন, তখন ভয় কিসের, জয় আসবেই। তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, এবারও তৃণমূলই সরকার গঠন করবে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই আবারও মুখ্যমন্ত্রী হবেন বাংলার।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.