মৃদু উপসর্গ ও বাড়িতে কোয়ারান্টিন? ২৪ ঘন্টা বিনামূল্যে পরিষেবা দিচ্ছেন বাংলার এই চিকিৎসকরা!

মৃদু উপসর্গ ও বাড়িতে কোয়ারান্টিন? ২৪ ঘন্টা বিনামূল্যে পরিষেবা দিচ্ছেন বাংলার এই চিকিৎসকরা!
মৃদু উপসর্গ ও বাড়িতে কোয়ারান্টিন? ২৪ ঘন্টা বিনামূল্যে পরিষেবা দিচ্ছেন বাংলার এই চিকিৎসকরা!

সামান্য জ্বর বা মাথা ভার! মাঝেমধ্যে গলা খুশখুশ! এড়িয়ে যাবেন না। করোনার প্রাথমিক উপসর্গ কিন্তু এগুলোই। কখনও কখনও কোনও উপসর্গই হয়তো নেই। কিন্তু পরীক্ষা করালেই রিপোর্ট আসছে পজিটিভ। এই অবস্থায় এখন যথারীতি আতঙ্কের মধ্যেই দিন কাটাচ্ছেন সাধারণ মানুষ। কেউ কেউ ঘরবন্দী অবস্থায় আইসোলেটেড রয়েছেন। কিন্তু সেসময় যদি কেউ বিপদে পড়েন? যদি তৎক্ষনাৎ প্রয়োজন হয় চিকিৎসকের পরামর্শের? তাহলে?

করোনায় বিপর্যস্ত দেশের মানুষের স্বার্থে সম্প্রতি একটি অভিনব উদ্যোগ নিয়েছে ওয়েস্ট বেঙ্গল ডক্টরস ফোরাম। এই পরিস্থিতিতে যাঁদের মৃদু উপসর্গ রয়েছে বা হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন যাঁরা, তাঁদের দিকেই সাহায্যের হাত বাড়িয়েছে ওয়েস্ট বেঙ্গল ডক্টরস ফোরাম। এবার থেকে বাড়িতে বসেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে পারবেন সারা দেশের মানুষ। মাত্র একটা ফোন কলেই মিলবে নিরাময়। আরও ভালো খবর, এই পরিষেবা চালু থাকবে ২৪ ঘন্টাই। বাংলার মোট ৮০ জন চিকিৎসকের থেকে যে কোনও সময় পরামর্শ নিতে পারবেন দেশের সাধারণ মানুষ। তাও আবার বিনামূল্যে।

মৃদু উপসর্গ ও বাড়িতে কোয়ারান্টিন? ২৪ ঘন্টা বিনামূল্যে পরিষেবা দিচ্ছেন বাংলার এই চিকিৎসকরা!
মৃদু উপসর্গ ও বাড়িতে কোয়ারান্টিন? ২৪ ঘন্টা বিনামূল্যে পরিষেবা দিচ্ছেন বাংলার এই চিকিৎসকরা!

সম্প্রতি চিকিৎসকের নাম ও তাঁদের ফোন নম্বর দিয়ে তৈরি করা একটি তালিকা ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। পরামর্শ দেওয়ার জন্য চিকিৎসক কোন সময়ে খালি রয়েছেন, তালিকায় সে ব্যাপারেও উল্লেখ করা হয়েছে। এই মুহূর্তে দেশের বহু মানুষই করোনা আক্রান্ত। কারোর মৃদু উপসর্গ আবার কারোর হয়তো উপসর্গই নেই। গুরুতর অসুস্থ না থাকায় অনেকেই বাড়িতে চিকিৎসাধীন। বন্দী হোম আইসোলেশনে। এই অবস্থায় মাঝেমধ্যেই প্রয়োজন পড়ছে চিকিৎসকের পরামর্শের। সে ক্ষেত্রে বাংলার এই ৮০ জন চিকিৎসকের যে কাউকে ফোন করেই তাঁদের থেকে বিনামূল্যে পরিষেবা নিতে পারবেন সাধারণ মানুষ। ভয়ে কিছুটা হলেও চিন্তামুক্ত হবেন তাঁরা। কমবে অযথা আতঙ্ক। মনে আসবে সাহস।

মৃদু উপসর্গ ও বাড়িতে কোয়ারান্টিন? ২৪ ঘন্টা বিনামূল্যে পরিষেবা দিচ্ছেন বাংলার এই চিকিৎসকরা!
মৃদু উপসর্গ ও বাড়িতে কোয়ারান্টিন? ২৪ ঘন্টা বিনামূল্যে পরিষেবা দিচ্ছেন বাংলার এই চিকিৎসকরা!

প্রসঙ্গত, তালিকাটি প্রথমে ফেসবুকে শেয়ার করেন চিকিৎসক অর্জুন দাশগুপ্ত। তিনি লেখেন, “করোনা পরিস্থিতিতে উপসর্গহীন, মৃদু উপসর্গ ও বাড়িতে কোয়ারান্টিনে করোনা রোগীদের সাহায্য করতে ডাক্তারদের তরফে WBDF-এর উদ্যোগ। এটি শুধুই ডাক্তারি পরামর্শের জন্য। বেড, অ্যাম্বুলেন্সের অভাবে নির্দিষ্ট সরকারি হেল্পলাইনে দয়া করে যোগাযোগ করুন। একটাই অনুরোধ এই নম্বরগুলি অন্য কোনও কাজে ব্যবহার করবেন না। আর ডাক্তাররা ব্যস্ত থাকলে লিস্ট দেখে পরের জনকে যোগাযোগ করুন। সুস্থ থাকুন, সঙ্গে থাকুন।”

মৃদু উপসর্গ ও বাড়িতে কোয়ারান্টিন? ২৪ ঘন্টা বিনামূল্যে পরিষেবা দিচ্ছেন বাংলার এই চিকিৎসকরা!
মৃদু উপসর্গ ও বাড়িতে কোয়ারান্টিন? ২৪ ঘন্টা বিনামূল্যে পরিষেবা দিচ্ছেন বাংলার এই চিকিৎসকরা!

অভিনব এই উদ্যোগটি যে এর মধ্যেই বেশ সফল হয়ে উঠেছে, তা বলাই বাহুল্য। চিকিৎসক নিজেই জানিয়েছেন, “প্রথম এক ঘণ্টায় ২০ টা ফোন এসেছে। সামান্য কিছু ডাক্তারি উপদেশ তাতেই কত যে ধন্যবাদ কুড়োলাম। আমরা নিজেরাই কৃতজ্ঞ, অভিভূত WBDF এর এই প্রচেষ্টায় যুক্ত হতে পেরে।” শহরের আরও বহু নামী দামী চিকিৎসকই জড়িত এই উদ্যোগে। প্রত্যেকেই নিজের সাধ্যমতো চেষ্টা করছেন মানুষের পাশে থাকার। তাঁদের পরামর্শ দেওয়ার। ধর্ম-বর্ণ-রাজনৈতিক বিশ্বাস নির্বিশেষে সারা দেশের সাধারণ মানুষ যে এই উদ্যোগে অভাবনীয় সাড়া দিয়েছেন, ভুল ধারণা ত্যাগ করে সঠিক পরামর্শ মেনে চলছেন, তাতেই বেশ উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে চিকিৎসকদের মুখ।

আপনাদের মতামত জানাতে কমেন্ট করুন.