বৃহস্পতিবার, ১৯ মে, ২০২২

স্বামীরা সময় দেয় না, একঘেয়ে সংসার! ভালোবাসার খোঁজেই রাজমিস্ত্রীর সঙ্গে মুম্বই পাড়ি বালির ২ বধূর

০২:৩১ পিএম, ডিসেম্বর ২৩, ২০২১

স্বামীরা সময় দেয় না, একঘেয়ে সংসার! ভালোবাসার খোঁজেই রাজমিস্ত্রীর সঙ্গে মুম্বই পাড়ি বালির ২ বধূর

১৫ ডিসেম্বর শীতের পোশাক কিনতে বেরিয়ে নিখোঁজ হয়ে যান বালির নিশ্চিন্দার বাসিন্দা দুই গৃহবধূ অনন্যা কর্মকার, তাঁর জা রিয়া কর্মকার। সঙ্গে ছিল রিয়ার সাত বছরের ছেলে আয়ুষও। এরপরই নিশ্চিন্দা থানার তরফে শুরু হয় তাঁদের খোঁজ। বুধবার আসানসোল স্টেশন থেকে তাঁদের সকলকেই ফিরিয়ে আনা হয়। জানা যায়, দুই রাজমিস্ত্রী শেখর রায় ও শুভজিৎ দাসের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠেছিল দুই গৃহবধূর। তার জেরেই রাজমিস্ত্রীদের সঙ্গে মুম্বই পাড়ি দেন তাঁরা। ধরা পড়তেই এবার পুলিশের কাছে মুখ খুললেন দুই জা। জানালেন তাঁদের ঘর ছাড়ার আসল কারণ।

অনন্যা ও রিয়া, দুই গৃহবধূ পুলিশকে জানিয়েছেন, একঘেয়ে সংসারের হাত থেকে মুক্তি পেতে ভালোবাসার খোঁজেই মুম্বই পাড়ি দিয়েছিলেন তাঁরা। অনন্যার কথায়, জা রিয়ার সন্তান থাকলেও দীর্ঘ আট বছর বিয়ের পরও তাঁর কোনও সন্তান হয়নি। অন্যদিকে কাজে ব্যস্ত স্বামী তাঁকে বেশি সময়ও দিতে পারতেন না। সব মিলিয়ে গতানুগতিক সংসারের একঘেয়েমি গ্রাস করেছিল তাঁকে। জা রিয়ার সন্তান থাকলেও তাঁর স্বামীরও ছিল সময়ের অভাব। ফলে তাঁর মনেও তৈরি হয়েছিল বিরক্তি ও আক্ষেপ।

এই সময়ই রাজমিস্ত্রি শেখর এবং শুভজিতের সঙ্গে আলাপ হয় দুই জা-র। মুর্শিদাবাদের সুতির বাসিন্দা দুই রাজমিস্ত্রি সহজেই মন জয় করে নেন দুই বধূর। শেখর এবং শুভজিৎ দু’জনেই ছিলেন মিষ্টভাষী। সকলের সঙ্গে সহজে মিশতে পারতেন। তাঁদের প্রাথমিক আলাপ ক্রমে ঘনিষ্ঠতায় পরিণত হয়। শেষ পর্যন্ত তাঁদের হাত ধরে ঘর ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলে কর্মকার বাড়ির দুই বধূ। ছেলে আয়ূষকে সঙ্গে নিয়ে শেখর ও শুভজিতের সঙ্গে মুম্বই পাড়ি দেন তাঁরা।

এরপর সন্তান সহ দুই গৃহবধূ নিখোঁজ হতেই বলে থানায় অভিযোগ দায়ের করে পরিবার। তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পারে, নিখোঁজ নন, ওই দুই গৃহবধূ পলাতক। পরে মোবাইল ট্র্যাক করে জানা যায় রাজমিস্ত্রীদের সঙ্গে পালিয়ে গিয়েছিলেন তাঁরা এরপরই। আসানসোল থেকে হাওড়ার নিশ্চিন্দা থানায় ফিরিয়ে আনা হয় তাঁদের। তারপরই পুলিশের কাছে নিজেদের ঘর ছাড়ার পিছনের রহস্য ফাঁস করেন দুই গৃহবধূ।