‘দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে একমাত্র ওষুধ টিকাকরণ’, টিকাকরণকে জোরদার করতে পরামর্শ অর্থমন্ত্রীর

‘দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে একমাত্র ওষুধ টিকাকরণ’, টিকাকরণকে জোরদার করতে পরামর্শ অর্থমন্ত্রীর
‘দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে একমাত্র ওষুধ টিকাকরণ’, টিকাকরণকে জোরদার করতে পরামর্শ অর্থমন্ত্রীর

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ করোনার বিরুদ্ধে লড়াইটা এখনও জারি রয়েছে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এখন অনেকটাই স্তিমিত। এর মধ্যেই আবার করোনার তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার আশঙ্কাও করা হচ্ছে। কেরল এবং মহারাষ্ট্রের করোনা পরিস্থিতি নতুন করে ভাবাচ্ছে। এদিকে, ডিসেম্বরের মধ্যেই সকল প্রাপ্তবয়স্কদের টিকা দেওয়ার লক্ষ্য রয়েছে কেন্দ্রীয় সরকারের। সেই টিকাকরণ কর্মসূচিকে আরও জোরদার করতে এবার কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন দিলেন বিশেষ পরামর্শ। তিনি বললেন, ‘দেশের অর্থনীতিকে চাঙ্গা করে তোলার একমাত্র ওষুধ হল টিকাকরণ।’

রবিবার তামিলনাড়ুর তুতিকোরিনে তামিলনাড়ু মেরক্যান্টাইল ব্য়াঙ্কের বর্ষপূর্তির অনুষ্ঠানেই অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘দেশের অর্থনীতির হাল ফেরাতে হলে করোনা টিকাকরণের উপর আরও বেশি করে জোর দেওয়া প্রয়োজন। তার অন্যতম কারণ, টিকাকরণ সম্পূর্ণ হলেই সব ধরনের ব্যবসা-বাণিজ্য ফের একবার আগের ছন্দে ফিরতে পারবে। পাশাপাশি কৃষকরাও তাঁদের কৃষিকাজ স্বাভাবিকভাবে শুরু করতে পারবেন।’

তিনি আরও বলেন যে, ‘দেশের টিকাকরণ কর্মসূচি বিনা বাধায় এগোচ্ছে। এখনও অবধি মোট ৭৩ কোটি মানুষ বিনামূল্যে করোনা টিকা নিয়েছেন। টিকাকরণ কর্মসূচির মাধ্যমেই আজ মানুষ ব্য়বসা বাণিজ্য করতে পারছে, ফলে দেশের অর্থনীতিরও হাল ফিরছে। কৃষকরা কৃষিকাজে মন লাগাতে পারছেন। সুতরাং করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে এবং দেশের অর্থনীতির হাল ফেরাতে টিকাকরণই একমাত্র ওষুধ।’

উল্লেখ্য, রবিবারই তামিলনাড়ুর স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তরফে জানানো হয় যে, মেগা ভ্যাকসিনেশন ক্য়াম্পের মাধ্যমে দৈনিক ২০ লক্ষ মানুষকে টিকা দেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে। এর জন্য রাজ্য়জুড়ে ৪০ হাজারেরও বেশি ক্যাম্প তৈরি করা হয়েছে।

উৎসবের মরশুমেই তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এই সম্ভাবনা নিয়ে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সকলেই প্রার্থনা করছি যে, তৃতীয় ঢেউ যেন না আসে। যদি আগামিদিনে তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ে, তবে আমাদের ভাবতে হবে কত হাসপাতাল চিকিৎসার জন্য প্রস্তুত, হাসপাতাল পাওয়া গেলেও, সেখানে আইসিইউ রয়েছে কিনা, বা আইসিইউ থাকলেও সেখানে অক্সিজেন ব্যবস্থা রয়েছে কিনা, তা আমাদের দেখতে হবে। এই সমস্ত প্রশ্নের উত্তরে অর্থমন্ত্রকের তরফে একটি প্রকল্পের ঘোষণা করা হয়েছে, যার অধীনে হাসপাতালের পরিকাঠামোর ব্যপক উন্নয়ন করা সম্ভব।’

অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন আরও জানিয়েছেন, অর্থমন্ত্রকের এই প্রকল্পের সাহায্য়ে গ্রামীণ অঞ্চলগুলিতে হাসপাতালের পরিকাঠামোর উন্নয়ন সাধন করা হয়েছে। দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কা সামাল দিয়ে, এই পরিকাঠামোর উন্নয়ন অত্যন্ত জরুরি বলেই তিনি জানিয়েছেন।