সুখবর! যাত্রীদের সুবিধার্থে একধাক্কায় কমতে পারে ১৭০০টি ট্রেনের ভাড়া, কত শতাংশ কমছে?

সুখবর! যাত্রীদের সুবিধার্থে একধাক্কায় কমতে পারে ১৭০০টি ট্রেনের ভাড়া, কত শতাংশ কমছে? / প্রতীকী ছবি
সুখবর! যাত্রীদের সুবিধার্থে একধাক্কায় কমতে পারে ১৭০০টি ট্রেনের ভাড়া, কত শতাংশ কমছে? / প্রতীকী ছবি

করোনা আবহে দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল লোকাল বা এক্সপ্রেস সমস্ত ট্রেন চলাচল। সেসময় লকডাউন পরবর্তীকালে কিছু প্যাসেঞ্জার, মেল ও এক্সপ্রেস ট্রেনকে স্পেশাল ট্রেনের তকমা দিয়ে চালানো শুরু হয়েছিল। তবে পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে আসায় বর্তমানে ট্রেন চলাচল ফের আগের মতোই স্বাভাবিক হয়ে গিয়েছে। ফলে স্পেশাল ট্রেনের তকমা মুছে পূর্বের মতো সাধারণভাবে প্যাসেঞ্জার, মেল এবং এক্সপ্রেস ট্রেন চালাতে উদ্যোগী হয়েছে ভারতীয় রেল। এর জেরেই এবার একধাক্কায় প্রায় ১৭০০টি ট্রেনের ভাড়া কমতে পারে বলে সূত্রের খবর।

করোনাকালীন সময়ে মূলত ভীড় এড়ানোর জন্যই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছিল ভারতীয় রেল। তবে যেহেতু ট্রেন চলাচল আবার আগের মতো স্বাভাবিক হয়ে গিয়েছে তাই যাত্রী ভাড়াও কমছে। আগের মূল্য অনুযায়ীই এবার টিকিটের ভাড়া হতে চলেছে। জানা গিয়েছে, একধাক্কায় প্রায় ১৫ শতাংশ কমতে চলেছে ট্রেনের ভাড়া। প্রায় ১৭০০টি ট্রেনের ভাড়া কমতে পারে সূত্রের খবর। এর ফলে যাত্রীরা উপকৃত হবে বলেই মনে করছে রেল কর্তৃপক্ষ।

সুখবর! যাত্রীদের সুবিধার্থে একধাক্কায় কমতে পারে ১৭০০টি ট্রেনের ভাড়া, কত শতাংশ কমছে? / প্রতীকী ছবি
সুখবর! যাত্রীদের সুবিধার্থে একধাক্কায় কমতে পারে ১৭০০টি ট্রেনের ভাড়া, কত শতাংশ কমছে? / প্রতীকী ছবি

রেল সূত্রে জানা গিয়েছে, চলতি অর্থবর্ষের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ভাড়া বাবদ ১৫,৪৩৪.১৮ কোটি টাকা আয় করেছে ভারতীয় রেল। এছাড়াও ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে মোট ৪১৭৩.৫২ মিলিয়ান যাত্রীবহন করে ভাড়া বাবদ ভাড়া বাবদ ভারতীয় রেলের আয় হয়েছে মোট ২৬,৬৪২.৭৩ কোটি।

প্রসঙ্গত, রেল কর্তৃপক্ষের তরফে জানা গিয়েছে, গত রবিবার থেকে আগামী সাত দিনের জন্য রাতে ৬ ঘণ্টা করে বন্ধ থাকবে প্যাসেঞ্জার রিজার্ভেশন সিস্টেম। রাত সাড়ে ১১টা থেকে ভোর সাড়ে ৫টা পর্যন্ত ট্রেনের এই টিকিট সংরক্ষণ ব্যবস্থা বন্ধ থাকবে। ওই সময়ে টিকিট কাটা যাবে না। করা যাবে না টিকিট বাতিলও। ট্রেন ও সংরক্ষণ সংক্রান্ত বিষয়েও জানতে পারবেন না যাত্রীরা। মোট কথা, ওই সময়ে রেলের তরফে অনলাইন হোক বা অফলাইনে, টিকিট সংক্রান্ত কোনও পরিষেবাই দেওয়া হবে না।

গত ১৪ ও ১৫ নভেম্বর মধ্যরাত থেকে ৬ ঘণ্টার জন্য পরিষেবা বন্ধ হয়েছে, যা চলবে ২০ ও ২১ নভেম্বর মধ্যরাত পর্যন্ত। কোভিড পূর্ববর্তী অবস্থায় ফিরতে ও যাত্রী পরিষেবা স্বাভাবিক করতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে ভারতীয় রেল। রেলের তরফে আরও জানানো হয়েছে, ওই সময়ে সিস্টেমের উন্নতিকরণ ও নতুন ট্রেন নম্বর সংযোজন করার কাজ চলবে। তবে রাতে পরিষেবা বন্ধ থাকলেও অনুসন্ধান কেন্দ্রে যোগাযোগ করতে পারবেন যাত্রীরা। ১৩৯ নম্বরে ফোন করে ট্রেন সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয়ে খোঁজ নেওয়া যাবে।