‘কৃষকদের বোঝাতে পারিনি’, কৃষি আইনের প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে প্রতিক্রিয়া আদিত্যনাথের

‘কৃষকদের বোঝাতে পারিনি’, কৃষি আইনের প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে প্রতিক্রিয়া আদিত্যনাথের
‘কৃষকদের বোঝাতে পারিনি’, কৃষি আইনের প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে প্রতিক্রিয়া আদিত্যনাথের

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ আজ ছিল গুরু নানকের জন্মদিন। আর আজকের দিনেই বড় ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কেন্দ্রের বিতর্কিত তিন কৃষি আইন প্রত্যাহার করল কেন্দ্র। কাজেই স্বাভাবিকভাবেই এতদিন ধরে কৃষকদের আন্দোলন সফল হল বলা যায়।

গুরু নানকের জন্মদিন গুরুপরবে আজ সকালে এই ঘোষণা করেন মোদী। মোদী তাঁর ভাষণে বলেন, ‘হয়তো আমাদের তপস্যায় কিছুর অভাব ছিল, যে কারণে আমরা কৃষকদেরকে এই আইন সম্পর্কে বোঝাতে পারিনি। তবে আজ প্রকাশ পর্ব, কাউকে দোষারোপ করার সময় নয়। আজ আমি দেশকে বলতে চাই যে আমরা তিনটি কৃষি আইন বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি’।

আজ প্রত্যাহারের ঘোষণার পরেই আন্দোলনরত কৃষকদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী অনুরোধের সুরে বলেন, ‘এবার আপনারা বাড়ি ফিরে যান।’ আজ প্রধানমন্ত্রী জানান যে, সংসদের আসন্ন অধিবেশনেই এই তিন বিতর্কিত কৃষি আইন প্রত্যাহারের আইনি প্রক্রিয়া শুরু হবে।

বস্তুত ২০২২ এবং ২৩-এ দেশের মধ্যে একাধিক বিধানসভা নির্বাচন রয়েছে। সেই নির্বাচনের রেশ কাটতে না কাটতেই ২০২৪-এ রয়েছে লোকসভা নির্বাচন। তাই এইসব নির্বাচনকে মাথায় রেখেই মাস্টারস্ট্রোক দিলেন প্রধানমন্ত্রী। এমনটাই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালে তিন কৃষি বিল সংশোধন করে আইনে পরিণত করে কেন্দ্রের মোদী সরকার। বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতারা প্রতিবাদ জানালেও, তাঁদের দাবিটে কর্ণপাত করা হয়নি। এরপরই দিল্লি, পঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, রাজস্থানে তুমুল প্রতিবাদ-বিক্ষোভ শুরু হয়। আজ এই আইন প্রত্যাহার করার কথা ঘোষণার পরই, বিক্ষোভের অন্য ছবি সামনে আসে। কৃষকদের মধ্যে উচ্ছ্বাস ধরা পড়েছে। শুরু হয় মিষ্টি, লাড্ডু বিতরণ।

এই কৃষি আইন প্রত্যাহারের পর অনেকেই তাঁদের প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন, সেই তালিকায় রয়েছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথও। মোদীর সুরে সুর মিলিয়ে এইদিন তাঁর মত যে, সবরকম চেস্তার পরেও, সরকার কৃষকদের বোঝাতে ব্যর্থ হয়েছে। যোগী আদিত্যনাথ বলেন, ‘সরকার প্রতিটি স্তরে কৃষকদের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু আমাদের পক্ষ থেকে কিছু ঘাটতির কারণে আমরা জনগণের কাছে নিজেদের বক্তব্য ব্যাখ্যা করতে ব্যর্থ হয়েছি।’

এখানেই শেষ নয়, তিনি আরও বলেন, ‘আন্তরিকভাবে উত্তরপ্রদেশ সরকারের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর তিনটি কৃষি আইন প্রত্যাহারকে স্বাগত জানাই।’ মুখ্যমন্ত্রী বিল প্রত্যাহারকে একটি ঐতিহাসিক পদক্ষেপ বলেছেন এবং এর পাশাপাশি এই সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দনও জানিয়েছেন।