সমুদ্রপথকে আরও সুরক্ষিত করতে মোদী দিলেন এই পাঁচ প্রস্তাব! সহমত পোষণ নিরাপত্তা পরিষদেরও

সমুদ্রপথকে আরও সুরক্ষিত করতে মোদী দিলেন এই পাঁচ প্রস্তাব! সহমত পোষণ নিরাপত্তা পরিষদেরও
সমুদ্রপথকে আরও সুরক্ষিত করতে মোদী দিলেন এই পাঁচ প্রস্তাব! সহমত পোষণ নিরাপত্তা পরিষদেরও

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ গতকালই রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ‘সামুদ্রিক নিরাপত্তা বৃদ্ধি-আন্তর্জাতিক সহযোগিতা’-র অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যোগ দেন তিনি এবং বিতর্ক সভায় পৌরহিত্য করেন।

এই বৈঠকে বিশ্ব অর্থনীতির ক্ষতি, এবং জীবনহানি কমাতেই সমুদ্র পথে নিরাপত্তা আরও সুদৃঢ় করতে প্রত্যেক দেশকে এগিয়ে আসতে হবে। সোমবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পৌরহিত্যে সামুদ্রিক পথে নিরাপত্তা নিয়ে রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে আলোচনার শেষে এই বার্তাই দেওয়া হল রাষ্ট্রপুঞ্জের পক্ষ থেকে। নিরাপত্তা পরিষদের সভাপতির পক্ষ থেকে জারি করা বিবৃতিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলা হয়েছে যে, সমুদ্র পথে বাণিজ্যিক বা যাত্রী পরিবহণ বা পরিকাঠামো নির্মাণ সংক্রান্ত কাজ চলাকালীন জলদস্যুদের হানা-সহ অন্যান্য অপরাধ ক্রমশ বেড়েই চলেছে।

তাই এদিনের বৈঠকে আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বারবার সমুদ্রপথে নিরাপত্তা আরও বৃদ্ধির উপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন। আর সমুদ্রপথে নিরাপত্তা আরও বাড়াতে এবং নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে সহযোগিতা বাড়ানোর আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। কালকের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্র নেতারা। নিত্রাপত্তা পরিষদের বৈঠকে জলসিমা নিয়ে বিভিন্ন দেশের মধ্যে থাকা বিবাদের নিষ্পত্তির উপরেও জোর দিয়েছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

উচ্চ পর্যায়ের এই আলোচনা সভা শেষে নিরাপত্তা পরিষদের পক্ষ থেকে জারি করা বিবৃতিতেও এই একই বার্তা দেওয়া হয়। সেখানেও অভিযোগ করা হয়েছে যে, সমুদ্রপথে শুধুমাত্র জলদস্যুদের হানা, লুঠপাট, আন্তর্জাতিক জল্পথ ব্যবহার করে, মাদক, মানুষ এবং অস্ত্র পাচারের মতো গুরুতর অপরাধও ক্রমাগত বাড়ছে। তাই আন্তর্জাতিক জল্পথ ব্যবহার করে এই ধরনের সংগঠিত অপরাধ বন্ধ করার জন্য সদস্য দেশগুলিকে আরও সচেতন এবং তৎপর হওয়ার আবেদনও জানানো হয়েছে।

নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকের আলোচনা সভায় মূলত পাঁচটি বিষয়ের উপরে জোর দেন নরেন্দ্র মোদী। সেগুলি হল- সমুদ্রপথে বৈধ বাণিজ্যিক লেনদেনে সমস্ত বাধা দূর করতে হবে। আন্তর্জাতিক আইন মেনে, সমুদ্রপথে যাবতীয় বিবাদের নিষ্পত্তি প্রয়োজন। জলদস্যুদের হানার মতো ঘটনা এড়াতে বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলিকেও এগিয়ে আসতে হবে৷ প্রধানমন্ত্রী এই বিষয়ে উল্লেখ করেন যে, ২০০৮ সাল থেকে এই বিষয়ে অগ্রণী ভূমিকা নিয়েছে ভারতীয় নৌবাহিনী৷

প্রধানমন্ত্রী এও বলেন যে, শুধুমাত্র জলপথে নিরাপত্তার দিকেই নজর রাখা নয়, অপরাধ দমনের জন্য ভারতীয় নৌবাহিনী অন্যান্য দেশের বাহিনীকেও প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও পাশাপাশি জলবায়ু পরিবর্তনের দিকে নজর রেখে, সামুদ্রিক সম্পদকে রক্ষা করারও পরামর্শ দিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি৷ সমুদ্রপথে বাণিজ্যিক লেনদেন বৃদ্ধিতে পরিকাঠামো তৈরির জন্য যাতে আন্তর্জাতিক স্তরে সঠিক নিয়মবিধি তৈরি হয়, সেই প্রস্তাবও দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রতিটি দেশ নিজের নিজের ক্ষমতা অনুযায়ী যাতে সমুদ্রপথে পরিকাঠামো নির্মাণে এগিয়ে আসে, সেই প্রস্তাবও দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।