শনিবার, ২৯ জানুয়ারি, ২০২২

রাজ্যে ঘনাচ্ছে দুর্যোগ! এই দিন থেকেই প্রবল বৃষ্টির আশঙ্কা শহরে, কী বলছে হাওয়া অফিস

০৯:১৯ পিএম, ডিসেম্বর ৩, ২০২১

রাজ্যে ঘনাচ্ছে দুর্যোগ! এই দিন থেকেই প্রবল বৃষ্টির আশঙ্কা শহরে, কী বলছে হাওয়া অফিস

বংনিউজ ২৪x৭ ডিজিটাল ডেস্কঃ ক্রমশ শক্তি বাড়াচ্ছে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ। পূর্বাভাস অনুযায়ী, শনিবার তা আছড়ে পড়বে ওড়িশা ও অন্ধপ্রদেশের উপকূলবর্তী অঞ্চলে। ইতিমধ্যেই তার অবস্থান দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগর লাগোয়া পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগরে। আগামী ১২ ঘণ্টায় তা পরিণত হবে ঘূর্ণিঝড়ে। জানা গিয়েছে, শনিবার সকালেই আছড়ে পড়বে জাওয়াদ।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে রাজ্যে প্রবল দুর্যোগের পূর্বাভাস দিল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। আগামিকাল, শনিবার ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টি হবে পূর্ব মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, হাওড়া, হুগলি-সহ দক্ষিণবঙ্গের সব জেলাতেই। রবিবার অতিভারী বৃষ্টির আশঙ্কা কলকাতায়। সঙ্গে ঝোড়া হওয়া। আজ থেকেই মৎস্যজীবীদের সমুদ্রযাত্রায় জারি করা হল নিষেধাজ্ঞা। পর্যটকদেরও সতর্ক করে দিল হাওয়া অফিস।

রাজ্যে এই মুহূর্তে শীতের আমেজ আর নেই। উল্টে দিন ও রাতের তাপমাত্রা বেড়েছে কলকাতায়। বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণও উর্ধ্বমুখী। ঘুর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’ কতটা প্রভাব ফেলবে এ রাজ্যে? আলিপুর আবহাওয়া দফতরের অধিকর্তা সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, বঙ্গোপসাগরে শক্তি বাড়িয়ে অতিগভীর নিম্নচাপটি পরিণত হয়েছে ঘুর্ণিঝড়ে। এর অভিমুখ এখন উত্তর-পশ্চিম দিকে। আগামিকাল, শনিবার সেটি পৌঁছে যাবে অন্ধ্রপ্রদেশ কিংবা ওড়িশার উপকূলে। এরপর বদলে যাবে গতিপথ। উত্তর-পূর্ব দিক বরাবর পুরী হয়ে ঘুর্ণিঝড় ধেয়ে আসবে পশ্চিমবঙ্গের উপকূলের দিকে।

আবহাওয়া দফতরের পূর্বাভাস, সপ্তাহান্তে শনি, রবি ও সোমবার ঘুর্ণিঝড়ের প্রভাব পড়বে রাজ্যে। শনিবার বৃষ্টি হবে দক্ষিণবঙ্গে সব জেলাতেই। ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টির আশঙ্কা পূর্ব মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, হাওড়া ও হুগলিতেও। দুর্যোগের হাত থেকে রেহাই পাবে না কলকাতাও। 'জাওয়াদ'-প্রভাবে রবিবার অতিভারী বৃষ্টি হতে পারে কলকাতা। সঙ্গে চলবে ঝোড়ো হাওয়া। আজ, শুক্রবার থেকে সোমবার পর্যন্ত মৎস্যজীবীদের সমুদ্র যাওয়ায় নিষেধাজ্ঞা জারি থাকবে।

এই ঘূর্ণিঝড়ের মোকাবিলায় প্রস্তুত রাজ্য সরকার। প্রাণহানি এড়াতে একাধিক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। উপকূলবর্তী এলাকা থেকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে সাধারণ মানুষদের। মাটির বাড়ির বাসিন্দাদের স্থানীয় সরকারি ক্যাম্পে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

ইতিমধ্যেই আটটি NDRF টিম মোতায়েন করা হয়েছে। কলকাতায় ২ কোম্পানি NDRF টিম মোতায়েন করা হয়েছে। এক কোম্পানি করে NDRF টিম মোতায়েন করা হয়েছে দুই ২৪ পরগনা, দুই মেদিনীপুর, হুগলি এবং নদিয়ায়। ১২টি জেলার জেলা শাসকের কাছে পাঠানো হয়েছে সতর্কবার্তা।

সূত্রের খবর, ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ রুখতে নবান্নের প্রস্তুতি তুঙ্গে। কল্যাণী, দিঘা, কাকদ্বীপ, সন্দেশখালি, আরামবাগ এবং খড়গপুরে একটি করে এবং কলকাতায় দুটি টিম মোতায়েন করা হয়েছে। শুক্রবারের মধ্যে আরও আটটি টিম মোতায়েন করা হবে বলেও জানা গিয়েছে। মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে।

অন্যদিকে, কোনওভাবেই যাতে জাওয়াদের কারণে মাঠের ফসলের ক্ষতি না হয় সেজন্য একগুচ্ছ পরামর্শ দেওয়া হয়েছে কৃষকদের। যে সমস্ত কৃষকরা আলু লাগিয়েছেন তাঁদের জমিতে নালা করার কথা বলা হয়েছে, যাতে জল জমে আলুর ক্ষতি না হয়। এদিকে যাঁরা এখনও আলু লাগাননি তাঁদের ৭ থেকে ১০ দিন সময় পিছিয়ে দেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

এছাড়াও কন্ট্রোলরুমগুলি খোলা থাকছে। এদিকে শহর কলকাতার পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্যও সবরকমভাবে প্রস্তুত প্রশাসন। এই সময় খোলা থাকছে কন্ট্রোলরুম, জানানো হচ্ছে পুরকর্তৃপক্ষের তরফে। এছাড়াও অধিক বৃষ্টিপাতের জেরে যাতে জল না জমে সেজন্য পাম্পিং স্টেশনগুলিও চালু থাকছে। এছাড়াও বিদ্যুৎ দফতরের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখা হচ্ছে। কোনওভাবেই যাতে জাওয়াদের জেরে প্রাণহানি না ঘটে তা সুনিশ্চিত করতে তৎপর প্রশাসন।