শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর, ২০২২

মৃত্যু কেড়ে নিয়েছে প্রেমিকাকে! নিয়তিকে তুচ্ছ করে প্রেমিক যা করলেন দেখে চোখে জল নেটদুনিয়ার

মৌসুমী মোদক

প্রকাশিত: নভেম্বর ২২, ২০২২, ১১:৪১ এএম | আপডেট: নভেম্বর ২২, ২০২২, ১১:৪১ এএম

মৃত্যু কেড়ে নিয়েছে প্রেমিকাকে! নিয়তিকে তুচ্ছ করে প্রেমিক যা করলেন দেখে চোখে জল নেটদুনিয়ার
মৃত্যু কেড়ে নিয়েছে প্রেমিকাকে! নিয়তিকে তুচ্ছ করে প্রেমিক যা করলেন দেখে চোখে জল নেটদুনিয়ার

রবিবার মৃত্যু হয়েছে টলিপাড়ার জনপ্রিয় অভিনেত্রী ঐন্দ্রিলা শর্মার। মারণরোগের বিরুদ্ধে দীর্ঘ দিন লড়াই করে রবিবার দুপুরে অজানার উদ্দেশে পাড়ি দিয়েছেন তিনি। অভিনেত্রীর মৃত্যুর পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়াতে তাঁর এবং সব্যসাচী চৌধুরীর প্রেম সম্পর্কিত নানা ভিডিও, খবর, ছবি ঘুরপাক খাচ্ছে।এই আবহেই প্রকাশ্যে এসেছে অন্য এক ভালবাসার গল্প।

সব্যসাচীর মতো প্রেমিকাকে হারিয়েছেন আরও এক প্রেমিক। সেই কাহিনীও যথেষ্ট বেদনাদায়ক। অসমের গুয়াহাটির বাসিন্দা বিটুপন তামুলী। দীর্ঘ দিন ধরে তাঁর প্রেম প্রার্থনা বোরার সঙ্গে। ২৭ বছর বয়সি বিটুপনের বাড়ি অসমের মরিগাঁওয়ে। প্রার্থনার বয়স হয়েছিল ২৫। তিনি চাপারমুখের কসুয়া গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন।

সম্প্রতি প্রার্থনাকে হারিয়েছেন বিটুপন। তাঁকে ছেড়ে চিরতরে চলে গিয়েছেন প্রার্থনা। প্রার্থনা বেশ কয়েক দিন ধরে অসুস্থ হয়ে অসমের এক বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। অনেক দিন ধরেই প্রার্থনার চিকিৎসা চলছিল। চিকিৎসকদের কথা শুনে মেয়ের পরিণতি সম্পর্কে অবগত ছিলেন বাবা-মা। অবগত ছিলেন বিটুপনও। কিন্তু প্রার্থনার বাবা-মার মতোই এক মুহূর্তের জন্যও তাঁর পাশ ছেড়ে যাননি বিটুপন।

কিন্তু আপ্রাণ চেষ্টা করেও তাঁকে আটকে রাখতে পারলেন না প্রেমিক। দীর্ঘ লড়াইয়ের পর শুক্রবার অসুস্থতার কারণে হাসপাতালেই মৃত্যু হয়েছে প্রার্থনার। দুই পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে বিটুপন এবং প্রার্থনা দীর্ঘদিন ধরে প্রেম করতেন। শীঘ্রই বিয়ের পরিকল্পনাও করেছিলেন তাঁরা। কিন্তু সব্যসাচীর মতো পরিণতি পায়নি বিটুপনের ভালবাসাও। কিন্তু প্রার্থনার মৃত্যুর পরই তিনি যা ঘটালেন তা দেখে চোখে জল আসতে বাধ্য!

প্রার্থনার মৃত্যুর পর তাঁর দেহের সামনে বসে হাউ হাউ করে কাঁদতে শুরু করেন বিটুপন। একটু সামলিয়ে দৌড়ে বাইরে বেরিয়ে যান তিনি। কিছু ক্ষণ পরে ফিরে আসেন বিয়ের সরঞ্জাম নিয়ে। সিঁদুর-মালা হাতে প্রার্থনার দেহের সামনে বসে পড়েন বিটুপন। কান্না থামিয়ে দৃঢ় মুখে প্রার্থনার সিঁথিতে সিঁদুর পরিয়ে দেন তিনি। এর পর গালে সিঁদুর লাগিয়ে প্রার্থনার গলায় মালাও পরিয়ে দেন। প্রার্থনার হাতে ছুঁইয়ে নিজেও একটা মালা পরে নেন বিটুপন।

বিয়ের প্রাথমিক আচার -অনুষ্ঠান শেষ করে স্পষ্ট ভাষায় জোরে জোরে চিৎকার করে বলেন, ‘‘আমার বিয়ে হয়ে গিয়েছে। এই জন্মে আমি আর কাউকে বিয়ে করব না।’’ এই কথা শুনে উপস্থিত সকলেই কান্নায় ভেঙে পড়েন। বিটুপন-প্রার্থনার এই ভিডিও ইতিমধ্যেই ভাইরাল নেটমাধ্যমে। যা দেখে চোখের জলে ভেসেছেন নেটিজেনরাও। সকলেই বলাবলি করছেন, ঠিক যেন সব্যসাচী-ঐন্দ্রিলার মতোই এঁদের প্রেম।